RSS Feed

Workers and the Trade Unions, Unite!

Posted by স্বাভিমান



Arup Baisya

There is no denying the fact that it is an unprecedented time and everybody from all walks of life concedes that. But it is also important that we must take stock of the situation to ascertain how the time is unprecedented. The Pandemic instills a sense of Shakespearean tempest in the minds of human species-being. But the Human being, the integral part of nature, completely breaking the metabolic link with nature through a long history of Capitalist plunder and profiteering suddenly have the feeling that Hell is empty, and all the Devils are here. But there is nothing called absolute truth in it. The dialectical Shakespearean wisdom within the opposing camps of Capitalists and Workers also starts germinating with an assertion that the Golden age is before us, not behind us.

The History of Capitalism is the history of expropriation of labour and nature. The expropriation operates through the social relation of Centre – Periphery, High and low Social Status, the privileged and subjugated cultural and social categories within the overarching relation of exchange value and primitive coercion for dehumanizing the labour. The money wealth accumulated in the hands of Capitalists creates the ‘Money illusion’ of heaven, the expropriated and the have-nots are destined to live in the perpetual creation of Hell. This real dehumanized world remains hidden through the reification of commodity relations and its most fetishized or doubly reified virtual images of commodities. This existing world of human relations appears to be normal. It becomes unprecedented when this existing normal space is disturbed by the immense pressure of the forces developed from within the rule of the game of plunder and profiteering, the polity becomes agog with the hustle-bustle of diverse section of the populace to cope with the new normal. The forces which generate to deform the space emerge both from labour and nature which are extremely exploited during the normal time of Capitalist history. This time is also no different, the final blow, of course, has come from nature.

The Capitalist mode of production had entered a systemic crisis in the late 1960s or early 1970s. The crisis is fundamentally the crisis of overproduction. In simple terms, the value the capitalist production process creates and objectified as commodities complete its cycle through the exchange for consumption in the market to start reproduction for the production process to continue. This value is the value of labour objectified as a commodity. But when more and more part of the value of labour is expropriated as surplus value by the Capitalists or the Capital personified in comparison to less and less part of the value is exchanged for labour-power or to the workers for subsistence, the commodities or the objectified labour go on accumulated as the total exchange in the market is not possible for value mismatch i.e. value as commodities and value as money to be exchanged for consumption. This crisis of overproduction is ingrained in the rule of the capitalist competition and the organic composition of capital and that is why, Capital needs creative destruction for its renewal and rejuvenation. The globalization of Capital for its expropriation and accumulation has also its geographical and natural limits. In the history of Capitalism, the last few decades have witnessed the immense globalizing spree of capital and the killing of space by time. The really existing Capitalism and its history reveal the fact that Capitalism cannot survive without its inherent logic of the pre-capitalist exploitation and symbiotic relation with the state.

When the early success stories of neo-liberal restructuring post-19880s collapsed and the neoliberal logic reached a cul-de-sac, the global economy strived to survive by creating a financial bubble. But the bursting of the housing bubble in 2008-09 and the US sub-prime crisis that snowballed into the global capitalist crisis had shaken the confidence of the Capitalists-Roaders. The Quantitative Easing for rescuing the institutions with the logic of ‘too big to fail’ gives rise to another bubble of debt. When this debt bubble started showing the sign of bursting, the policy of Quantitative Tightening was resorted to and the vicious cycle of bubble economy was set in. The Capitalist Roaders were at a loss to address the inherent and devastating crisis of capitalism of overproduction. Retrenchment, the rise of unemployment, casualization, and contractualisation, fall of wages and dismantling social security of labour for minimizing the cost of Capital to ensure profit had a devastating effect on the lives of labour when the Capitalists were also stuck in the uncertainty of keeping the production process to continue. The cold wave started flowing through the spines of the Capitalists and their hangers-on for multi-dimensional disruption in the system. The recent Pandemic has almost completely stalled the revenue-generating private productive and service sectors, and the global web-like supply and value chain which is so important for the neoliberal economy to survive have been almost completely disrupted. The production machines and conveyer belt are stopped, workers are disengaged from work. The financial market is struggling hard to keep illuminating their virtual image. It is a situation where the state and the toiling masses stand face to face. It is a situation where the Capitalists hide behind the state and the toiling masses start knowing them and becoming conscious of their social status as if the relation reified and fetishized by the commodity and exchange have vanished from the site.  This is the moment for new realization for the working class and also a new beginning for the Capitalist to redefine and restructure the relation to establish their hegemony. This is the dialectics for both co-operation and conflict.

Capitalists want the State to rescue them without undermining the logic of the market. It’s a sort of ‘privatized Keynesianism’. For them, it’s a phase of co-operation with the working class because without engaging the living labour with the productive machine and the conveyer belt of the service sector, there cannot be any capitalist profit. The working class can also best act through the state because citizens can influence the state, but not the market. For the Capitalist, nationalization means bureaucratic capitalism, but for the working class, it is a means to establish ‘Social Justice’ rejecting the logic of ‘Market Justice’. The bourgeois of all hues unite to influence the state to reinforce the rule of profiteering and as such, it is imperative that the structurally divided working class also unite to influence the production process through workers’ council at production center and workplace and to establish ‘Social Justice’ for the people.

The Indian economy had gone through a massive disruption during demonetization. Now the lockdown due to pandemic has caused the almost complete disruption in production and service sectors and the global value and service chain broken. Indian Inc. is united to influence the state for a bailout package to support a business model for a sort of ‘nationalist economy’ under their leadership. On the contrary, the working class needs to unite for workers’ power to influence the state for workers’ productive control and social justice. This is the best of time when workers can unite and be educated to defend their class interest vis-à-vis the people through the praxis of unity and struggle in their class organization.

But their own class organisations i.e. the trade unions are divided not only based on structural and functional divisions within the working class but also based on the petty interest of the Political Parties and their control through Trade Union leaders. The leaders of the Trade Unions are educators, but the educators are educated through the class struggle. The communists and the left should emphasize that the class interest and the class control over the Trade Unions, not the Party’s sectarian interest and Party’s control, should be the driving force behind the functioning of the Trade Unions. In this moment of crisis, it necessitates the unity of left Trade Unions to achieve the unity of the working class. Again, the Shakespearean wisdom tells us, “make use of time, let not advantage slip.”
It’s Marxism, stupid!

The moment of rediscovering Marxism and Revolution – (not for publication)

Posted by স্বাভিমান


 Arup Baisya

The Marxist and revolutionary praxis all over the world had lost its vigour post-collapse of the USSR. In front of the onslaught of neoliberal restructuring of production and labour process and the concomitant ideological influence due to the success stories at its initial phase led the working class to the receiving end and the revolutionary praxis to disarray. But the great things also happen in the epistemology of changing the world to change oneself at the time of retreat of a colourful and vibrant process of building a world beyond capitalism. The waning of revolutionary movements eo ipso shifted the limelight to the questioning of Marxism and its unilinear version. Hundreds of Marxism have emerged from the practicing Marxism and new insights have also surfaced in theoretical premise from the attempt to interpret the world from diverse dimensions. But the defeat begets defeat in theoretical and practicing renderings so long as the agency of changing of the world i.e. the working class remains within the confinement of the ideology of benevolent capitalism. The Marxist practice in India too visualized the working class as a victim of capitalism, not as the agent of change and as such hovered around the agenda of reformism. The real danger of Marxist practice lies in the linear interpretation of Marxism as a set of formulae and not as an evolving process and these have been adequately challenged by the Post-Marxist thinkers. But they inevitably failed to challenge the basic premise of Marxism “the philosophers have interpreted the world in various ways, the question is how to change it”. When the global and Indian polity is agog with the possibility of change and the working class and the masses have upped the ante to challenge the capitalist relation of production, Marxism is once again becoming the common meeting ground of all the forces aspiring to go beyond capital. In the history of capitalism, whenever the capitalist production system entered a crisis, Marxism showed the light to the oppressed and the exploited for liberty.

During the last few decades, it was a common understanding among the Indian revolutionaries that the democracy in Kashmir with the right to self-determination is a precondition for democracy in India. Kashmir has a checkered history of rebellion and subjugation, but Kashmir question has never relegated to such a marginal question in Indian political lifeline as it is today. This compels us to review the past prescient positioning and putative understanding of Kashmir question as Marx changed his strategy on Polish question from time to time.

In 1847, Marx’s view was that the victory of the English proletarians over the English bourgeoisie is decisive for the victory of all the oppressed over their oppressors. Hence Poland must be liberated not in Poland but in England. Since the revolt in Poland of 1794, 1830, and 1846 had been crushed by its powerful neighbours Russia, Prussia, and Austria, Marx’s view was that England would give the signal for the deliverance of Poland and that therefore Poland would be liberated only when the nations of Western Europe had won democracy. Marx, Engels and their colleagues viewed the labour struggle and democratic one as closely related. Again in 1863, when a full-scale uprising broke out in Poland, Marx viewed it as the harbinger of a wider European revolution. The Marxist revolutionaries in India tend to fall prey to the staticity of mindset and formulate the strategy once for all. In the backdrop of a fascist danger and the rising people’s movement to challenge this menace, the revolutionaries need to review its strategy and assert that the victory of democracy in the rest of India is the precondition for a victory ofh7 democracy in Kashmir.  

In the Indian landscape, the fascist movement and its concomitant fallout of on-going meticulously planned subversion of constitutional democracy for a fascist take-over of power is facing tough challenges from the people’s multifaceted movement for citizenship rights, rights of the workers and peasants, women’s rights, forest rights, people’s rights on natural resources, ecological rights, etc.

Though all these movements are fundamentally directed against the neo-liberal economy and masculine nationalism, these are revolving around a defensive and reformist agenda. The participation of the working class is still not as class-in-itself for transformation to class-for-itself but as a group of workers especially in cities and urban centers.

The people’s upsurge in cities and urban areas on citizenship question has already brought the question of democracy and state character into the focus of political discourse. This indicates that if all the people’s movements can be coordinated with a common revolutionary direction, it can lead to a revolutionary crisis in the next round of popular uprising under the leadership of working-class and workers-peasants alliance in the event of a global economic meltdown.

One should not miss the social dynamics of ongoing spontaneous people’s movement in India on the citizenship question. Firstly, the epicenters of this people’s upsurge are urban areas and cities. Secondly, though the Muslims, Dalits, and women are at the forefront, it should be kept in mind the workers in urban and city areas are mostly constitutive of people from these communities.

If imperialism is defined as the domination of capitalist forces over the pre-capitalist relation of production, then imperialism is inherent in capitalism from its birth. Lenin defined imperialism as the latest form of capitalism, not highest, based on the dependence of industrial capital on finance capital for the emergence of monopoly capital and the domination of backward countries by the centers of capitalist nation-states and the imperialist conflict thereon with a danger of war. The center-periphery and capitalist and pre-capitalist relation is prevalent throughout the global capitalist system, it does not matter whether the imperialist is in driving seat or not. It is naïve and mechanistic approach to divide the totality into two separate continuum of imperialist capitalist center and pre-capitalist periphery without delving into the changes within the pre-capitalist relation of production due to killing of space by time for global expansion of capital.

The diversity is not always progressive, sometimes it may also act as a regressive factor for revolutionary change. Today’s identity or Dalit Adivasi movement is not the same as the movement in the nineteen-eighties. The new emerging leaderships are representing the students-youths, women and working-class and they are fundamentally fighting for a new India with the question identity rights underlying within this grand narrative. Prakash Ambedkar is leading a long march on the citizenship question. The Bhim army and other newly formed or reorganized Dalit organisations are unconsciously leading and addressing the inherent issues related to the working class gradually making the old class leadership redundant and that’s why the leaders like Mayawati are muted.

The global capitalism is in deep crisis and due to the inherent contradictions within capitalism or due to any external triggering effect, this crisis may lead to another global meltdown. The Indian people’s movement this time has set the stage for another popular uprising in the event of a global meltdown when the working class will be at the forefront. The epicenter of such uprising will, likely, remain as the urban and city areas with rural areas as rear. It is worth mentioning here that post-1905, Russia was predominantly an agricultural country with industrial cities and urban areas having deep penetration of European capital and Russia did not even achieve the basic tenet of bourgeois democracy of universal suffrage.
  
This necessitates a formidable revolutionary subjective force who can play the role from the perspective of “from the masses, to the masses” to emerge and this underlines the urgency of the unity, albeit through stages, of all the Indian communist revolutionaries.

In the absence of revolutionary subjective force organically linked with the people’s movement, there is every possibility that the people’s movements which have mostly developed spontaneously and from their life-experience either may be coopted by a new version of liberal democracy with a soft Hindutva core or fascist state may be successful to suppress people’s assertions.

But there is no denying the fact that this moment of the here and now is the moment for broadest unity against the imminent danger of fascist takeover of the state.

Posted by স্বাভিমান



Creative Energy Unfloding

A Near-Uprising Situation?
Arup Baisya


Of late people have been witnessing a situation of near-uprising which is generated by two apparently segregated but intertwined large-scale mass-movements. The movement against NPR-NRC-CAA which is designed to launch a body blow to the Indian civilisation and democracy and the participation of about 25 crore workers primarily against the wage-code which curtailed the legal rights of the working class, had the mutual complementary effect to give rise to such near-uprising situation. This people's activity has released the creative energy with a long-term consequence. This creative energy not only gave birth to the innovative forms of movements, but also unleashed new dimensions of popular practising art and culture. This is a creative energy which was non-existent in the status-quo of mutually alienated diverse communities prior to uprising. The question arises how this became possible for new creative energy to surface and how the observers could identify it as something new which was non-existent earlier.


The way new qualities emerge due to the chemical reactions within the matters, the conflict which arises due to the accumulated vibrant social interactions gives rise to new creativity through the transformation of qualitative change of time. Such change of time is not unrelated to the space. One would have failed to identify this change if the space and time are mutually segregated. This new space-time which Indians at the moment are observing through the unleashing of creative energy is the real Indian society. But in reality it as near-uprising because of the fact that it is not elevated to such an orbital level that the arrow of time cannot be reversed towards the centre for a new status quo ante. The efforts to reverse the direction in ongoing in the political arena.


This people's movement tantamount to an uprising has been directed against the fascist form of the same state and social structure. This too has also reverberated in diverse qualitative and quantitative dimensions in consonance with the uneven development of Indian landscape. The rule of the state and the illusion of the commodity fetishism which stand as barriers in between the diverse communities as driving force to obscure the social relations has not yet become the target of people's consciousness.


The rhetorical political discourse based on conspiracy theory to delineate the good or bad character of the parties and the personalities in the anti-fascist camp hinders the people's activism to visualise their objective goal and thus unconsciously pursues them to land in inactivity once again in favour of status quo. The anti-fascist people's movement can advance themselves to a higher plank through mutual co-operation amongst class-caste-identity and cultural groups by meticulously building a critique of liberal democracy and through new debate and discussions on the new construction of co-operation beyond the law of value.


To achieve this, it is imperative that a country-wide popular front is emerged from within the anti-fascist people's movement which will not only be active to safeguard constitutional democracy, but also directed towards real federalism for shifting the state power at the door of the people, towards challenging the capitalist mode of production by incorporating the agenda of redefining the production and labour process through factory council, peasant association etc., by challenging the commodity production and law of value by ensuring free education, healthcare and other services necessary for livelihood and welfare, by giving birth to a new initiative on practicing culture against the hedonistic and feudal culture.


The self-regulated and quasi-autonomous people's initiative based on this socio-political outlook can compel the political parties to rise above their petty squabbles and to focus on their immediate task to electorally defeat the fascist forces and simultaneously adopting the agenda of state policy keeping an eye on the desire of the people's activism. Such people's movement may be able to create the popular pressure to dissuade the political parties from smear campaign and rhetorical verbosity and socially aimless mudslinging in the pretext of liberal democracy. Such emancipation can only show the dream of a new dawn to the Indian people. Otherwise, amidst a deep crisis of capitalism, there can be no relief from fascism or overwhelming destruction, the status quo ante will once again set in to keep people waiting for a menacing future.



নামানো ‘কা', নামানো পুনৰাই এন আৰ চি :: অসমৰ ২২টা সংগঠনৰ আহ্বান

Posted by স্বাভিমান Labels: , , , ,

নামানো ‘কা', নামানো পুনৰাই এন আৰ চি, নামানো অসম চুক্তিৰ ৬নং দফা ৰূপায়ণৰ নামত বিভাজনৰ চল-চাতুৰী; আহক, সকলোৱে মিলি দেশজুৰি হোৱা ফেচিবাদ বিৰোধী গণ জাগৰণত চামিল হওঁ।

নামানো ডিটেনচন কেম্প নামক হিটলাৰী কনচেনট্ৰেচন কেম্পত সহোদৰৰ অপমৃত্যু; নামানো হেজাৰ হেজাৰ কোটি ৰাজহুৱা ধনৰ শৰাধেৰে ট্ৰিবুনেলৰ ভেকো-ভাওনা;  আহক, ৰাজনীতি আৰু প্ৰশাসনিক বৈষম্যৰ বলি হৈ  এন আৰ চি চ্যুত ১৯ লক্ষাধিক লোকক ট্ৰিবুনেল বহিৰ্ভূত যথাযথ প্ৰক্ৰিয়াৰ দ্বাৰা ন্যায় প্ৰদানৰ দাবীত সৰৱ হওঁ।

বাংলাদেশী ভগনীয়াৰ আগ্ৰাসনৰ অলীক আশংকাত আবেগৰ ঢৌত ভাহি নহয়, ধৰ্মীয় মেৰুকৰণে অসমীয়া জাতীয়তাৰ প্ৰতি কঢ়িয়াই অনা প্ৰকৃত বিপদৰ প্ৰতি সজাগ হওঁ; আহক, সমস্বৰে সমগ্ৰ অসমবাসীয়ে দাবী তোলোঁ সংবিধান সংশোধন কৰি অসমত ৰাজ্য ভাষাৰ প্রশ্নত স্থায়ী ভাবে বৰ্তমানৰ স্থিতাৱস্থা বাহাল ৰখাৰ।

আহক, অখিল গগৈকে ধৰি কা বিৰোধী জন জাগৰণৰ আটাইকেইগৰাকী বন্দীৰ বিনাচৰ্তে মুক্তিৰ দাবীত ৰাজপথ কঁপাও; আহক, দাবী তোলোঁ পঞ্চ শ্বহীদৰ হত্যাৰ ক্ষতিপূৰণকে ধৰি প্রতিজন নিৰ্যাতিতৰ বাবে ক্ষতিপূৰণ।
আহক, জাগি উঠা নতুন ভাৰতৰ, নতুন অসমৰ  আমিও অংশীদাৰ হওঁ।
(C)Image

‘সন্মিলত নাগৰিক মঞ্চ’, ‘ব্রহ্মপুত্র ভেলী চিভিল ছ’চাইটী’, ‘সদৌ অসম সংখ্যালঘূ ছাত্র ইউনিয়ন’(আমছু), ‘সদৌ অসম আদিবাসী ছাত্র সন্থা’(আছা),অসম সংখ্যালঘু সংগ্রাম পৰিষদ’, ‘নিউ ট্রেড ইউনিয়ন ইনিচিয়েটিভ, আছাম’ ‘দেশপ্রেম’ ‘সংখ্যালঘূ গণতান্ত্রিক যুৱ ছাত্র ফেডাৰেচন’ ‘প্রয়াস’ ‘ভাৰতীয় নাগৰিক অধিকাৰ সুৰক্ষা মঞ্চ’, ‘ নিখিল ভাৰত বাঙালি সংগঠন’, ‘ নিউ ইণ্ডিয়া স্টুডেন্টচ্ এচোচিয়েচন’, ‘ ফ’ৰাম ফৰ চোচিয়েল হাৰমনি’, ‘ হিউমেন ৰাইটছ এণ্ড এন্টি কৰাপচন ফাউন্ডেচন, ইণ্ডিয়া’, ‘অসম মজুৰি শ্রমিক ইউনিয়ন’, ‘জাষ্টিছ ফ’ৰাম, আছাম’, ‘ঝাড়খণ্ডী আদিবাসী সংগ্রাম পৰিষদ’, ‘বৰাক হিউমেন ৰাইটছ প্রোটেকচন কমিটি’ .’মানৱ একতা মঞ্চ, অসম’, ‘কৃষক-শ্রমিক উন্নয়ন পৰিষদ’, ‘কনচেপ্তঃ পিপল এণ্ড আইডিয়াজ’,’আদিবাসী মাতৃভাষা দাবি সমিতি’, ‘ৱমেন ইন গবৰনেন্স’



কোচ-কলিতা-আহোম-চুতীয়া-মৰাণ-মটক, অসমীয়া-বঙালী-বিহাৰী-মাৰোৱাৰী,  বড়ো-ৰাভা-মিছিং-কাৰ্বি-ডিমাছা, আদিবাসী-মিঞা-গোৰ্খালি, হিন্দু-মুছলমান যিয়েই নহওঁক কিয় জাতি-বৰ্ণগত কিম্বা ধৰ্মীয় আমাৰ পৰিচয়; মুঠতে আমি অসমৰ, আমি ভাৰতৰ । এই দেশৰ নাগৰিক আমি। এই শ্বাশ্বত সত্যৰ ওপৰতেই নামি আহিছে আজি আক্ৰমণ। চূড়ান্ত ধূর্তালিৰে বিজেপি চৰকাৰে নাগৰিকত্ব আইনত ‘কা’-ৰ জৰিয়তে সংশোধনী আনি ধৰ্মৰ নামত ভাগ কৰিব বিচাৰিছে দেশৰ জনতাক, উদ্যত হৈছে দেশৰ সংবিধান, দেশৰ আত্মাক হত্যা কৰিবলৈ। আমাৰ দ্বাৰাই নিৰ্বাচিত হৈ সিহঁতে বিচাৰিছে আমাৰেই নাগৰিকত্বৰ পৰীক্ষা লবলৈ । সিহঁতে হেনো কৰিব দেশজুৰি এন আৰ চি। এন আৰ চি ৰ জৰিয়তে কাগজ পাতিত থকা সামান্য হেৰফেৰৰ অজুহাতত কোটি কোটি দুখীয়া-নিচলাৰ কাঢ়ি লব বিচাৰিছে নাগৰিকত্বৰ অধিকাৰ। মুচলমান সকলক বাদ দি বাকী সকলৰ সন্মুখত ৰাখিছে ‘কা'-ৰ জৰিয়তে শৰণাৰ্থী বনাই পৰবৰ্তী পৰ্যায়ত পুনৰাই নাগৰিকত্বৰ বাবে আবেদনৰ সুযোগ প্ৰদানৰ টোপ।মুছলমান হলে এশ এবুৰি অজুহাতত নাগৰিকত্ব কাঢ়ি লোৱাৰ চক্রান্তত সিহঁত আজি মচগুল, যাতে সিহঁতৰ দেশীয় প্ৰভু আদানি-আম্বানীকে ধৰি বহুজাতিক পুঁজিৰ মালিকহঁতক দেশহীন শ্রমজীৱী নাগৰিকৰ দ্বাৰা গঠিত বিশাল এক সস্তীয়া মজুৰ বাহিনী উপহাৰ দিব পাৰে।

আমাৰ ৰাজ্যখনতেই দেখিলো আমি কেনেদৰে হেজাৰ হেজাৰ কোটি টকাৰ শৰাধ কৰি উন্নয়নৰ যাৱতীয় কাম পিছ পেলাই কৰা হল এন আৰ চি। দেখিলো  ৰাইজৰ জীয়াতু, দেখিলো মানুহৰ আলৈ আথানি, দেখিলো দেশহীন হোৱাৰ আতংকত চুবুৰীয়া ভাইটোৱে ডিঙিত চিপ লোৱাৰ সকৰুণ দৃশ্য। এন আৰ চিৰ প্রথমখন খচৰা তালিকাত নাম উঠা নাছিল ৪০ লাখ মানুহৰ। অথচ তেতিয়াই ডিঙিৰ শিৰ ফুলাই ফুলাই গোটেই দেশতেই অমিত শ্বাহ বাহিনীয়ে কৈ ফুৰিছিল ৪০ লাখ ‘ঘুচপেটীয়া’ হেনো অসমত এন আৰ চি কৰি সিহঁতে বিচাৰি উলিয়ালে। এন আৰ চি ৰ অন্তিম তালিকাৰ পৰা বাদ পৰি ৰল ১৯ লাখ মানুহ। বাদ পৰা এই সকলৰ ভিতৰত নাই কোন? আছে নৰনাৰায়ণ-চিলাৰায়ৰ বংশধৰৰ পৰা আৰম্ভ কৰি বড়ো-ৰাভা-হাজং-চুতীয়া-মৰাণ-মটক আহোম-নেপালী-গোর্খালি আদিবাসীৰ পৰা মিঞা মুছলমান- বঙালী-বিহাৰী বিভিন্ন জাতি সম্প্ৰদায়ৰ মানুহ, যিসকলৰ আজো ককাকৰো জন্ম ইয়াতেই কিম্বা ভগনিয়া হৈ অহা সকলৰ, যাৰ ৯০ শতাংশতকৈয়ো অধিকৰে ইতিহাসো  তিনিকুৰি বছৰতকৈও পুৰণি। নাম বাদ গৈছে কুটিল ৰাজনীতি আৰু প্ৰশাসনিক বৈষম্যৰ চকৰিত, কোৱা হৈছে বিদেশী ট্ৰিবুনেলত প্ৰমাণ কৰিব লাগিব এইসকলে নিজৰ নাগৰিকত্ব। বাহ, কি চমৎকাৰ! প্ৰমাণ কৰিব নোৱাৰিলে সোমোৱা গৈ ডিটেনচন কেম্পত। দেখিছোঁ আমি ট্ৰিবুনেলৰ প্ৰহসন! আমাৰ মনত আছে ছোনা উল্লাহ, মধুবালা মণ্ডল, অন্নবালা ৰায়, দুলাল পাল ‘বিদেশী’ হৈ ডিটেনচন কেম্পত সোমোৱাৰ কাহিনী! দেখিছোঁ আমি ক্ষমতাৰ আঙুলিৰ ঠাৰত কিদৰে চলে ট্ৰিবুনেলৰ বিচাৰ। ঔপনিবেশিক আমোলৰ সেই বিচাৰ পদ্ধতি, যত অভিযুক্তই প্ৰমাণ কৰিব লাগে অভিযোগৰ ভিত্তিহীনতা। মিথ্যাচাৰৰ সকলো সীমা পাৰ কৰি প্রধান মন্ত্রী ডাঙৰীয়াই এতিয়া কৈছে দেশত হেনো নাই কোনো ডিটেনচন কেম্প।

আৰু দেখিলো এন আৰ চি ৰ নামত কিদৰে পংগু কৰি দিয়া হ'ল অসমৰ অৰ্থনীতিক।  দুটাকৈ অসমৰ কাগজ কল বন্ধ হৈ গ'ল, বেকাৰৰ সংখ্যাই  চুইছে আকাশ, এক সৰ্বাত্মক ধ্বংসৰ গৰাহত অসম। নাগৰিকৰ নাগৰিকত্ব কাঢ়িলে, এতিয়া আকৌ টোপ দিছে ‘কা’-ৰ জৰিয়তে এন আৰ চি চ্যুত হিন্দুক নাগৰিকত্বৰ। কৈছে, ট্ৰিবুনেলত কেচ খেলাৰ বাবে চৰকাৰী ভাবে আমি উকীল দিম। উকিলৰ খৰচ, ট্ৰিবুনেল মেম্বাৰৰ দৰমহাৰ খৰচ, আন্তঃগাঁথনিৰ খৰচ কাৰ পকেটৰ পৰা যাব? ৰাখিছো নে হিচাপ, কিমান হেজাৰ কোটি যাব এইবোৰৰ বাবদ?? মোদী, অমিত শ্বাহৰ প্ৰভুহতে দিব নেকি সেই টকা? সাপ হৈ খুটি বেজ হৈ জৰাৰ কি যে অনুপম নিদৰ্শন! কবলৈ লৈছে মুছলমানকহে বিদেশী বনোৱাৰ কথা। সোনোৱাল মন্ত্রীসভাৰ সৰ্বেসৰ্বা মন্ত্রীগৰাকী আৰু তেওৰ বাহিনীয়ে কৈছে এইবাৰ হেনো ৫১ চনক ভিত্তিবর্ষ ধৰি এন আৰ চি বনাব, ‘কা’-ৰ জৰিয়তে হিন্দুক দিব সুৰক্ষা। ২০০৩ চনত তদানীন্তন বিজেপি নেতৃত্বাধীন এন ডি এ চৰকাৰৰ আমোলতেই নাগৰিকত্ব আইনত সংশোধনী ঘটাই স্বাধীন সাংবিধানিক ভাৰতৰ বুনিয়াদ ধ্বংসৰ ষড়যন্ত্ৰৰ  মেলা হৈছিল পাতনি আৰু আজি তাকেই পূৰ্ণতা দিয়াৰ বাবে সিহঁত উঠি পৰি লাগিছে। সৌ সিদিনা, দিছ্পুৰৰ গাদীত বহিয়েই দম্ভেৰে ঘোষণা কৰিছিল - ‘কা' আনিম, বাংলাদেশৰ হিন্দুক মাতি আনিম, ঢাল গঢ়িম মিঞাক ভেটাৰ, ৰোধ কৰিম বদৰুদ্দিন মুখ্যমন্ত্ৰী হোৱাৰ বাট। ধান্দাবাজহঁতে ভাবে সিহঁতৰ ধান্দা জনতাই  নুবুজে বুলি। দিছ্পুৰৰ গদীত সৰ্বানন্দ সোনোৱাল বহিল নে হিমন্তবিশ্ব শৰ্মা বহিল, তৰুণ গগৈ বহিল নে কোনোবা বদৰুদ্দিন আজমল, তাত জনতাৰ কোনো মতলব নাই, মতলব আছে জনতাৰ স্বাৰ্থক কোনে দিছে অগ্ৰাধিকাৰ সেই কথাত। আজি যেতিয়া অসমৰ জনতাই জকি উঠিছে সিহঁতে সলাইছে সুৰ, কবলৈ ধৰিছে বাংলাদেশৰ পৰা নঘটে হেনো কোনো ভগনীয়াৰ স্রোত। তেন্তে কিয় আছিল সেই প্ৰৰোচনা? ভোটৰ অংকত অসমীয়া বঙালী সংঘাত সৃষ্টিৰ?? দেশজুৰি ‘কা’-ৰ জৰিয়তে সিহঁতে খেলিব বিচাৰিছে হিন্দু মুচলিম বিভাজনৰ খেলা, ইয়াত তৎপৰ হিন্দু মুচলিম বিভাজনৰ লগতে অসমীয়া-বঙালী বিভাজনৰ খেলখনৰ বাবেও। ঘৃণাৰ সদাগৰ মোদী, শ্বাহহঁতে ঘুগু(কপৌ চৰাই) দেখিছে, ফান্দ দেখা নাই। এইবাৰ সিহঁতক তাকেই দেখুৱাই দিয়াৰ পাল। সিহঁতৰ স্পৰ্ধাৰ প্ৰত্যুত্তৰ দিবলৈ জাগি উঠিছে আজি নতুন ভাৰত।

বাংলাদেশী ভগনীয়াই হৰিব আমাৰ মাত কথা,বিপন্ন হব ভাষা সংস্কৃতি,সেয়া অলীক কথা। বিপদ আহিছে ক্ষমতাৰ কেন্দ্ৰীভৱনৰ পৰা, বিপদ আহিছে জাতিৰ সংজ্ঞাক হিন্দুকৰণৰ পৰা, যাৰ মূল পুৰোহিতো সিহঁতেই। ধৰ্মীয় মেৰুকৰণে কেৱল অসমীয়াৰে নহয়, বঙালীকে ধৰি আৰু বহুতো জাতিৰ ভাঙি দিব ৰাজহাড়; বিপন্ন হব আঞ্চলিক স্বায়ত্বতা, আটাইকে বাধ্য কৰিব দিল্লীত কেন্দ্রীভূত মনুবাদী হিন্দী-হিন্দু আধিপত্যবাদৰ ওচৰত আত্ম সমৰ্পনৰ বাবে।

দীপাঞ্জল দাস, ছেম স্টেফৰ্ড, দিজেন্দ্র পাংগিং, ঈশ্বৰ নায়ক আৰু আব্দুল আলীম- পঞ্চ শ্বহীদৰ আত্ম বলিদান সম্বৃদ্ধ ‘কা’-বিৰোধী স্বতস্ফুৰ্ত জন জাগৰণক বিভক্ত কৰাৰ বাবে চলিছে আজি অহৰহ চৰকাৰী অপচেষ্টা। আজি ‘কা’-বিৰোধী গণ বিক্ষোভে যেতিয়া দেশজুৰি এক অভূতপূৰ্ব গণ অভ্যুত্থানৰ বাট মুকলি কৰিছে, তেতিয়া অসমত আমি দেখিছো ৰজাঘৰৰেই আশীৰ্বাদপুষ্ট বিশেষ এক গোষ্ঠীৰ দ্বাৰা সমগ্র আন্দোলনটোকেই হাইজেক কৰাৰ লেখীয়া এক পৰিস্থিতি। আন্দোলনকাৰী শক্তিসমূহৰ যৌথ নেতৃত্বৰ সলনি স্বতস্ফূৰ্ত এই গণ জাগৰণক মাত্ৰ এটা গোষ্ঠী, তাকো আকৌ এজন বা দুজন নেতাৰ নিয়ন্ত্রণাধীন কৰাৰ চেষ্টা। কাৰোবাক ৰাজকীয় অনুমোদন আৰু কাৰোবাৰ ওপৰত লাঠী-গুলী-কন্দুৱা গেছ; ফাটি পৰা জনতাৰ ক্ষোভক নিয়্ন্ত্ৰণতো বিভেদৰ খেলা, দালাল আৰু আন্দোলনকাৰীৰ ৰূপত ছদ্মবেশী এজেণ্টৰ দ্বাৰা আন্দোলনক বিপথগামী কৰাৰ চৰকাৰী অপচেষ্টা, সকলোবোৰৰেই সাক্ষী আমি। এতিয়া চলিছে ললিপপ দেখুৱাই কা-বিৰোধী আন্দোলনত ভাঙোন অনাৰ কুচ-কাৱাজ। চলিছে অসম চুক্তিৰ ৬ নং দফা কাৰ্যকৰী কৰণৰ নামত বিভ্রান্তি বিয়পোৱাৰ অপচেষ্টা। লগতে আৰম্ভ হৈছে ঔপনিবেশিক আমোলৰ ছেডিছন এক্টৰ ব্যাপক অপপ্ৰয়োগ, চৰকাৰ বিৰোধী প্রতিবাদক ঘোষণা কৰা হৈছে ৰাজদ্ৰোহ হিচাপে।

এই সমস্ত চল-চক্ৰান্তৰ প্ৰত্যুত্তৰ আমি দিবই লাগিব। ঐক্যৰ মাজতে আছে আমাৰ শক্তি। সজাগ হওঁক, জনতাৰ ঐক্য বিনষ্টকাৰী প্ৰতিটো চক্রান্তক ব্যৰ্থ কৰক। আহক, ওপৰত উল্লেখিত দাবী সমূহ  আগত ৰাখি গঢ়ি তোলোঁ সমূহ অসমবাসীৰ বৃহত্তম ঐক্য। আহক, সময়ৰ দাবীক মানি লৈ হিন্দুত্ববাদৰ লগত সাংগাঠনিক তথা মানসিক সম্পৰ্ক ত্যাগ কৰি গঢ়ি তোলো আন্দোলনকাৰী বিভিন্ন গোটৰ সংগ্রামী গণ মঞ্চ। আহক, এই সংগ্রামৰ লগত যুক্ত কৰো ৰুটি ৰুজিকে ধৰি জীৱন জীৱিকাৰ প্ৰশ্নবোৰো। আহক, তুলি ধৰো গণতন্ত্র আৰু ধৰ্ম নিৰপেক্ষতাৰ পতাকা। আহক, খোজত খোজ  মিলাও জাগি উঠা নতুন অসম, নতুন ভাৰত অভিমুখে।
ফেচিবাদ নিপাত যাওক। ইনকিলাব জিন্দাবাদ।।

***  *** *** *** 
‘সন্মিলত নাগৰিক মঞ্চ’ৰ হৈ গোপাল গোস্বামী, হেমেন বৰা, ‘ব্রহ্মপুত্র ভেলী চিভিল ছ’চাইটী’ৰ হৈ ডঃ আতোৱাৰ ৰহমান, ছাহ জাহান তালুকদাৰ, ‘সদৌ অসম আদিবাসী ছাত্র সন্থা’ৰ হৈ ষ্টিফেন লাকৰা, দেবেন ওৰাং, ‘সদৌ অসম সংখ্যালঘূ ছাত্র ইউনিয়ন’ৰ হৈ আজিজুৰ ৰহমান, ৰেজাউল কৰিম চৰকাৰ, ‘অসম সংখ্যালঘূ সংগ্রাম পৰিষদ’ৰ হৈ মহম্মদ আলী খলিফা, ‘দেশপ্রেম’ৰ হৈ ৰফিক আহমেদ, দয়া সাগৰ কলিতা, ‘সংখ্যালঘূ গণতান্ত্রিক যুৱ ছাত্র ফেডাৰেচন’ৰ হৈ আশাদুল হক চৌধুৰী, ‘প্রয়াস’ৰ হৈ পাৰিজাত এন ঘোষ, ‘ভাৰতীয় নাগৰিক অধিকাৰ সুৰক্ষা মঞ্চ’ৰ হৈ জমশ্বেৰ আলি, ‘নিখিল ভাৰত বাঙালি সংগঠন’ৰ হৈ মানস ৰায়, ‘নিউ ইণ্ডিয়া স্টুডেন্টচ্ এচোচিয়েচন’ৰ হৈ ছাৰৱাৰ জাহান লস্কৰ, ‘ফ’ৰাম ফৰ চোচিয়েল হাৰমনি’ৰ হৈ হৰকুমাৰ গোস্বামী, শান্তিৰঞ্জন মিত্র, অৰিন্দম দেব, ফাৰুক লস্কৰ, ঋতুৰাজ গোস্বামী, ‘আদিবাসী মাতৃভাষা দাবি সমিতি’ৰ হৈ কিৰন্ময় তাঁতি. ‘কনচেপ্তঃ পিপল এণ্ড আইডিয়াজ, শিবসাগৰ’ৰ হৈ ৰঞ্জিত বৰা, ‘ৱমেন ইন গবৰনেন্স’ৰ হৈ বন্দিতা আচাৰ্য, ,’হিউমেন ৰাইটছ এণ্ড এন্টি কৰাপচন ফাউন্ডেচন, ইণ্ডিয়া’ৰ হৈ নিলিমা বেগম, ‘অসম মজুৰি শ্রমিক ইউনিয়ন’ৰ হৈ মৃণাল কান্তি সোম, কৃষ্ণ গগৈ, দেবজিত চৌধুৰী, ‘জাষ্টিছ ফ’ৰাম, আছাম’ৰ হৈ মতিউৰ ৰহমান, ‘বৰাক হিউমেন ৰাইটছ প্রোটেকচন কমিটি’ৰ হৈ তানিয়া চুলতানা লস্কৰ, ‘মানৱ একতা মঞ্চ, অসম’ৰ হৈ যজ্ঞেশ্বৰ শৰ্মা, ‘নিউ ইণ্ডিয়া ট্রেড ইউনিয়ন ইনিচিয়েটিভ, আছাম’ৰ হৈ মানস দাস, ‘কৃষক-শ্রমিক উন্নয়ন পৰিষদ’ৰ হৈ প্রদীপ কলিতা, ‘ঝাড়খণ্ডী আদিবাসী সংগ্রাম পৰিষদ’ৰ হৈ ৰবচন মুণ্ডা, ৰতন হেমব্রমৰ দ্বাৰা প্রকাশিত আৰু প্রচাৰিত।

ভারতের নাগরিকত্ব আইন - এক সংক্ষিপ্ত বিবরণ ও পর্যালোচনা

Posted by সুশান্ত কর Labels: , ,



[গুয়াহাটিতে একুশতম উত্তর-পূর্ব গ্রন্থমেলায় অক্ষর পাবলিকেশন্সের স্টলে আজ উই প্রকাশনীর ‘এনআরসি : প্রক্রিয়া ও প্রভাব’ বইটির আনুষ্ঠানিক উন্মোচন হল ৬ নভেম্বরে। বইটি এন আর সি সংক্রান্ত প্রকাশিত অপ্রকাশিত লেখালেখির সংকলন। গ্রন্থবন্ধ করেছেন বাসব রায়। 
            এনআরসি কী? এনআরসি কেন? এনআরসি-তে গ্রহণযোগ্য নথি কী কী? অসমে এনআরসি কীভাবে হয়েছে? ডি-ভোটার কী? কাদের কাছে পাঠানো হয় ডি-ভোটার নোটিশ? তারপর তাঁদের অবস্থা কী হয় বা হতে পারে? ডিটেনশন ক্যাম্প কী? কাদের পাঠানো হয় সেখানে? কীভাবে পাঠানো হয়? ফরেনার্স ট্রাইব্যুনাল কী? কীভাবে কাজ করে ট্রাইব্যুনাল? পপুলেশন রেজিস্ট্রার বা ন্যাশনাল পপুলেশন রেজিস্ট্রার (এনপিআর) কী? জনগণনা বা সেনসাসের সঙ্গে এর পার্থক্য কী? এনআরসি-র সঙ্গে এনপিআর-এর সম্পর্ক কী? এনআরসি তালিকা-ছুট উনিশ লক্ষ কী করবে? কোথায় যাবে? কীভাবে তাদের ভারতীয়ত্ব প্রমাণ হবে? নাগরিকত্ব আইন কী? তার ব্যাখ্যা কী? এনআরসি কোন আইন মোতাবেক হয়েছে? এনআরসি-তে নাম থাকলেই কি কেউ ভারতীয়? আর কোনো প্রমাণ কি তাকে দিতে হবে? এনআরসি তালিকা সম্পর্কে রাজনৈতিক দলগুলোর মতামত কী? এই তালিকা কি রাষ্ট্রের বা অসমের দলিল হিসেবে মান্য? গোটা দেশে বিদেশি নির্ধারণের ভিত্তিবর্ষ কী? অন্যান্য রাজ্যে এনআরসি হলে কী হতে পারে কাট-অব-ডেট?
          প্রায় সবার মনে বহু প্রশ্ন। বিভ্রান্তিও প্রচুর। এবং এটা অনস্বীকার্য যে বর্তমানে অন্যান্য রাজ্যে এনআরসি-র পরিপ্রেক্ষিতে এসব প্রশ্ন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এবং অনেকেই সবটা জানতে চান। অথচ এনআরসি প্রক্রিয়া, ডি-ভোটার, ডিটেনশন ক্যাম্প, ফরেনার্স ট্রাইব্যুনাল-এর আদ্যোপান্ত নিয়ে কোনো বই-ই নেই।
ঠিক এই অভাববোধ থেকেই ‘অল অ্যাবাউট এনআরসি’ বইয়ের পরিকল্পনা। কোনো দল বা সংগঠনকে দোষারোপ না করে, শুধুই এনআরসি প্রক্রিয়া, ডি-ভোটার, ডিটেনশন ক্যাম্প, ফরেনার্স ট্রাইব্যুনাল সম্পর্কে গত চার-পাঁচ বছরে পত্রপত্রিকায় যা প্রকাশিত, তার নির্বাচিত মলাটবদ্ধ করা হয়েছে।
       
প্রকাশকের মতে বাঙালি পাঠকের কাছে সত্যিকারের এনআরসি বিশেষজ্ঞ যদি কাউকে বলতেই হয় তো তিনি – বীরেশ্বর দাস। এনআরসি সম্পর্কে সংবাদপত্রে প্রকাশিত তাঁর রিপোর্টিংই ‘এনআরসি : প্রক্রিয়া ও প্রভাব’ বইটির আধার।
         এ ছাড়া তিনসুকিয়া থেকে প্রকাশিত ‘উজান’ পত্রিকায় প্রকাশিত তিনটি প্রবন্ধ রাখা হয়েছে বইটিতে। ডি-ভোটার, ফরেনার্স ট্রাইব্যুনাল ও ডিটেনশন ক্যাম্প বিষয়ক তিনটি স্বতন্ত্র প্রবন্ধ। সংক্ষেপে এনআরসি প্রক্রিয়ার সঙ্গে পাঠককে পরিচয় করিয়ে দেবার ভার স্বচ্ছন্দে বহন করেছেন বীরেশ্বর দাস। এইসঙ্গে রয়েছে লিগ্যাসি ডেটা নিয়ে তাঁর একটি প্রবন্ধ। এনআরসি বা ন্যাশনাল রেজিস্ট্রার অব সিটিজেশনশিপ-এর সঙ্গে অঙ্গাঙ্গি জড়িত নাগরিকত্ব আইন। সেজন্য বইটিতে আছে নাগরিকত্ব আইনের বিশদ ব্যাখ্যা। বর্তমান নিবন্ধটি লিখেছেন বাসব রায়  আইনী পরিমর্শের ভিত্তিতে। 


নাগরিকত্ব হল রাষ্ট্রের সঙ্গে ব্যক্তির সম্পর্কের নাম। রাষ্ট্রের সদস্যকে নাগরিক বলে। নাগরিকরা রাষ্ট্র পরিচালনায় অংশগ্রহনের অধিকার সহ কিছু বিশেষ অধিকার পান সেই অধিকারগুলির বেশকিছু অনাগরিকরা পান না। অধিকার ভোগকরার সাথে নাগরিকদের কিছু দায়িত্বও থাকে। কোন ক্লাবের সদস্য হতে যেমন সেই ক্লাবের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী কিছু যোগ্যতা দরকার, তেমনই রাষ্ট্রের নাগরিক হতেও কিছু শর্ত পূরণ করতে হয়। সংবিধান হল রাষ্ট্রের বা দেশের গঠনতন্ত্র। আমাদের দেশের অর্থাৎ গণপ্রজাতন্ত্রী ভারত রাষ্ট্রের সংবিধান ১৯৫০ সালের ২৬ জানুয়ারি বলবৎ হয়। নাগরিকত্ব বিষয়টি সংবিধানের দ্বিতীয় খণ্ডে (Part – II) অনুচ্ছেদ বা ধারা (Article) ৫ থেকে ১১ পর্যন্ত বর্ণিত আছে। সর্বসাধারণের জন্য গুরুত্বপূর্ণ ধারাগুলি সহজ ভাষায় উল্লেখ করা হল।
সংবিধানের ধারা ৫ অনুযায়ী সংবিধান বলবৎ হওয়ার সময় ভারত ভূখণ্ডে বসবাসকারী যাঁদের জন্ম ভারতে হয়েছে বা যাঁদের মা-বাবার কোন এক জনের জন্ম ভারতে হয়েছে তাঁরা ভারতের নাগরিক; এবং সংবিধান বলবৎ হয়ার সময় ভারত ভূখণ্ডে বসবাসকারী যাঁরা সংবিধান বলবৎ হওয়ার পূর্ববর্তী নুন্যতম টানা ৫ বছর ভারতে সাধারণভাবে বসবাস করেছেন তাঁরা সবাই ভারাতীয় নাগরিক। সংবিধানের ধারা ৬ বলছে যে যাঁরা পাকিস্থান থেকে ভারতে এসেছেন এবং যাঁদের বা যাঁদের মা-বাবা কিংবা মাতামহ-মাতামহী অথবা পিতামহত-পিতামহীর যে কোনো একজন অবিভক্ত ভারতে জন্মেছেন তাঁদের ভারতীয় নাগরিক হিসেবে মেনে নেওয়া হবে যদি তাঁরা ১৯ জুলাই ১৯৪৮-এর আগে ভারতে এসে থাকেন; এবং যদি তার পরবর্তী সময়ে এসে থাকেন ও ৬ মাস থাকার পর আবেদন করে ভারতীয় নাগরিক হিসেবে নাম নথিভুক্ত করে থাকেন তাঁদেরও ভারতীয় নাগরিক হিসেবে মেনে নেওয়া হবে।
সংবিধানের ধারা বা অনুচ্ছেদ ৭ তাঁদের জন্য প্রযোজ্য যাঁরা ভারত থেকে পাকিস্থানে চলে গিয়েছিলেন এবং পরে ফিরে এসেছেন।  যে সকল ভারতীয় বংশোদ্ভূত সাধারণভাবে বিদেশে থাকতেন তাঁদের জন্য প্রযোজ্য ধারা ৮। যাঁরা বিদেশের নাগরিকত্ব গ্রহন করেছেন তাঁদের জন্য ধারা ৯ প্রযোজ্য। ধারা ১০ বলছে, যারা উপরোক্ত উপায়ে নাগরিক তারা সংসদ কর্তৃক আইন প্রণয়ন অব্দি নাগরিক থাকবেন। সর্বশেষে সংবিধানের ধারা ১১ নাগরিকত্ব অর্জন, বাতিল এবং আনুসঙ্গিক বিষয়ে সংসদের আইন প্রণয়নের সম্পূর্ণ ক্ষমতাকে বহাল রেখেছে।  
এরপর সংসদ তৈরি করে নাগরিকত্ব আইন, ১৯৫৫। এই আইনই ভারতের নাগরিকত্ব বিষয়ক একমাত্র আইন যা সময়ে সময়ে সংশোধিত হয়েছে। ১৯৮৫, ১৯৮৭, ১৯৯২ এবং ২০০৪-এ কার্যকর হওয়া সংশোধনীগুলি (Amendments) গুরুত্বপুর্ণ যা পরে আলোচনা করা হবে। নাগরিকত্ব আইনের ধারা ৩ থেকে ৭ অব্দি বর্ণিত মোট ৫ টি উপায়ে ভারতের নাগরিকত্ব অর্জন করা যায়। এখানে শুধু প্রাসঙ্গিক ধারাগুলো ব্যাখ্যা করা হল।
(১) জন্মসূত্রে নাগরিকত্ব অর্জনের বিষয়টি আছে নাগরিকত্ব আইন ১৯৫৫-এর ৩ নং ধারায়। যেকোনো ব্যক্তি ২৬ জানুয়ারি ১৯৫০ এবং ১ জুলাই ১৯৮৭ তারিখের মধ্যে ভারতে জন্মগ্রহণ করলে তিনি জন্মসূত্রে ভারতীয় নাগরিক হবেন [ধারা ৩(১)(ক)] । ১ জুলাই ১৯৮৭ থেকে ৩ ডিসেম্বর ২০০৪ এর পুর্বে ভারতে জন্ম হলে এবং তাঁর মা-বাবার যেকোনো একজন ভারতীয় হলে তিনি ভারতীয় হবেন [ধারা ৩(১)(খ)]। ৩ ডিসেম্বর ২০০৪ বা তার পর ভারতে জন্ম হলে তিনি তখনই ভারতীয় নাগরিক হবেন যদি তাঁর মা-বাবা উভয়ই ভারতীয় নাগরিক হন অথবা উভয়ের একজন ভারতীয় ও অন্যজন অবৈধ অনুপ্রবেশকারী না হন [ধারা ৩(১)(গ)]। এখানে বলে রাখা ভালো জন্মসূত্রে নাগরিকত্ব অর্জনকে ১৯৮৬ সালে প্রথম মা-বাবার একজন ভারতীয় হয়ার শর্ত যুক্ত করা হয় (Act No. 51 of 1986, w.e.f. 01-07-1987) । ২০০৩ সালে পুনরায় সংশোধন করে ভারতে জন্ম হওয়া ছড়াও মা-বাবার উভয়কে ভারতীয় হতে হবে অথবা উভয়ের একজন ভারতীয় ও অন্যজন অবৈধ অনুপ্রবেশকারী নন শর্ত যুক্ত করে কার্যত জন্মসূত্রে নাগরিকত্ব কে নস্যাৎ করে দেওয়া হয় (Act No. 4 of 2004, w.e.f. 03-12-2004)। কথা হল, অবৈধ অনুপ্রবেশকারি কে ? নাগরিকত্ব আইনে ‘অবৈধ অনুপ্রবেশকারী’ শব্দবন্ধটি ছিলইনা। ২০০৩ এ উপরোক্ত সংশোধনীর মাধ্যমে ধারা ২(১)(খ)-তে এটি সংজ্ঞায়িত করা হয়। তাঁরাই অবৈধ অনুপ্রবেশকারী যাঁরা পাসপোর্ট-ভিসা বা অন্য অনুমতিপত্র ছাড়া অন্য দেশ থেকে ভারতে প্রবেশ করেছেন অথবা বৈধভাবে প্রবেশ করেছেন কিন্তু বৈধতার ম্যাদ উত্তীর্ণ হওয়ার পরও ভারতে থেকে গেছেন। উল্লেখ্য যে ভারতে শরণার্থী বিষয়ক কোন  আইন নেই।
(২) নাগরিকত্ব আইন, ১৯৫৫-র ৪ নং ধারা হল ভারতের বাইরে জন্মানো ব্যক্তির নাগরিকত্ব বিষয়ক সিটিজেনশিপ বাই ডিসেন্ট (বংশক্রমিক নাগরিকত্ব)-এর ধারা। ২৬ জানুয়ারি ১৯৫০ থেকে ১০ ডিসেম্বের ১৯৯২-এর মধ্যে ভারতের বাইরে জন্মানো কেউ ভারতীয় হবেন যদি জন্মের সময় তাঁর পিতা ভারতীয় নাগরিক হন এবং ১০ ডিসেম্বর ১৯৯২ থেকে ভারতের বাইরে জন্মানো কেউ ভারতীয় নাগরিকত্ব অর্জন করবে যদি জন্মের সময় তাঁর মা-বাবার কোনো একজন ভারতীয় নাগরিক হন। বলে রাখা ভালো এই ধারাও ২০০৩ সালে সামান্য সংশোধন করা হয় কিন্তু ভারতের বাইরে জন্ম হলে মা-বাবার একজন ভারতীয় হলেই সন্তান এখনও ভারতীয় হন। অথচ ২ ডিসেম্বের ২০০৪ এর পর ভারতে জন্ম হলে সন্তানের ভারতীয় নাগরিক হতে হলে মা-বাবার উভয়ের ভারতীয় নাগরিক হওয়া আবশ্যক অথবা উভয়ের একজন ভারতীয় ও অন্যজন অবৈধ অনুপ্রবেশকারী না হওয়া আবশ্যক [ধারা ৩(১)(গ)]। এটাকে জন্মস্থানের ভিত্তিতে বৈষম্য, সংবিধানের ১৪ নং অনুচ্ছেদে থাকা সমতার অধিকারের পরিপন্থী বলে ধরা যায়, এবং সেক্ষেত্রে অসাংবিধানিক ও বাতিলযোগ্য। যদিও এ-নিয়ে - নাগরিকত্ব আইনের ধারা ৩(১)(গ) বাতিলের দাবিতে এখন পর্যন্ত সুপ্রিমকোর্টে নির্দিষ্ট কোন আবেদন করা হয়নি। কিন্তু নাগরিকত্ব আইনের ধারা ৩(১)(ক) এবং ৩(১)(খ) বাতিল করে শুধু ৩(১)(গ)-কে বলবৎ করার দাবিতে আবেদন সুপ্রিম কোর্টের সাংবিধানিক বেঞ্চে বিবেচনাধীন [Writ Petition (Civil) No. 311 of 2015] । উক্ত ধারার বলে [ধারা ৩(১)(গ)] জন্মসূত্রে রাষ্ট্রহীন ব্যক্তির সৃষ্টি করা হচ্ছে।
(৩) নাগরিকত্ব অর্জনের তৃতীয় উপায় হল নিবন্ধিকরনের বা নথিভুক্তির (Registration) মাধ্যমে ধারা ৫ অনুযায়ী নাগরিকত্ব লাভ করা। ভারতীয় বংশোদ্ভূত ব্যক্তি যিনি নাগরিক নন এবং অবৈধ অনুপ্রবেশকারী নন তিনি ৭ বছর ভারতে থেকে নিবন্ধিকরনের মাধ্যমে নাগরিকত্বের জন্য কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে আবেদন করতে পারেন। সেই ব্যক্তি অবিভক্ত ভারতের বাইরে থাকলে ৭ বছরের সময়কাল লাগে না, যে কোনো সময় আবেদন করতে পারেন । কোনো ভারতীয়কে বিয়ে করে ভারতে এসে ৭ বছর বৈধভাবে বসবাসের পরও আবেদন করতে পারেন। যিনি ৫ বছর যাবৎ অভারসিজ সিটিজেন অব ইণ্ডিয়া কার্ড হোল্ডার তিনি শেষ ১২ মাস ভারতে থাকলে নিবন্ধিকরনের মাধ্যমে পূর্ণ নাগরিকত্ব লাভের জন্য আবেদন করতে পারেন। ২০০৩-এর সংশোধনীর (Act No. 4 of 2004, w.e.f. 03-12-2004) আগে অবৈধ অনুপ্রবেশকারী না হওয়ার শর্ত ছিলনা এবং ৭ বছরের পরিবর্তে ৫ বছর ছিল। উপরন্তু পাকিস্থান সহ কমনওয়েলথ দেশের নাগরিকদের ক্ষেত্রে ৫ বছর বসবাসের শর্ত ছিল না। তখন যে কেউ, অবৈধ অনুপ্রবেশকারী সহ, সহজেই নিবন্ধিকরনের মাধ্যমে নাগরিকত্বের জন্য কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে আবেদন করতে পারতেন। এমনকি বিদেশি আইনে (Foreigners Act) অনুমতিপত্র ছাড়া ভারতে প্রবেশের জন্য শাস্তি ভোগ করলেও নথিভুক্তির মাধ্যমে নাগরিকত্বের জন্য আবেদন করতে আইনে কোন বাধা ছিলনা।
(৪) ধারা ৬ হল স্বাভাবিকীকরণের (Naturalization) মাধ্যমে নাগরিকত্ব অর্জনের বিধান। অবৈধ অনুপ্রবেশকারী নন এমন প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তি বিগত ১৫ বছরের মধ্যে ১২ বছর যার শেষ ১২ মাস ধারাবাহিকভাবে ভারতে থেকেছেন এবং যাঁর চরিত্র ভালো এবং যিনি সংবিধানের অষ্টম তপশীলের একটি ভাষা জানেন, তিনি স্বাভাবিকিকরনের শংসাপত্র (Certificate of Naturalization) মঞ্জুর করার জন্য কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে আবেদন করতে পারেন। ২০০৩ এর সংশোধনীর (Act No. 4 of 2004, w.e.f. 03-12-2004) আগে অবৈধ অনুপ্রবেশকারী না হওয়ার শর্ত ছিল না এবং ১৫ বছরের পরিবর্তে ১৩ বছর ছিল এবং ১২ বছরের পরিবর্তে ১০ বছর ছিল। কমনওয়েলথভুক্ত দেশের নাগরিকরা স্বাভাবিকীকরণের আওতার বাইরে ছিলেন।  
(৫) অসমের ক্ষেত্রে স্বাভাবিকীকরণের এক অতিরিক্ত ধারা ১৯৮৫ সালে অসম চুক্তির ভিত্তিতে নাগরিকত্ব আইনে ধারা ৬(ক) হিসেবে যোগ করা হয়। অতিরিক্ত এই ৬(ক) ধারার মাধ্যমে ১ জানুয়ারি ১৯৬৬ সালের আগে পুর্ব পাকিস্তান থেকে অসমে যাঁরা এসেছেন এবং স্থায়ী ভাবে থাকছেন তাদের ১ জানুয়ারি ১৯৬৬ তারিখ থেকেই ভারতীয় নাগরিক হিসেবে ধরে নেওয়া হয়। এবং উল্লেখিত তারিখের পর কিন্তু ২৫ মার্চ ১৯৭১-এর আগে পুর্ব পাকিস্তান থেকে অসমে যাঁরা এসেছেন এবং স্থায়ীভাবে থাকছেন তাঁরাও ভারতীয় নাগরিকের সকল অধিকার পাবেন, শুধু ওই সময়ে এসেছেন বলে চিহ্নিত হওয়ার পর নাম নথিভুক্ত করবেন ও ১০ বছরের জন্য ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত থাকবেন। ১০ বছর পর ভোটাধিকার সহ পুর্ণ নাগরিকত্ব পাবেন। অসমে প্রযোজ্য এই বিশেষ ধারা অসমে বসবাসকারী সবার জন্য নয়, শুধুমাত্র যারা তৎকালীন পুর্ব-পাকিন্থান বা বাংলাদেশের ভূখণ্ড থেকে অসমে এসেছেন তাঁদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। সংবিধান বলবৎ হওয়ার সময় যাঁরা নাগরিক তাঁরা নাগরিকত্ব আইনের ৬(ক) ধারার আওতাভুক্ত নন। শুধু অসমের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য এই বিশেষ ধারা ৬(ক)-কে অসাংবিধানিক ঘোষণা করে বাতিল করার জন্য অসমের একটি জাতীয়তাবাদী সংগঠন সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করেছে, সেই আবেদনটি বর্তমানে সাংবিধানিক বেঞ্চের বিবেচনাধীন [Writ Petition No. 562/2012] । নাগরিকত্ব আইনের ৬(ক) ধারার বলে যাঁরা ২৫ মার্চ ১৯৭১-এর আগে এসেছেন তাঁরা নাগরিকত্ব পেয়ে গেছেন ১৯৮৫ সালে এই ধারা বলবৎ হওয়ার সময় (০৭-১২-১৯৮৫) এবং তৎপরবর্তী সময়ে। তাই ৬(ক) ধারা বাতিল হলেও এই ধারার বলে যাঁরা নাগরিক হয়েছেন তাঁদের নাগরিকত্ব চলে যাবে না। নাগরিকত্ব আইনের এই ৬(ক) ধারা বাতিল করা নিয়ে সাংবিধানিক বেঞ্চের রায় এক অ্যাকাডেমিক চর্চার বিষয় হয়ে থাকবে বলেই ধরে নেওয়া যায়। প্রয়োজন সাপেক্ষে ও অবস্থা বিবেচনায় নাগরিকত্ব আইনের ৬(ক) ধারা পশ্চিম পাকিস্তান থেকে আগতদের যুক্ত করে গোটা দেশের জন্য প্রযোজ্য করার দাবি করা যায় এবং সেই দাবিতে সুপ্রিম কোর্টে আবেদনও করা যেতে পারে।
(৬) নাগরিকত্ব আইনের ধারা ৭ অনুযায়ী যদি কোন ভূখণ্ড ভারতের অর্ন্তভুক্ত হয় তবে কেন্দ্রীয় সরকার বিঞ্জপ্তি জারি করে সেই ভূখন্ডের বাসিন্দাদের নাগরিক হিসেবে ঘোষণা করতে পারে। অভারসিজ সিটিজেনসিপ  নামে আরও এক ধরনের আধা নাগরিক তৈরি  করা হয় ২০০৩ সালের সংশোধনীর মাধ্যমে ধারা ৭(ক) থেকে ৭(ঘ) নাগরিকত্ব আইনে যোগ করার মাধ্যমে। [একই সাথে   কমনওয়েলথ সিটিজেনসিপ এবং প্রথম তপশীল বাতিল করা হয়।]
২০০৩-এর নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের (Act No. 4 of 2004, w.e.f. 03-12-2004) মাধ্যমে ১৪(ক) ধারা মূল আইনে যোগ করা হয়। জাতীয় পরিচয়পত্র প্রদান শিরোনামে এই ধারা কেন্দ্রীয় সরকার কতৃক বাধ্যতামূলকভাবে প্রত্যেক ভারতীয় নাগরিককে পঞ্জিভুক্তিকরন ও তাঁকে জাতীয় পরিচয়পত্র প্রদানের এক্তিয়ার দেয়। এনআরসি বা এনআরআইসি এবং জাতীয় পঞ্জিয়ন কতৃপক্ষ বা নাগরিক পঞ্জিকরণের মহাপঞ্জিয়কের (রেজিষ্ট্রার জেনারেল) পদ সৃষ্টি করে এই ধারা। উক্ত ধারার বলে এবং ধারা ১৮-র বিধি তৈরীর ক্ষমতাবলে এনআরসি প্রস্তুতকরণের জন্য কেন্দ্রীয় সরকার ২০০৩ সালেই নাগরিকত্ব (নাগরিক পঞ্জিভুক্তিকরণ এবং  জাতীয় পরিচয়পত্র প্রদান) বিধি ২০০৩ [The Citizenship (Registration of Citizens and Issue of National Identity Cards) Rules, 2003] তৈরি করে। এই নিয়মের ৪ নং বিধি অনুযায়ী বাড়ি-বাড়ি সার্ভে করে পপুলেসন রেজিস্টার তৈরি করবে যাতে প্রত্যেক বসবাসকারীর নাম ও বিবরণ থাকবে। অতঃপর সেই পপুলেশন রেজিস্টার কে যাচাই করে এনআরসি প্রস্তুত করা হবে। নাগরিকত্ব নিয়ে সন্দেহযুক্ত ব্যক্তি বা পরিবারকে বিঞ্জপ্তি দিয়ে জানানো হবে এবং উপ-জেলা বা তহশিল বা মহকুমা নাগরিক পঞ্জিয়ক সেই ব্যক্তি বা পরিবারকে নাগরিকত্ব প্রমাণের সুযোগ দেবেন। তারপর খসড়া প্রকাশিত হবে এবং দাবি ও আপত্তি উপ-জেলা বা তহশিল বা মহকুমা নাগরিক পঞ্জিয়ক গ্রহণ করে তা নিষ্পত্তি করে চূড়ান্ত নাগরিকপঞ্জি প্রকাশ করবেন। এতে বাদ পড়া সবাই জেলা রেজিষ্ট্রারের কাছে আপিল করবেন, জেলা রেজিষ্ট্রার শেষ সিদ্ধান্ত নেবেন। এটাই হল সারা দেশে নাগরিকপঞ্জি তৈরির নিয়ম। যদিও এই নিয়মে নাগরিকত্ব যাচাই বা পরীক্ষণের বিষয়টি উল্লেখ আছে, কিন্তু যাচাই বা পরীক্ষণের কোন প্রক্রিয়া বা ভিত্তির উল্লেখ নেই।
সাধারণভাবে ভোটাররাই নাগরিক - এই নীতি গ্রহণযোগ্য। যাঁদের ভোটার কার্ড বা ভোটার তালিকায় নাম আছে অথবা পিআরসি আছে কিংবা বার্থ সার্টিফিকেট আছে বা জায়গা-জমির দলিল বা নথি আছে অথবা পাসপোর্ট আছে অথবা চাকরি বা পেনশনের প্রমাণ আছে তাঁদের নাগরিক হিসেবে মেনে নিয়ে সারা দেশে এনআরসি করতে বর্তমান নাগরিকত্ব আইনে বা নাগরিকত্ব (নাগরিক পঞ্জিভুক্তিকরন এবং  জাতীয় পরিচয়পত্র প্রদান) বিধি, ২০০৩-এ কোন বাধা বা প্রতিবন্ধকতা নেই। কিন্তু অসমের অনুরূপ কোনো কঠিন প্রক্রিয়া যদি সারা দেশে নাগরিকত্ব (নাগরিক পঞ্জিভুক্তিকরন এবং  জাতীয় পরিচয়পত্র প্রদান) বিধি ২০০৩ সংশোধন করে দেওয়া হয় তবে তা অবশ্যই চিন্তার বিষয়। কেন্দ্রীয় সরকার চাইলেই এই বিধি সংশোধন করতে পারে যেকোনো দিন, তার জন্য সংসদেরও দরকার নেই। এই প্রসঙ্গে বিশেষত ভোটারের নাগরিকত্ব নিয়ে লালবাবু হুসেন মামলায় [Lal Babu Hussein & Others versus Electoral Registration Officer & Others, 1995 AIR 1189, 1995 SCC (3) 100] সুপ্রিম কোর্টের তিন বিচারপতির রায়ের গুরুত্ব আছে, আগ্রহীরা পড়তে পারেন।
অসমের জাতীয়তাবাদী শক্তি সুপ্রিম কোর্টে ২০০৯ সালে এনআরসি-র দাবিতে একটি জনস্বার্থ মামলা করে [Writ Petition (Civil) No. 274 of 2009] যার ভিত্তিতে সুপ্রিমকোর্টের নির্দেশে ও তত্ত্বাবধানে আসামে নাগরিকপঞ্জি হচ্ছে। ইতিমধ্যে অসমের জাতীয়তাবাদী শক্তির চাপে ও অসমের জন্য যেহেতু নাগরিকত্ব আইনে ৬(ক) ধারা আছে এই অজুহাতে ২০০৯ সালে নাগরিকত্ব (নাগরিক পঞ্জিভুক্তিকরন এবং  জাতীয় পরিচয়পত্র প্রদান) বিধি ২০০৩-এ সংশোধন করে বিধি ৪-এর পরিবর্তে বিধি ৪(ক) যোগ করা হয়। এর মাধ্যমে বাড়ি-বাড়ি সার্ভের পরিবর্তে ২৫ মার্চ ১৯৭১-এর পূর্ববর্তী নির্দিষ্ট কিছু নথির সঙ্গে সংযোগী নথি সহ প্রত্যেক ভারতীয় নাগরিকের থেকে আবেদন আহ্বান করার মাধ্যমে এক কঠিন ও জটিল প্রক্রিয়ার সৃষ্টি করা হয়। এই প্রক্রিয়ার শেষ পর্যায় হল বিদেশি আইনের অধীনে গঠিত ট্রাইব্যুনালে আপিল নিষ্পত্তির মাধ্যমে। ধারা ৬(ক) যদিও অতিরিক্ত ধারা, কোন বিকল্প ধারা নয়, কিন্তু বিধি ৪(ক) এক সম্পূর্ণ বিকল্প প্রক্রিয়া যা মূল নাগরিকত্ব আইনের ধারাকেই, যেমন জন্মসূত্রে অর্জিত নাগরিকত্ব কে, মান্য করে না । আইনের অধীনে তৈরি বিধি মূল আইনের পরিপন্থী হতে পারে না, যদি হয় তবে সেটা অসাংবিধানিক ও বাতিলযোগ্য। এছাড়াও নানা বৈষম্যের কারণে অসাংবিধানিক হওয়া সত্ত্বেও উক্ত বিধি ৪(ক) ও উক্ত বিধির অধীন তপশীল অনুযায়ী এনআরসি হচ্ছে অসমে। অত্যন্ত দুর্ভাগ্যের বিষয় এটিকে নির্দিষ্ট ভাবে কেউ আদালতে চ্যালেঞ্জ করেনি। সারা ভারতে নাগরিকত্ব (নাগরিক পঞ্জিভুক্তিকরন এবং  জাতীয় পরিচয়পত্র প্রদান) বিধি ২০০৩-এর অধীনে নাগরিকপঞ্জি প্রস্তুতকরণের বিজ্ঞপ্তি [S.O. 2753(E), dated 31.07.2019] জারি করে বলা হয়েছে পপুলেশন রেজিস্টারস-এর এনুমারেসন ১ এপ্রিল ২০২০ থেকে ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০-এর মধ্যে হবে। তার আগেই ত্রিপুরায় অসমের মতো প্রক্রিয়ায় নাগরিকপঞ্জি প্রস্তুতের দাবি জানিয়ে একাধিক সংগঠন সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছে [Writ Petition (Civil) No. 1178 of 2018]     
নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন ২০০৩ (Act No. 4 of 2004, w.e.f. 03-12-2004) নাগরিকত্ব আইন ১৯৫৫-তে মূলত যে পরিবর্তন এনেছে তা হল (১) অবৈধ অনুপ্রবেশকারী সংজ্ঞায়িত করা, (২) এনআরসি করে অবৈধ অনুপ্রবেশকারীদের চিহ্নিত করণ (নথিহীন বৈধ নাগরিকরাও অবৈধ অনুপ্রবেশকারী হিসেবে চিহ্নিত হওয়ার আশঙ্কা সহ, অসমে যা হয়েছে বা হচ্ছে), (৩) অবৈধ অনুপ্রবেশকারীদের রেজিস্ট্রজশন বা ন্যাচারেলাইজেশনের মাধ্যমে নাগরিকত্ব লাভের জন্য আবেদনের পথ বন্ধ করা এবং (৪) জন্মসূত্রে নাগরিকত্ব অর্জনের শর্ত কঠিন করে অবৈধ অনুপ্রবেশকারীদের সন্তানদের জন্মসুত্রে রাষ্ট্রহীন মানুষে পরিণত করা। রাষ্ট্রহীন নাগরিক তৈরির মাধ্যমে সস্তা শ্রমিক সৃষ্টির সুচিন্তিত পরিকল্পনার অঙ্গ বলেই মনে হয়।  

                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                   

The Indian Politics and the left dilemma.

Posted by স্বাভিমান Labels: , , ,




Arup Baisy


(C)Image
The left forces in Indian political landscape have been marginalized and the left discourse which misses the imagination of the struggling classes is in a state of Brownian motion. The genesis of this confused state of left politics is two-pronged, one is obtained from the left legacy and the other is the bewilderment caused due to spatio-temporal changes during neo-liberalism. Both of these characteristics are intertwined in the staticity of mindset that constructs a formulaic version of Marxism.
While delineating the specificity of Indian society, the caste is categorized either as something sui generis or anathema to class struggle. The class-caste dualism which is in-built within such thought process obscures the changing dynamics of space-time both due to change in capitalist globalization and the caste-class struggle. Anand Teltumbe rightly asserted in his book ‘Republic of caste’, “while caste movements, largely co-opted by the ruling class, do not admit to the need for introspection, the class (left) movements finds itself isolated and threatened with decimation.” (Republic of caste : Anand Teltumbde : 2018 : 91-92)
The motion of capital as a whole is represented in the process of determination of socially necessary labour time in various space-time continuums. The relation between time and space delineates the social relations syntagmatic to both production and labour process. For this reason, the category of time is at the heart of (Marx’s) critique of the political economy. But the different approaches to time coexist within Marx’s reasoning. “The mechanical time of production, the chemical time of circulation and the organic time of reproduction are thus coiled and slotted inside one another, like circles within circles, determining the enigmatic patterns of historical time, which is the time of politics.” (Marx, Capital And The Madness of Economic Reason :  David Harvey : 2019 : 142).
As the capitalist social relation is emerged from within the pre-capitalist or feudal relation of production, the flow of time in feudal relations can be categorized in a particular manner. It is not a complete black-hole, but the flow of time in feudal relation of production is confined by spatial dimension and in that sense, the forms of spatiotemporally is not dynamic as capitalism. It represents a certain form of concrete labour with a use-value which is in constant pressure for transformation to capitalist exchange value and to abstract labour with the annihilation of its space with time. In that sense, the labour process in a pre-capitalist social relation of production is a closed system as the value flows from one form of use-value to another. The commodity production fetishizes the human relation with exchange value and it sets in the dynamics of the flow of value beyond the confinement of space and as such, globalization is inherent in capitalism. Furthermore, the flow of value annihilates the space of pre-capitalist relation to establish its hegemony over the space with time.
When B.R, Ambedkar says, “a caste is an enclosed class”, caste can be interpreted as feudal class. The class is identified not as an isolated category but as a group of people engaged in a social relation both in the production and labour process. Feudal class is determined both as juridical and social category and as such it appears to be static. The Indian caste, in that sense, is a form of class. But Indian left identified the caste system as a super-structural problem and they thought the class mobilisation could by itself adequately address the caste cleavages. On the other hand, the leaders of the caste-based mobilisation considered it as an unchanging category for spatial mobilization to challenge the system and for political power. The caste system has been the source of both identities and hostilities, both horizontal alliances and vertical exploitation and oppression. The caste hierarchy on the basis of social status is the source of oppression and the assertion of caste identity can also become the basis for the struggle against that very oppression. Rajni Kothari defined it as “both traditionaliser and moderniser and as purveyor of collective identity and annihilator of the same hierarchical order from which the collective identity is drawn. The point is that caste does resurface as a result of the democratic process but in its resurfacing it gets transformed”. (Rajni Kothari : Rise of the Dalits and the Renewed Debate on Caste : EPW Vol. 29. No. 26)
             This political dimension of assertion and transformation has not been viewed from the time dimension of labour. The change of democratic character of the state has been considered in a spatial fix of alignment and realignment of caste identities. The political formations on the basis of such caste assertion and horizontal alignment thereon could successfully thwart the aggressive social and ideological Hindutwa assertion in 1993. The politics of religious polarization received a setback due to the political challenge raised from the caste mobilisation and movements. The failure of the left movement to challenge the Hindutwa politics created a delusion in political understanding that the caste assertion and identity assertion within the framework of diversity alone can adequately challenge the Hindutwa politics. Ashis Nandy, in his analysis of the interaction of Hinduism and Hindutva, wrote perceptively in 1990 that, ‘Hinduism and Hindutva now stand face to face, not yet ready to confront each other, but aware that the confrontation will have to come someday’. (RSS, A view to the Inside : Penguin, Viking 2018 : 247). But at this moment after the resounding victory of political Hindutva, it seems, Hinduism gave way to Hindutva and conceded defeat without any confrontation or fight. 
The Indian left from their set back suddenly realised that it was a tactical mistake not to participate in the caste struggle. But they stopped short of visualizing the caste-class question within the movement of the space-time of Indian social spectrum; rather the formulaic version of Marxism relegated their newly found realisation into a class-caste binary and a tactical question. The consequence of such mechanical interpretation of the here and now finally decimated the left in front of the meteoric rise of the fascist Hindutwa movement with a new vigour. But this time, the particularism of caste and identity movement which carried the success story of 1993 with it has also turned out to be ineffective and redundant in front of the jingoist nationalism. What has changed drastically to Indian society that enables the Sangh Parivar to transcend the caste-community barrier to uphold the pan-Indian muscular ultra-nationalist project? One easy answer to the success story of popular acceptance of RSS project is that the RSS has established a pattern of accommodating regional religious and cultural traditions by claiming them as elements of larger Bharatiya culture. But this interpretation is loaded with too much of subjectivity.The fundamental reason of the rise of fascist movement lies with the change of social forces of production with concomitant change of relations of production from above. It is a sort of passive revolution of bourgeois order where the democracy is denied in the bourgeois sense of the term.
In India, the rapid disintegration of the old caste-community based society due to the coercive pressure of imperialist capital from above and the pressure from the human-labour uprooted from their village community life generated the passion within the society to redefine the age-old ideological framework befitting the constitutional form of secularism, the secularism which upholds diversity in a nostalgic sense but accommodates itself in an imperialist center-periphery relation of subjugation propped up with internal hierarchical order. The tension thus generated in the conflict between the old and new values can only be democratically remoulded by radically redefining this relation of subjugation.
          Why both the caste movement and the left movement failed to radically redefine this relation of subjugation? The relation of labour with capital is determined by the way capital extracts surplus value from the labour. Capital can expropriate absolute surplus value by extending the working hours and relative surplus value by increasing the productivity of labour through change of technology. But another labour practice by which capital can extract super-profit is the arm’s length production for labour arbitrage. The whole production process rests on subcontracting out the actual production to the low-wage areas like China’s Shenzhen, Bangladesh’s Textile factories or rural India where micro-finance has spread its net. This super-profit is invested in speculative finance to earn money. It’s a money market where super-rich earn more money by investing money. Money begets money, but does not create any value. After a prolong period of dirigisme in post-independent India, the neo-liberal development model which facilitated penetration of imperialist finance capital into the rural India since the nineteen eighties has changed the caste-contour. Depending on fertility and location of the land, the development of capitalist mode of production appeared in agriculture for differential rent, the external factor of rent also effects the space of uncultivated land. There exists intense difference of opinion within the left circle on Indian agricultural mode of production. However, the capitalist accumulation through dispossession which has become a dominant feature of neo-liberalism has dispossessed the millions from their land, from their old property relation and also from their status as secured organized work-force. The middle class leadership who played a progressive role in mobilizing the caste groups and identities for political rights and thus challenged the Hindutwa politics of centralisation of power in 1993, find it more beneficial to be co-opted in the reactionary politics of ultra-nationalism than to address the growing pressure of the new needs and desire of the proletarianised and pauperized masses within the caste group. The new dialectics of use-value - exchange value and concrete labour – abstract labour have influenced the changing space-time in such a way that the forces of homogenisation prevailed over the forces of particularism in the caste-class dynamics of Indian society. Both the caste leadership and the left leadership once again failed to grasp the emerging struggle of the oppressed and to redefine the concept of nationalism and secularism from a working class perspective.
The economism within the Indian mainstream left hinders them from assessing the situation from the dynamic movement of the space-time. The authors of “The Indian Economy in Transition” rightly commented, “Marxian theory is class/economy focused, but not class/economy specific. What, when, where and how we produce, distribute and consume are not simply economic matters. They are additionally constituted by processes related to power (authority-hierarchy), culture (meaning) and nature. No explanation or interpretation of the economy in this frame can materialize without referring to the effects of non-economic processes. In short, along with being a critique of class determinism, Marxism theory is a critique of economism as well.” (Chakraborty Anjan et el : 13).  Moreover, the concept of the left movement as a mass-movement to influence the policy of the state in favour of the toiling masses has been abandoned by completely reversing the concept to bring parliamentary maneuvering and institutional intervention as the determinant factor. This paved the way for the Hindutva forces to reconstruct the concept of nationalism and secularism in a most reactionary fashion to lead the forces of homogenisation against an imagined enemy. The objective strength of this new nationalism lies with the support of new class which owes its increasing wealth from privatisation and disinvestment, income from the rent and plunder of natural resources and commissions from the opening up of the Indian market to foreign oligarchs. A small section of this class has already emerged as national oligarchs intricately connected to global giants as compradors
The most reactionary reconstruction of national pride can somewhat be combated by reducing the migration from villages to towns and cities by revamping the agriculture through small family farms (Maoist agricultural reconstruction in China) which is, unlike industry, more efficient than big farms, and the food sovereignty, increasing demand for the consumer goods that need to be produced domestically. The electoral upsurge of BJP will accelerate the dismantling of the federal structure of the state by transcending the regional aspirations which needs to be combated with an alternative project for democratic reconstruction. A radical anti-imperialist and democratic programme for mass-movement with workers-peasants alliance at its core can rejuvenate the left politics in India, provided they rise up to the occasion to unite shedding all forms of left sectarianism to combat the emergent question of fascist onslaught.    
       
References:

(1)  Teltumbe Anand (2018): Republic of Caste: Navayana
(2)  David Harvey (2019): Marx, Capital And The Madness of Economic Reason: Profile Books.
(3)  Kothari Rajni (1994):  Rise of the Dalits and the Renewed Debate on Caste: EPW Vol. 29. No. 26 (P.1589-94)
(4)  Chakraborty Anjan, Dhar Anup, Dasgupta Byasdeb (2018): RSS, A view to the Inside: Penguin, Viking
(5)  Smith John (2016): Imperialism in the Twenty-First Century: Dev Publishers and Distributors.
(6)  Patnaik Utsa (2007): The Agrarian Question in Marx and his Successors (Volume I): LeftWord Books.













স্বাভিমান:SWABHIMAN Headline Animator

^ Back to Top-উপরে ফিরে আসুন