JNU episode and the popular discourse on history (Draft)

Posted by স্বাভিমান

JNU episode and the popular discourse on history (Draft) 
Arup Baisya
The meaning of the present
The recent debate revolving around the programme of JNU students leading to the arrest of JNUSU president Kanhaiya Kumar and other student leaders on sedition charges raises many questions than answers. Though the central theme of this debate is the constitutional right to speak, the moot question is how the future of India rooted in the present articulates the past. Thus the discourse on Indian historical past in popular political parlance gets constantly constructed and reconstructed with a vision to the future. This is bound to happen because of the fact that history of the Indian past like the socio-historical past of mankind is not fixed, one-dimensional and completely knowable once for all.
The aggressive state intervention to scuttle the effort of the JUN student to open a space for multiple voices and the highhanded approach of the RSS bandwagon to muzzle the voice alternative to their Hindutwbadi nationalist narrative have generated the much-awaited vibrant debate within the educated class. But the reasoned debate which is very much essential for safeguarding and promoting democracy cannot be sustainable without linking it to our Indian past with a view to formulate a future project. In this framework, the participation of the left in this debate appear to be failing to catch the imagination of the popular psyche and leaving space open for obscurantist forces to grab. Whether the progressive or regressive characteristics of the Indian past will be reconstructed is squarely dependent on the future project envisioned in the present. “The meaning of the present is used as a key to unlock the meaning of the past leading to the present, which in its turn unlocks formerly unidentified dimensions of the present leading to the future not in the form of rigid mechanical determinations but as anticipation of aims linked to a set of inner motivations. Thus we are involved in a dialectic movement which leads from the present to the past and from the past to the future. In this movement the past is not somewhere there, in its remote finality and ‘closure’, but right “here”, “open” and situated between the present and the future.....” (Istvan Meszaros : 2013: 68)
  People are disillusioned with present state of affairs. But there cannot be any change without a radical break from the present, without a structural discontinuity. Without a conscious desire for change, a discontinuity within the framework of structural continuity may be projected as a change to misguide the collective unconscious. On this count RSS has a project of change of the state character based on religious nationalism within the crisis-ridden capitalist structure. Mutatis mutandis, left appears to be playing within the same arena without having any alternative project. When the left takes pride from their commitment to secure the idea of “Akhand Bharat”, selectively oppose the neoliberal reform agenda, do not spell out any alternative vision for the future, people find no substance in the project of secular India which is not qualitatively different than old UPA variety about which people are so disillusioned. Participating in the JNU debate, when the CPIM leader Sitaram Yechuri expressed vainglory in his Rajyasabha speech for upholding the concept of ‘Akhand Bharat’ in his JNU days, it becomes difficult to asses whether it’s their deffensive stance or a principled stand. 
The future that articulates the past
The popular perception of our past is always based on a derivative discourse. One always looks back to his past to envision a future.  It was the British who introduced communal historiography in India; this historiography is a way of looking at the historical phenomenon through the lens of religion. The RSS mastered the art of propagating our past that has been derived with the instrument of religious doctrine for a future project of a authoritarian state. Their concept of authoritarian state is projected as mythical “Ramrajya”, a change based on the Hindu Yuga division of time for popular acceptance. This historiography catches the imagination of collective unconscious when the system itself is in deep crisis in absence of a popular discourse on historiography that envisions a future from working class perspective. “It needs to be emphasised that today, for state-of-the-art historical understanding anywhere in the world where South Asia is being studied, the assumption of Savarkar or Golwlajar would appear so absurd as hardly worth refutation or debate. Irrespective of their other differences, historians of all trends, liberal, nationalist, the erstwhile ‘Cambridge’ school, Marxist of diverse kinds, late-subalterns, feminist, post-or anti-modernists --- would all agree that the essentialised assumptions of Hindus and Muslims being homogeneous, continuous blocs across time and subcontinental space, with Muslims as a community ruling Hindus in the medieval centuries, are totally unacceptabe” (Sumit Sarkar : 2004 : 254). Despite this being the fact, the RSS variant of historical interpretation are catching the imagination of the people in this neo-liberal phase of capitalism. Here we have a coincidence in time in the ideologies of ‘globalisation’ and ‘liberalisation’ with the spectacular advance of Hindutwa which requires much further explication. The spectacular advance of Hindutwa is inevitable if the assertion of oppressed caste/class and for that matter the working classs assertion against neo-liberal capitalism is not articulated with a future project. Based on this assertion of the under-previleged in the present milieu of neo-liberal policy regime, our historical past can only be articulated with a vision for future. There lies the real process for the development of ideological and material force to combat the religious bigotry and authoritarian rule. The mainstream left with a doctrinaire mindset believe that the working class is a tabula rasa and they only internalise the content in verbatim what left ideologue preaches. This mindset makes them defensive and compells them to gesticulate within the dominant world view to suppress the future. “As early as the Bernstein Debate it was clear that the opportunists had to take their stand ‘firmly on the facts’ so as to be able to ignore the general trends or else to reduce them to the status of a subjective, ethical imperative.”             (George Lukacs : 1993 : 182). Facts are to be judged in a social context, the static representation of the past in the Hindutwbadi discourse must be contested with a future project that does not invent the past but articulates it.
Democracy and Justice
One of the reason behind the rise of Aam Admi Party to power in Delhi with an overwheming majority in the midst of a countrwide Hindutwbadi wave was the popular perceived notion that the citizens would have the opportunity to participate in the governance and decision making process. On the other hand, the vote base of a section of the oppressed castes/communities adhered to their mentor Lalu Prasad Yadav despite all misdeeds because of his politics of instilling a sense of self respect and empowerment in the real life of daily mundane affairs. But this perceived notion is not sustainable if it is not transcended and institutionalised. The rapidly changing canvass of discontent in the backdrop of neo-liberal onslaought from power-that-be makes the terrain of political discourse complicated. The discourse on comparative advantage of dirigiste Nehruvian model and notional participatory democracy and justice cannot match the changing mental wavelength of the vertically and horzintally disintegrated working class and structurally remoduled castes-communities in the present phase of neo-liberal capitalism. In the context of the present, the past needs to be reconstructed as a project for the future. “B.R. Ambedkar, who chaired the drafting committee that wrote up the new Indian constitution for adoption by the Constituent Assembly shortly after Indian independence in 1947, wrote fairly extensively on the relevance, if any, of India’s ancient experiences in local democracy for the design of a large democracy for the whole of India.” (Amartya Sen 2010 : 330)
But bourgeoisie has no democratic project of its own to ensure justice and participation of all citizens in policy making, because the sole driving force and the motive of capitalism rest on ensuring profit and accumulation. The concept of bourgeois democracy is an offshoot of a compromise between bourgeoisie and working class to guarantee the capitalist hegemonic structure. As the constitutional democracy was articulated in the situation after Indian independence in 1947, it needs to be transcended in the backdrop of the here and the now.  Because the determination from the past and the anticipation of the future converging on the present, all come to life in the synthetic unity of a dialectical totalisation in which subjectivity and objectivity are inextricably fused.
A totalitarian state is a state that suppressed the interplay of state and society, extending the sphere of its exercise to the totality of collective life. This necessitates a vision of history that abuses and hates dissent. On the contrary demand for democracy is carried or concealed by the idea of new society, the elements of which are being formed in the very heart of contemporary society. The Hindutwbadi forces intends to transmit the historical facts taken out of its context with a view to stereotype the name ‘Muslim’ and for that purpose, the education needs to be confined to the deductive logic of Brahminical texts. This self destructive tendency being born in society can be combated only by the process of transmitting the universality of knowledge. It’s not a conflict between your Hindutwbadi ‘Akhand Bharat’ versus our secular ‘Akhand Bharat’. Amartya Sen in his book ‘The Idea of Justice’ emphasized that the excellent record of Athenian democracy of electoral governance had no immediate impact in the countries to the west of Greece and Rome, rather Indian    vis-à-vis the Asian cities had incorporated this democratic practice. He further opined, while Athens certainly had an excellent record in public discussion, open deliberations also flourished in several other civilisations like India. This civilisational trait of democracy finds its resonance in the post independence constitutional democracy. This constitutional democracy was formulated by the bourgeois class to accommodate all diverse interests that were unleashed during the long drawn out freedom struggle. But now in the backdrop of a deep structural crisis of global capitalism, this bourgeois class is trying to roll back the provisions of constitutional democracy which has become anathema to the neo-liberal policy drive. So, content of democracy needs to be reconstructed with a linkage to the past from a working class perspective. That demands inclusion of absolute right to dissent including the right to secede, decentralization of power to the fullest extent so that people can participate in decision making process. Furthermore, the neo-liberal policy doctrine should be opposed in letter and spirit along with an alternative economic policy framework.
German experience and Indian fascism
After careful discussion of social origin, educational background, income differentials, organizational experience, and status consciousness, J. Kocka concludes that American white-collar workers showed a much lower propensity to see themselves as a distinct class or status group superior and hostile to the working class. So while the white-collar workers turned to the Nazis in large numbers, their American counterparts joined with manual workers in support of the New Deal. (Michael N. Dobokowski & Isidor Walliman : 2003 : 75).  In addition to that, the fragmentation of petty bourgeoisie and workers were influenced by religious and ethnic differences in Germany, interventionist state emphasised the collar line and legally cemented the lines of differentiation, and stratified educational system was put in place to restrict the mobility between manual and non-manual jobs. In Germany, the political culture was in deficit in some essential ingredients of a modern bourgeois or civil society that was closely but inversely related to the strength of Germany’s pre-industrial, and pre-bourgeois traditions. In the case of white-collar workers this created much ready support for the fascists. Both Germany and Italy were societies experiencing accelerated capitalist transformation, through which entire regions were being visibly converted from predominantly rural into predominantly urban environment. The pace of social change outstripped the adaptive capabilities of the existing political institutions. In a situation of widespread political uncertainty, the existing political bloc of industrial, agrarian, and military-bureaucratic class took recourse to a new kind of radical nationalism, which stressed the primacy of national allegiances and priorities normally with heavily imperialist or social-imperialist inflection over everything else. The attraction of radical nationalism may be grasped partly from the ideology itself, which was self-confidence, optimistic, and reaffirming. It contained an aggressive belief in the authenticity of German national mission, in the unifying potential of nationalist panacea, and in the popular resonance of the national idea for the struggle against the left. Radical nationalism was a vision of the future, not of the past. The dramatic conjuncture of war and revolution between 1914 and 1923 produced a crisis, and in this time of crisis, which brought the domestic unity, foreign mission, and territorial integrity of the nation all into question, it could achieve popular appeal.
Though in many ways the present India resembles the German phenomena, there are new criteria too. The capitalism is in deep crisis, the neo-liberal policy drive has also failed to mitigate this crisis situation. After the post--independence period of uneven and combined development process and especially after the neo-liberal policy drive post eighties, the relation of production has undergone a drastic change. The pressure group of organised labour in the public sector has been dismantled to a large extent due to privatisation and contracualisation. The rapid urbanisation and conversion of the rural masses into wage labour has also reconstructed the caste/class dynamics. Now the unorganised urban and rural labour constitutes the largest chunk of workforce. The unemployment rate is growing day by day in pursuit of a neoliberal jobless growth model. In absence of a left project to address the contested terrain of popular-democratic aspirations, this working class is amenable to fall prey to the most telling political intervention of fascist right.
The alternative
The proponents of liberal secular democracy are advocating Keynesian economy, but they are confining themselves only within the demand management instead of dwelling on the most radical aspect of Keynesian economy. Keynes foresaw a stage when fiscal and monetary stimuli alone would not suffice to increase investment sufficiently. “Then a somewhat comprehensive socialization of investment will prove the only means of securing an approximation to full employment; though this need not exclude all manners of compromises and of devices by which public authority will co-operate with private initiative.” (Radhika Desai : 2013 : 60).
When the legitimacy of left politics is at its nadir, a new institutional democracy reconstructing the civilisational democratic practices and an alternative economy challenging the neo-liberal policy in to-to need to be projected from a working class perspective to address the popular-democratic aspirations. The rise of fascism can only be stalled on an oppositional unity based on this premise. The UPA variant of rainbow coalition of all oppositional forces conceptualized within the framework of neoliberal policy cannot stop the fascist juggernaut once for all.

  1. Istvan, Meszaros (2013): The Work of Satre, Search for Freedom and the Challenge of History, Delhi : Aakar Books.
  2. Sarkar, Sumit (2004): Beyond Nationalist Frames, Relocating Postmodernism, Hindutwa, History, New Delhi: Permanent Black.
  3. Lukacs, George (1993): History and Class Consciousness, Delhi : Rupa  Co.
  4. Sen Amartya (2010): The Idea of Justice, New Delhi : Penguin Books.
  5. Dobkowski, Michael N & Wallimann, Isidor, Kolkata : Cornerstone Publications.
  6. Desai, Radhika (2013): Geopolitical Economy, After US Hegemony, Globalisation and Empire, London : Pluto Press. 

ভাষা সমস্যা : ১৯৮৬-২০১৬

Posted by স্বাভিমান Labels: , , ,

ভাষা সমস্যা : ১৯৮৬-২০১৬
অরূপ বৈশ্য
ভাষার আবেগ
ভাষার প্রশ্নটি বহুধা বিস্তৃত ও বহুমাত্রিক। সীমিত পরিসরে এই বিষয়ে সার্বিক আলোকপাত করা অসাধ্য। ১৯৮৬ সালকেই ডেটলাইন ধরে কিছু বিশেষ দিক নিয়ে আলোচনার চেষ্টা করা হয়েছে এই নিবন্ধে। এর পেছেনে এক সুনির্দিষ্ট কারণ রয়েছে। ছিয়াশির ভাষা আন্দোলনের আগে প্রায় দুই বছরের সলতে পাকানোর পর্যায় থেকে সংগঠক হিসেবে এই নিবন্ধের লেখক আন্দোলনের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। ছিয়াশির পর যেহেতু প্রায় ত্রিশ বছর অতিক্রান্ত, তাই নির্মোহ দৃষ্টিতে এই বিষয়ের পর্যবেক্ষণে লেখকের এক বাড়তি সুবিধে রয়েছে। ত্রিশ বছর পর পেছন ফিরে তাকালে মনে হয় ছিয়াশির ভাষা আন্দোলনের সাথে যুক্ত হওয়ার সময় ভাষাকে কেন্দ্র করে আমার কোনো আবেগ ছিল না এবং আজও নেই, বরঞ্চ বাংলা ভাষা নিয়ে আবেগসর্বস্ব অনেককেই এই আন্দোলন থেকে দূরত্ব বজায় রাখতে দেখেছি। অথচ কোনো মহৎ আবেগ ছাড়া কোনো আন্দোলনের সংগঠক হিসেবে কাজ করা তো সম্ভব নয়। কোনো ব্যক্তিগত প্রাপ্তির আশায় সংকীর্ণ স্বার্থান্বেষীদের কথা ভিন্ন। সেক্ষেত্রে প্রশ্ন ওঠা স্বাভাবিক যে এই আবেগের উৎস কোথায়? অনেকের মতে কোনো জনসমুদায়ের মধ্যে যোগাযোগের মাধ্যম হিসেবে ভাষা গড়ে উঠে ও বিকশিত হয়। কিন্তু ভাষাবিদ নওম চমস্কি কার্যপ্রণালীগত কারণ ছাড়াও ‘সর্বজনিন গ্রামার’-এর (Universal Grammar) ধারণার অবতারণা করতে গিয়ে এক অভ্যন্তরিণ কাঠামোগত উপাদানের কথা বলেছেন।দেহের অঙ্গ হিসেবে শুধুমাত্র ব্লাড-পাম্পিংয়ের কাজ করার জন্যই হার্টের বর্তমান রূপ গড়ে উঠেনি, এই অঙ্গ বিকশিত হওয়ার ক্ষেত্রে জেনেটিক কাঠামোগত কারণও রয়েছে। ভাষারও দেহের অঙ্গের মত বিবিধতা রয়েছে, কার্যপ্রণালীগত কারণ রয়েছে, আবার এক সাধারণ অভ্যন্তরিণ কাঠামোগত উপাদানও রয়েছে। পৃথিবীর সব ভাষার মধ্যে এক সাধারণ কাঠামোগত যোগসূত্রের উপস্থিতি ভাষাকে কেন্দ্র করে আবেগের উৎসকে খুঁজতে বাধ্য করে আর্থ-সামাজিক ও রাজনৈতিক পরিসরে।

ভাষার অধিকারহীনতা
কোনো জনগোষ্ঠীকে আর্থিক, সামাজিক ও রাজনৈতিকভাবে অবদমিত করার প্রধান হাতিয়ার হচ্ছে সেই জনগোষ্ঠীর মাতৃভাষার অধিকার কেড়ে নেওয়া। মাতৃভাষার অধিকার যদি কেড়ে নেওয়া যায় তাহলে তার পরিণতি কী হতে পারে? প্রথমত, সেই জনগোষ্ঠীর শ্রমজীবী মানুষ ও তাদের সন্তান-সন্ততিরা প্রাথমিক শিক্ষার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হবে, কারণ সেই লোকগুলো ভাষাজ্ঞান আয়ত্ত্ব করে তার পরিবার ও পারিপার্শ্বিকতা থেকে এবং সেই জ্ঞানের আধারকে ভিত্তি করে যদি এদেরকে প্রাথমিক হিসেব-নিকেষ ও পঠন-পাঠনের যোগ্য করে তোলা যায় তাহলে তারা তাদের শ্রমের অতি-শোষণ মেনে না নেওয়ার মানসিক প্রস্তুতি গড়ে তুলতে পারে। দ্বিতীয়ত, ভাষার দীর্ঘম্যাদী অধিকারহীনতা এক হীনমন্যতাবোধ জন্ম দেয় যা এই জনগোষ্ঠীর লোকদের শাসক তথা প্রভু জাতির কাছে মাথা হেঁট করে দাঁড়ানোকেই স্বাভাবিক ও ভবিতব্য বলে বিবেচিত হয়। তৃতীয়ত, ভাষিক পরিচিতিগত সচেতনতার অভাবে অভ্যন্তরিণ পরিচিতিগত বিভাজন, যেমন ধর্ম-বর্ণভিত্তিক বিভাজন, প্রকট হয়ে দেখা দেয়। এই তিনটি প্রতিবন্ধকতাকে অতিক্রম করার সুযোগ ঘটেছিল একশট্টিতে এবং ছিয়াশিতে। একশট্টির আন্দোলন, যার কোনো পূর্ণাঙ্গ বিশ্লেষণ এখনও চোখে পড়েনি, এখানে বিচার্য বিষয় নয়। ছিয়াশিতে আমরা পারিনি, পারেনি মধ্যশ্রেণি তাদের সংকীর্ণ দর্শন বা দেখার ক্ষমতাকে উন্নীত করতে অপারগতার জন্য। কেন পারেনি সে এক ভিন্ন আলোচনার বিষয়। কিন্তু সাম্প্রদায়িক বিভাজন যে এখনও বরাক উপত্যকার সামূহিক জীবনযাত্রার প্রাধাণ চালিকাশক্তি সে ব্যাপারে অনেকেই এই নিবন্ধকারের সাথে একমত বলেই মনে হয়। তবে প্রশ্ন থেকে যায় যে ছিয়াশির ভাষা আন্দোলন কেন অধিকার চেতনার কোনো উল্লম্ফন ঘটাতে ব্যার্থ হলো? কেন অবক্ষয়ের যে সামাজিক মডেল তাকে ভাঙা গেল না? এই অবক্ষয়ের মডেলের স্বরূপকে এভাবে চিহ্নিত করা যায়, “যারা বোঝে বা বোঝার চেষ্টা করার ক্ষমতা রাখে তাদের মধ্যে মুষ্ঠিমেয় ব্যতিক্রম ছাড়া সাধারণভাবে সবাই সামাজিকভাবে নিষ্ক্রিয়, যারা বোঝে না বা সংকীর্ণ বদমায়েশি স্বার্থ চরিতার্থ করতে চায় তারাই সামাজিকভাবে সক্রিয়”।

আশির দশক ও নিও – লিবারেলিজম
আশির দশক থেকে গোটা বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে ভারত সরকারও নিও-লিবারেল অর্থনীতির দিকে ঝুঁকতে শুরু করে। এই অর্থনীতির সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ অনেকগুলো পদক্ষেপ এই দশকেই নেওয়া হয় যার উপর অফিসিয়্যাল সিলমোহর পড়ে ১৯৯১ সালে। এই অর্থনীতির জয়গানে মোহিত হয়ে বিকাশ ও উন্নয়নের সোনালি স্বপ্নে মধ্যশ্রেণি হয়ে পড়ে বিভোর। এই স্বপ্নের ক্যানভাসে শ্রমিক-মেহনতি-পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীরা থাকে অধরা। মধ্যশ্রেণি ধরে নেয় যে তাদের এগিয়ে যাওয়ার সর্তই মুখ্য, বাকীরা এগিয়ে আসবে তাদের পেছন পেছন। সুতরাং মেহনতি মানুষের শোষণ - বঞ্চনা, বঞ্চিত জনগোষ্ঠীর অধিকার ইত্যাদি বিষয় নিয়ে চিন্তা-চর্চা অনর্থক ও অবাঞ্চিত, প্রগতি বিরোধী। ধরে নেওয়া হয় যে, এই উন্নয়নের স্বাপ্নকে যদি বাস্তবায়িত করতে হয় তাহলে বাজারের নিয়ম অনুযায়ী ইংরেজী ভাষাকেই গুরুত্ত্ব দিতে হবে, তাকিয়ে থাকতে হবে নতুন শিল্প-নগরী ব্যাঙ্গালুরুর দিকে। প্রাইভেটাইজেশনের যে দৌড় সে দৌড়ের ট্র্যাক তৈরি হয়ে যায় আশির দশকেই। আত্মসম্মান – আত্মমর্যাদা প্রতিষ্ঠার যে মানসিক শক্তি মধ্যশ্রেণিকে আন্দোলমুখী করে তুলতে পারে তার স্থান নিতে শুরু করে প্রতিযোগিতায় টিঁকে থাকার জন্য ন্যায় – অন্যায় বোধহীন এক জটিল সাইকোলজি। সত্তরের দশকে রেল ধর্মঘটের মত সংগঠিত শ্রমিকদের বিশাল বিশাল ধর্মঘট মধ্যশ্রেণিকে মানসিক শক্তি যোগানের যে বিষয়ীগত উপাদান তৈরি করেছিল তা ক্রমশ বিলীন হয়ে পড়ছিল বেসরকারিকরণের ঠেলায় সংগঠিত শ্রমিকের ভিতকেই নাড়িয়ে দেওয়ার ফলে। আশির দশক সেরকমই এক দশক যার ভাঁটার টানে দাঁড়িয়ে ছিয়াশির আন্দোলন প্রগতিশীল শক্তির শেষ মরিয়া আন্দোলমুখী প্রয়াস। আন্দোলনের এই বিপরীত সর্বগ্রাসী স্রোত যখন সমাজের সব অঙ্গ – প্রত্যঙ্গকে ডুবিয়ে দিতে সক্ষম হয়, তখন ছিয়াশির আন্দোলন ভাষা সার্কুলার তুলে নেওয়ার ন্যূনতম সাফল্যের মধ্যেই পরিসমাপ্তি ঘটে। এর ধারাবাহিকতা নতুন কোনো চেতনার জন্ম দিতে ব্যার্থ হয়, বরঞ্চ প্রতিক্রিয়াশীল শক্তি এই শূন্য স্থান পূরণ করে সাম্প্রদায়িক জিগির তুলে। এটাই কি বরাক উপত্যাকার ভবিতব্য?
ছিয়াশি থেকে গত ত্রিশ বছরে বরাক নদী ও এর শাখা – প্রশাখা দিয়ে অনেক জল গড়িয়ে গেছে। কিন্তু স্রোতের তলায় নিস্তরঙ্গ জলধারাও প্রবাহিত হয়। যারা স্রোতে গা ভাসাতে অস্বীকার করে তারা প্রতিকূল পরিস্থিতিতে এই জলধারায় প্রতিস্রোতের অভ্যন্তরিণ জীবনী শক্তিকে  জাগ্রত করে বিশাল ঢেউ তোলার আশায় নিরন্তর প্রয়াশ চালিয়ে যায়। এই অভ্যন্তরিণ জীবনী শক্তির প্রধান উপাদান হলো গ্রাম – শহরের এক বিশাল নব্য শ্রমিক শ্রেণির উপস্থিতি। কিন্তু এই শ্রমিক শ্রেণি অসংগঠিত, অধিকারবোধহীন ও যৌথ জনশক্তির উপর আস্থাহীন। এরা কি পারবে এক নতুন প্রগতিশীল আন্দোলনের জন্য প্রয়োজনীয় সংগঠিত বিষয়ীগত শক্তি হতে? এ প্রশ্নের সুনির্দিষ্ট উত্তর দেওয়া সম্ভব নয়, তবে কিছু নতুন উপাদানকে সামনে রেখে আশাবাদী হওয়া যায় নিশ্চিতভাবে। এই উপাদানগুলি কী?

জাগরণের নতুন উপাদান
শ্রমিকের এই ব্যাপকতা ইতিমধ্যে গ্রামীণ সামাজিক নিয়ন্ত্রণের পুরোনো কাঠামোকে ভেঙে দেওয়ার ক্ষেত্র তৈরি করেছে। ধর্মের বাঁধন হয়েছে শিথিল, উগ্র ধর্মীয় উন্মাদদের আক্রমণাত্মক হয়ে পরার প্রবণতার মধ্যেই এই সত্য নিহিত। কিন্তু শিথিল হয়ে পড়া ধর্মীয় বাঁধন থেকে বেড়িয়ে আসার জন্য তৈরি এই বিশাল মেহনতি মানুষের সামনে নতুন প্রগতিশীল মূল্যবোধ আঁকড়ে ধরার জন্য প্রয়োজনীয় উল্লেখযোগ্য প্রচেষ্টা এখনও অনুপস্থিত। অন্যদিকে যে আশার বাণী নিয়ে নিও – লিবারেল অর্থনীতি মানুষকে মোহগ্রস্ত করে তুলছিল তা ইতিমধ্যে অসার প্রমাণিত হয়েছে। বেকার সমস্যা ক্রমবর্ধমান, পুঁজি বিনিয়োগের জন্য পণ্য সামগ্রীর প্রয়োজনীয় চাহিদা ক্রমশ নিম্নগামী, ফিনান্সিয়্যাল পুঁজির তৈরি কাল্পনিক এসেট ভ্যালুর বুদবুদগুলি ফেটে গিয়ে আর্থিক সংকটকে করছে গভীরতর। বিশ্ব – অর্থনীতির কেন্দ্র আমেরিকাতে দেখা দিয়েছে গভীর সংকট, কোনো দেশ আর আমেরিকার সাথে আর্থিক লেনদেনে যুক্ত হয়ে নিজ দেশের আর্থিক অচলায়তন দূর করার কথা স্বপ্নেও ভাবতে পারছে না। চীনের মত বৃহৎ আর্থিক শক্তির দিকে মুখ ফিরিয়ে এই সংকট থেকে পরিত্রাণের উপায় খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না, কারণ চীন তাদের মুদ্রার অবমূল্যায়ন করে আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের কেন্দ্র হয়ে উঠার যে চেষ্টা করেছিল তা ধরাশায়ী হয়ে গেছে তাদের সম্পদের মূল্যের অবমূল্যায়নের ফলে। ইউরোপ অনেক আগেই ডুবে গেছে তীব্র সংকটে। যুদ্ধ – সন্ত্রাসবাদের মদত দিয়ে একের পর এক দেশ ধ্বংস করে সাম্রাজ্যবাদীরা যে পরিস্থিতি তৈরি করেছে তার ফল ভোগ করতে হচ্ছে গোটা ইউরোপকে। লাখো লাখো রিফিউজি নিজ নিজ দেশের সীমানা অতিক্রম করে জান হাতে নিয়ে বাঁচার তাগিদে পাড়ি দিচ্ছে ইউরোপের দিকে। একদিকে মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে রিফিউজি বিরোধী অমানবিক ফ্যাসিস্ট শক্তি, অন্যদিকে ইউরোপের শ্রমিক শ্রেণি পুনরায় মাথা তুলে দাঁড়ানোর জন্য ইতিমধ্যে লড়াইয়ের ময়দানে অবতীর্ণ। আমাদের দেশেও অতি সম্প্রতি ব্যাঙ্গালোরের অসংগঠিত শ্রমিক শ্রেণি দেখিয়ে দিয়েছে যে তারাও তাদের নিজ শক্তিতেই সরকারি পলিসিকে প্রভাবিত করতে পারে, সরকারকে বাধ্য করতে পারে তাদের শ্রম – বিরোধী সিদ্ধান্ত পরিবর্তনে।

বরাক উপত্যকার মধ্যশ্রেণি ও নতুন আন্দোলন

সবার সাথে তাল মিলিয়ে বরাক উপত্যকার মধ্যশ্রেণির মধ্যে নিও – লিবারেল অর্থনীতির প্রতি মোহভঙ্গ ঘটেছে ইতিমধ্যে। কিন্তু নতুন বিকল্প মূল্যবোধের অনুপস্থিতিতে সাম্প্রদায়িক চেতনার রেশ থেকে বেরিয়ে আসতে পারছে না। রিফিউজি  – অনুপ্রবেশকারীর দ্বিমাত্রিক বয়ানে যে সাম্প্রদায়িক রাজনীতির ঘনঘটা তাকে মোকাবিলা করার কোনো ভাষা  – চেতনা এখনো খুবই দুর্বল। ভাষা – চেতনা যে নিজ জনগোষ্ঠীর মেহনতি-বঞ্চিত মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার সাথে সম্পৃক্ত এই বোধ এখনও মধ্যশ্রেণির মধ্যে অনুপস্থিত। দুর্নীতি ও সরকারি প্রকল্পের অকার্যকারিতার মূল রহস্য এখানেই নিহিত। সেজন্যই দ্রাবিড়িয়ান আন্দোলনের ঐতিহ্যে গর্বিত দক্ষিণ ভারতের মধ্যশ্রেণি যে সরকারি প্রকল্পগুলির সুষ্ঠু রূপায়ণে উপকৃত আমাদের মত অঞ্চলে এর ছিটেফোঁটা সদিচ্ছাও দেখা যায় না। এখনও বরাকের বাঙালি সরকারি অফিসিয়্যালদের অনেকেই এব্যাপারে সচেতন নন যে বাংলা বরাক উপত্যকার সরকারি ভাষা, তারা সচেতন নন যে মাতৃভাষার অধিকার সবার সাংবিধানিক অধিকার। এক বড়সড় আন্দোলন এই পরিস্থিতির আমূল পরিবর্তন ঘটাতে পারে, তার বিষয়ীগত পরিস্থিতি বিদ্যমান। শুধু দরকার নিষ্ঠা, মানুষের কাছ থেকে শিখে নেওয়ার আগ্রহ, সহজে নেতা হওয়ার প্রবণতা পরিহার করা ও আত্মত্যাগকে হাতিয়ার করে আত্মশক্তির বদলে গণশক্তিকে প্রাধাণ্য দিয়ে বৃহত্তর ঐক্য গড়ে তোলা। নতুন সমাজ নির্মাণের জন্য প্রয়োজন নতুন মানুষ, অন্যথায় রিফিউজি – অনুপ্রবেশকারীর জিগির তুলে ফ্যাসিস্ট শক্তি বিজয় ডঙ্কা বাজাবে, বহু নিরীহ লোককে যেতে হবে ডিটেনশন ক্যাম্পে, বহু লোককে মরতে হবে বিনা বিচারে। পথ বেছে নেওয়া আমার আপনার দায়। 

Left politics and some critical questions

Posted by স্বাভিমান

24 Apr 2016, Frontier Weekly.
Left politics and some critical questions:
An observer’s note
Arup Baisya

The dichotomies in both subjective and objective situation of present day India have revealed certain characteristics. The mainstream lefts are declining for valid reasons. The post-Russian socialist project not only failed everywhere including the east European countries, but also knowingly or unknowingly inflicted sores in the left body-politic. In this backdrop, the Indian mainstream left like their counterpart in many other countries felt it pragmatic to make a class compromise with neo-liberal order of state. But on one count, within the practising left, these mainstream lefts were successful in combining people’s movement with electoral battle. But it is natural that the class or group of classes who controls the state power will not relinquish the power willingly and will resist the forces that have an agenda alternative to neo-liberalism and restricted democracy. The unwillingness of the left govt. to go ahead with anti-neoliberal measures by ensuring the participation of people in promoting democracy and to build resistance movement whenever necessary to hold ground against neo-liberalism and for democracy leads to their inevitable decline.  
On the other hand, the rank and files of radical left except the Maoists are in a dilemma because their hearts are with the concept of completing the Jaocobin task of violent seizure of power in single stroke, but their brains are with the building of People’s democratic movement to create more democratic space to ensure people’s power. So they take a defensive stance by articulating their participation in electoral battle as a means only to use the occasion for propagation of ideology. Their participation in election, which is the most important democratic battle for the people and the continuation of people’s movement, is of pedagogic in nature. The fulfilling of pedagogic task in the election is very much important. But as they cannot accept the electoral battle as one of the principal strategic battles to ensure people’s participation in the affairs of Govt functioning with a view to seize the state power through a long drawn out working class struggle, their participation in election even in pedagogic content remains as mere window-dressing exercise. The battle ground is always discovered by the working class in their workplace and living space while confronting with the policies of their adversarial classes, but electoral battle is the only battle which is pre-decided outside their periphery. The working class vis-a-vis people are not taught to fight this predetermined battle with much preparation and vigour. This also has a pedagogic content of developing consciousness among the working class about how the ruling class uses state-machinery, money, media and other wherewithal which are beyond their reach. This is not done with a fear that the revolutionary image that is built on the foundation of concept of violent seizure of power is diluted. This is one of the reasons why the people’s movement remains bereft of achieving any electoral success.
The non-party left intellectual activists who are committed in building people’s movement to establish people’s rights and to fight exploitation for humanitarian cause also perceive the electoral battle as the battle of so called political class, not as their own battle, and their duty is confined only for trying to induce morality into this battle. They fail to visualise that like every other socio-political battle or activity they are spearheading all throughout the time to influence the policy making, electoral battle is most important because it can raise the representatives of the oppressed classes to the status of policy makers.
However, the process of dilution of revolutionary character or pro-people position and the process of ideological degeneration get initiated when the participation in the Govt is equated with grabbing of state power and the process of ensuring democratic participation of people from below and above is stalled, and the task for greater battle to grab the state power is concealed from working class.
The Maoist, on the contrary, has remained stuck to the strategy of seizure of power through localized insurrection and vote boycott. This strategy so far has not thrown any political challenge to ruling class politics; rather it has been successfully projected as law and order problem by the elites, and to a certain extent it has really been degenerated into indiscriminate killings and lum-pen activity in many pockets. However, the Maoist presence is predominantly in those areas where forcible land acquisition as a part of ‘primitive accumulation’ of neo-liberal capital to establish SEZ has been let loose, and the people mostly ‘Adivasis’ are engaged in resistance movement to save their land and livelihood.
But the objective reality of the rural and urban landscape of India has already undergone a drastic change. After long post-independent dirigiste Nehruvian development strategy under uneven and combined global development model and especially after neo-liberal development spree post eighties, there have been a long haul of simultaneous proletarianisation and pauperization. The rapid urbanization, capitalization of agriculture and also due to agricultural distress, the land issue per se has taken a backseat. The slogan of ‘land to the tiller’ has gone on the back burner. On the other hand, the organized working class has almost been dismantled through privatization and contractualisation. The vibrant organized working class was not only the ideological source of motivation but also the subjective strength in the fight against Indira fascism of 1975. The strike movement of this organized working class contributed immensely in enthusing the masses in the fight against emergency. But at this juncture the working people in both urban and rural sectors are mostly unorganized, casualised and contractualised in private sectors and service sectors. Whether we can consider the period of emergency, when the system showed the sign of crisis of bourgeoisie-landlord power, as the dateline for a qualitative change in production relation may be debatable, but it can be reasonably argued that in the changed circumstances of class/caste dynamics, the strategy of left movement needs to be formulated anew. The working class dynamics has shifted the coordinates of caste/community cleavages towards left and as a result the organic intellectuals are gradually getting more and more audience and followers. That’s why fascist forces have targeted those intellectual centers. When this new dimension of mass movement will get impetus is solely dependent on the correct formulation of working class political strategy and its implementation. In this strategy, the success in electoral battle is an important milestone.   
Now let me cite few points on the question of fascism which is a stark reality in Indian political scenario. To combat the fascist takeover of Indian state, the broad based unity of all forces must be the call of the day. There are similarities between the German situation prior to the rise of Hitler in power and the present day Indian situation almost in all respects, and in that sense Dimitrov formulation is very much relevant in the Indian context too. But there are also certain dissimilarities. During Hitler’s rise, left movement was also in the rise and left project had its own social acceptance. But today both the left movement and the prestige of the left are in its nadir. In Hitler’s time, Industrial capital was backed by finance capital, but today financialisation of capital is at its peak. Financial capital has created its own independent market for profit and accumulation, and thus weakened the role of working class in influencing the market forces. So anti-fascist forces have to take the new factors into cognizance for formulating the strategy against fascism.  
articles, news, links relating to India in general & West Bengal in particular

স্বাভিমান:SWABHIMAN Headline Animator

^ Back to Top-উপরে ফিরে আসুন