Corruption – A critical Viewpoint.

Posted by স্বাভিমান

By – Arup Baisya,  written for Pragyan, A quarterly academic Journal, Tinsukia College.
Aristotle ranked historical writing known to him as philosophically inferior to poetry and tragedy, in view of the anecdotal particularism of such storytelling accounts of events & circumstances in tune with the original Greek term of history - “istor” – which means “eye witness”. But the ancient art form cannot be compared with a modern branch of social science like history. With the advent of the concept of dialectical materialism, study of history becomes a tool to understand the development of human civilization and to form our vision to open a discourse on any social phenomenon. As corruption is a social phenomenon, it needs to be viewed from historical perspective.

In Webster’s dictionary, we get the general meanings of the word “Corrupt” from which corruption is derived as (1) Changed from a sound condition to an unsound condition (2) deteriorated from a normal or standard. Though giving or taking bribes falls on the second category, it is to be judged within the ambit of general definition, especially when corruption at high echelons unveils the unholy alliance of politicians, bureaucrats and corporate giants. Anti-corruption movement in India gained momentum in recent times after Radia Tapes revelation which is the recorded conversation of the corporate honchos and other stake holders with Neera Radia, the owner of the corporate lobbyist company VCC. There is an element of doubt that the ministers and the high officials have been bribed with huge sum of money by the spectrum –beneficiaries. There is no denying the fact that the bribing the politicians, parties and the high officials by the business-houses for getting Govt. largesse is rampant in our system. The huge fund required for contesting election is raised by the political parties from big business houses and thus become obliged to serve their class interest. Conversely, to install their party of choice at the helm of affairs, the dominant class supports them with all resources to ensure the victory of that particular party whom they have funded. But this kind of funding is in addition to the ideological hegemony of the dominant class over the society established through the existing relation of production and controlled through the existing structural and functional systems, and as such this dominant class is called the ruling class. So if we consider the definition of the word “corrupt” as “giving & taking bribe” in the larger continuum of change from sound to unsound condition or deterioration from normal or standard, this type of pre-election funding is accepted as normal or standard by the society where we don’t find any hue & cry to a great extent or a public debate in mass-scale. One such example can be cited if we turn the pages of history of “Mundhra Episode” where the first finance minister T T Krishnamachari and reserve bank governor Rama Rau had to resign at the instance of PM Jawaharlal (the Socialist!) for TT’s pursuance to impose regulatory measure and for moulding monetary policy to channelise hot money of private usurer capital of Mundhra and his dominant block of business towards state controlled industry (source : EPW). In Indian society, this bourgeois practice is not as full blown, open and legally recognized as in other society like American. This practice in India is a tacit understanding of            ‘give & take’ and under-cover lobbying. But in Asiatic society, especially in India, the ideological hegemony of the dominant class over the society also moulded the social mindset to accept the spending of public money by extending Govt. largesse to the religious institution in exchange of their blessings towards particular politico-bureaucratic formation. This servility towards religious authority is the continuation of our civilizational historical past and is intertwined with perverted path of capitalist development under primarily direct and later indirect colonial set-up. The caste formation peculiar to Indian civilization is a class at a primitive level of production, a religious method of forming social consciousness in such a manner that the primary producer is deprived of this surplus with the minimum coercion. The religious doctrines that are so venerated by Indian Castes, minimized the need for internal violence, thereby leading all social manifestations of the class-struggle in India into religeo-philosophical channels of expression. In this sense, opined Kosambi, caste is the negation of history, so that it is not in the least surprising to find that Indian literary tradition has virtually no historical sense or content. ( Kosambi : stages of Indian history). The servility towards religious doctrine and religious amassing of wealth as expropriator has been retained by the popular classes from their traditional past, as this popular classes was the Sudra who could not be manumitted. Manusmriti 8.414 tells us  explicitly : ‘Even if released by his master, the Sudra is not freed from servitude :  if (servitude) is his lot by nature, who can remove that from him?(Kosambi : On a Marxist approach to Indian chronology).

So, at all these levels mentioned above, the society does not recognize it as corruption, as these are considered as normal or standard.

The first reverberation in the Indian Society was the Gujrat’s Navanirman movement that subsequently turned into a popular anti-emergency (Indira-fascism) upheaval under the leadership of Joyprakash Narayan and then after the eighties we witnessed V P Singh’s anti-Bofor-scandal stir that resulted in the change of guard at the centre with new dispensation and subsequently culminated into Mandal – Kamandal conflict. Now again at this juncture, we are witnessing the anti-corruption movement under the leadership of ‘team Anna’. ‘Team Anna’ is very meticulous when they state “the latest draft report of the Comptroller and Auditor General of India(CAG) on hydrocarbon production showing contracts and the transfer of officials to Reliance is only the latest of the mega scam to surface in the country. The breadth and depth of corruption in India is clear from the country’s plunging ranking in Transparency International’s global corruption survey. Corruption has come to affect every citizen in the country. Bribes have to be paid for ration cards, passport, building permits, and for doing even normal business. Street vendors and rickshaw pullers are forced to pay bribes for exercising their fundamental rights. Villages are forced to pay bribes for getting their wages under NREGA or for any other entitlements in other schemes. High-level corruption is plundering the public exchequer, distorting Govt. policies, and creating criminal mafia, which has come to dominate all institutions of power. Low-level corruption is making life impossible for common citizens”.  (Source : The Hindu, 20 June, 2011)

The exploits of Mundhras in Nehru-era looks like kindergarten staffs compared with the achievement of their present successor. The high-level corruption is increasing leaps and bounds with the increasing accumulation of capital in few hands globally as well as nationally. When other India is starving and dying with mal-nutrition, when real India in the villages & shanty-towns is witnessing resurgence of killer diseases in epidemic-like situation, shining India cannot enjoy their pelf & perks disregarding the conspiracy at the diktat of IMF-World Bank to show very low number of BPL – people with a rat-eaten & sluggish PDS to feed them with a view to transfer the bigger slice of public exchequer for serving corporate world. Along with other means, huge black money is also generated continuously through the holes in the PDS system. If this money is piled up at a place, the mundane & rustic Indians will definitely feel dwarfed in front of this currency’s peak. In an empirical study on the transfer of Black money from India during the period from 1948-2008 published in EPW, April 9, 2011, Dev Kar estimated that a total of $ 213.2 billion was shifted out of India or about 17.7% of India’s GDP at end-2008.

All these show what was within our system in a rudimentary stage during the transfer of power from British colonial master has now grown to a big banyan tree spreading its branches horizontally and vertically to all spheres of lives. What appeared to the people as the “bags of wool” have now turned out to be packs of wolves in sheep’s clothing. The high-level corrupt-bandwagon in the present day has the skills in financial manipulation and sophisticated tool of self-aggrandizement in their arsenal to continue their corrupt practices in meteoric speed.

But the moot question is when the society recognizes this as a corruption i.e. deviation from standard or normal so that we can hear a social cacophony. Or conversely, what does it indicate when society recognizes this and makes it an issue. At the time of Jayprakash Narayan, there was a systemic crisis that ended up with the promulgation of emergency that was defeated by the people’s upheaval under JP’s leadership. During V P Singh’s time, it indicated another phase of systemic crisis that ended up with a transition from overwhelming upper-caste hegemony in the system to a loose conglomeration of various caste groups. The post-reform period is also the very beginning of the erosion of the edifice of our state-structure based on constitutional democracy. The neo-liberal order of the present era of globalization is not compatible with our constitutional system of surveillance, regulation and control. It’s a crisis that has been emanating from a situation where the neo-liberal forces are innovating various sophisticated tools to dismantle the existing structure without any stable alternative structure in sight. Corporatocracy without state-control is giving no solution, rather creating new conflict zones with food riot, land riot, ecology riot in tandem. Lokpal Bill is for introducing  another institutional structure to contain the erosion of the constitutional democracy. But the cracks within our systemic-structure are so wide and deep that mere tightening of the nuts & bolts cannot rescue it from its collapse.

The oligopolies and their hangers-on are up in arms to dismantle the system of constitutional democracy and the people with their increasingly loosening grip over the system have upped the ante and started coming out to the streets. Only a move from a ‘democracy deficit’ to ‘democracy surplus’ through a process of severing the linkages of the system with the forces of globalization striving with a  neo-liberal drive can only lead us out of this crisis. But for this, we have to pause, ponder and position ourselves to organize new initiatives and thoughts. New characters other than ‘Sandeep & Nikhilesh’ of Tagore’s ‘Ghore-Baire’ from among the social-groups who remained the object of Tagore’s narration, along with rejuvenated & invigorated ‘Vimalas’ can be the torch-bearer of new dawn out of the crisis of darkness.   

দুর্নীতির বিরুদ্ধে দুর্নিতিবাজদের গোপন অনুপ্রবেশঃ রামদেবের ভাষণে বিপদ

Posted by সুশান্ত কর Labels: , , ,

মূল ইংরেজিঃ বিদ্যাভূষণ রাওত
রামলীলা ময়দানে যেখানে বাবা রামদেব এবং তাঁর পঞ্চাশ হাজার অনুগামীরা বিদেশ থেকে ‘কালোটাকা’ দেশে ফিরিয়ে আনবার দাবিতে অনশন করছিলেন দিল্লি পুলিশ সেখানে মাঝরাত্তিরে গিয়ে জোর করে তাদের উচ্ছেদ করে দিয়েছে। বাবা একটু বেশিই উত্তেজিত হয়ে পড়েছিলেন। তিনি বলছিলেন, সেদিন অব্দি তিনি শীততাপ নিয়ন্ত্রিত স্থানে বসবেন না, যে দিন অব্দি সারা ভারতের সব্বাই একটি করে শীততাপ নিয়ন্ত্রণের ব্যাবস্থা পেয়ে না যায়। তাঁর একটি    লেণ্ডরোভার গাড়ি ছিল, পরে স্কোরপিও নিয়ে নেন। আশা করছি তিনি এটা বলতে যাবেন না যে তিনি লেণ্ডরোভার বা স্কোরপিও গাড়িতে তদ্দিন বসবেন না যদ্দিন না প্রতিজন ভারতীয় সেরকম করে একটি গাড়ি পেয়ে  যান। বাবার অমন বক্তিমো প্রচুর আছে। এক সময় লালু এরকম ভাষণ দিতেন। কিন্তু তিনি যেমন ভালো বক্তা  তেমনি  তিনি বাবার থেকে বহু গভীরে গিয়েই ভারতীয়দের বুঝতে পারেন।  বাবা এটা ভালো করেই জানেন যে তাঁর গ্রাহকরা হচ্ছেন মূলত স্থানীয় মাড়োয়াড়ি আর উচ্চবর্ণের লোকেরা যারা উজাড় করে তাঁর এই বিশাল প্রচারের পেছনে টাকা ঢেলেছেন। তাঁরা সবাই চান দেশের টাকা দেশে ফিরে আসুক। বাবাকে এই কথাটা কারো বুঝিয়ে দেয়া উচিত যে এই দেশের ভেতরেই সমান্তরাল অর্থনীতির অস্তিত্ব রয়েছে আর যারা বাবাকে দান দক্ষিণা করছেন তাদের সবার হাত ততটা পরিচ্ছন্ন নাও হতে পারে যতটা তিনি ভাবছেন। তবুও যা কিছু বাবার কাছে আসছে তাই যেভাবে ধুয়ে পরিচ্ছন্ন হয়ে যাচ্ছে দেখে এটা মনে হতেই পারে যে বাবা যা করেন তাই পূত পবিত্র।
             শুরু থেকেই আমার বিশ্বাস ছিল যে সঙ্ঘপরিবার আর তাদের হিন্দুত্ববাদি গুণ্ডাদের নেতৃত্বাধীন বর্ণবাদি শক্তি বাবার পেছনে রয়েছে। মানবেন্দ্রনাথ রায় বহু আগেই লিখে গেছেন যে ভারতে ফ্যাসিবাদটা তত হিংস্র নাও হতে পারে, এ হবে সাংস্কৃতিক ফ্যাসিবাদ। আমরা আজকাল চারদিকে কোরপোরেট ফ্যাসিবাদ দেখছি, আমাদের চাষিরা তাদের জমি দখলের বিরোধীতা করবার দায়ে বেধড়ে মার খাচ্ছেন, ছাত্ররা মার খাচ্ছে যখন তারা তাদের অধিকার এবং সংরক্ষণের জন্যে লড়াই করছে। কিন্তু এগুলো বাবার জন্যে কোনো সমস্যাই নয়। তিনি চাষাদের জন্যে ন্যায় চান , কিন্তু ভুলেও কখনো অন্যায় জমি দখলের বিরুদ্ধে অনশনে বসবেন না।  বাবা রামদেব আমাদের কিছু সমস্যাকে ইচ্ছে করলেই জাতীয় চরিত্র দিতে পারতেন। আমাদের বন্ধু উদিত রাজ যখন চাকরিতে সংরক্ষণের জন্যে আমৃত্যু অনশন করছিলেন বেশির ভাগ লোকই আমরা একে বিশুদ্ধ রাজনীতি বলে উড়িয়ে দিয়েছি এবং তাঁর সমর্থণে এগিয়ে আসিনি। বাবা রামদেব দলিত এবং অবিসিদের সমস্যাগুলো নিয়ে নীরব কেন? কারণ তিনি জানেন এগুলো নিয়ে কথা বলতে শুরু করলেই তিনি আর অশোক সিঙ্ঘল, স্বাধ্বী ঋতম্ভরাদের তাঁর মঞ্চে ডেকে আনতে পারবেন না। এদের মুখ দেখেই লোকের মনে প্রশ্ন জাগে দুর্নীতি নিয়ে এতো হৈ হল্লা করবার পেছনে রহস্যটা কী?

              দুর্নীতি এই দেশে শুধু টাকার বেশ ধরে নেই, এ আমাদের মূল্যবোধের ভেতরে ঢুকে বসে আছে। আমাদের আধ্যাত্মিকতা আমাদের ব্রাহ্মণ্য ব্যাবস্থা এক অত্যুগ্র অত্যুচ্চ কাঠামোকে দাঁড় করিয়েছে যার নাম ব্রাহ্মণ্যবাদি সামাজিক অনুশাসন। কাকে বলে দুর্নীতি বাবাজী? আপনি জন্মসূত্রে শূদ্র হলেন বলেই তাদের অধিকার নিয়ে কথা বলবার অনুমতিপত্র আপনার মিলে যায় না। বস্তুত, আপনি এই অধিকারবোধে সমুন্নত মস্তক  নতুন শূদ্রদের আবারো ব্রাহ্মণ্যবাদের কাছে মাথা নত করতে উদ্বুব্দ করতে চাইছেন , যা ঐ হিন্দুত্ববাদি  শক্তিগুলোরো ইচ্ছে। তারা ঐ শূদ্র শক্তি দিয়ে দলিতদের একেবারে গোড়া মেরে ধ্বংস করে দিতে চায়। তারা চায় শূদ্ররা ব্রাহ্মণ্যবাদি ব্যবস্থার দ্বার রক্ষক হয়ে থাক—যে কথাগুলো বহু আগেই সঠিকভাবেই বলে গেছেন আম্বেদকার।  বাবার চারপাশের মানুষগুলো কারা, কী চায় তারা? তারা সবাই দলিত, আদিবাসি, পশ্চাদপদ তথা সংখ্যালঘুদের  জন্যে সংরক্ষণের কথা শুনলেই অজ্ঞান হয়ে পড়ে যায়। হ্যা, বাবা আমদের সংবিধান পালটে দিতে চান। তিনি চান আমাদের প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রপতি ধাঁচের সরকারের মতো সরাসরি নির্বাচিত হোন। আমরা সবাই জানি ইন্দিরা গান্ধি, এবং পরে আদবানিও এটা চাইতেন। তারা সবাই এই  সন্মিলিত সরকারের ধারাবাহিকতা দেখে আতঙ্কিত।  স্থায়ী সরকারের অনস্তিত্ব দেখে তারা ভয়ার্ত।  কাশিরাম সবসময় বলতেন সন্মিলিত সরকার দলিত স্বার্থের সুরক্ষার জন্যে সবচে মানানসই। একমাত্র তখনি তারা দলিত কন্ঠ শুনতে পাবে।  রাষ্ট্রপতি ধাঁচের সরকারে সেই সব রাজনীতিকেরাই নির্বাচনে বিজয়ী হবে যাদের  আছে অর্থ, গণমাধ্যম আর  মাফিয়া।   ( media, mafia and money)। আমরা সবাই জানি এগুলো আছে কাদের সঙ্গে। বাবাতো আর এস এসের হয়েই কাজ করছেন যাদের একটাই উদ্দেশ্য, আমাদের ধর্মনিরপেক্ষ সংবিধান ছিঁড়ে ফেলা।
            গেল দিন বাবা এক সাংবাদিকের প্রশ্নের উত্তরে বলেছেন তিনি মহিলাদের উপর বলাৎকারের তীব্র বিরোধীতা করেন। তিনি বলেছেন, তিনি হরিজন, বাল্মিকিদের ঘরে খাবার খান।কী মহানই না তিনি! প্রশ্নটি যে তাঁকে বেশ অস্বস্তিতে ফেলে দিয়েছিল এই সত্যই তিনি আড়াল করতে পারছিলেন না।  তিনি ভুলে গেছেন হরিজন এক নিষিদ্ধ শব্দ আর তাদের কোনো দরকার নেই তাদের ঘরে আহার করবার বাবার কোনো ‘মহত্বে’র। তাঁর জানা উচিত যে অন্যায় ভাবে পাওয়া টাকা কালো হতে পারে না, কারণ এগুলো তাদেরই টাকা যারা তাকে তুলে ধরছে। তাঁর জানা উচিত যে আমাদের মঠ মন্দিরগুলো দুর্নীতির সবচে বড় আড্ডা। এই ভারতে গড়পড়তা প্রতিজন মানুষের ছয় হেক্টর করে জমি আছে, দলিতদের কিচ্ছু নেই। কিন্তু আপনি গরু কিম্বা পাথুরে দেবতার জন্যে বিশাল আয়তনের জমি পেয়েই যাবেন। সিলিং আইন বলে একটা আইন আছে, যার দৌলতে আপনি আঠারো একরের বেশি জমি রাখতে পারবেন না। একেক রাজ্যে এই আইন একেক রকম, কিন্তু এটা ঠিক যে আপনি ১৮ থেকে ২০ একরের বেশি জমি রাখতে পারবেন না। কিন্তু বিচিত্র সব ভগবানের জন্যে আপনি হাজার হাজার একর জমি পেয়েই যাবেন।এভাবে এই দেশে সমস্ত দুর্নীতি অঙ্কুরিত হয় ব্রাহ্মণ্য ব্যবস্থার ভেতর থেকে। এই মন্দিরগুলোর কাছে যেসব বেআইনী ধন রয়েছে সেগুলো প্রকাশ্য হওয়া উচিত। মঠ মন্দিরগুলোর সমস্ত আয়ের উপর কর বসানো উচিত। একটা আইন করে পাঞ্জাবের শিরোমণি গুরদোয়ারা প্রবন্ধক কমিটি থেকে শুরু করে  দেশের সমস্ত মঠ মন্দিরকে সরকারি নিয়ন্ত্রণের অধীনে নিয়ে আসা উচিত।
                বাবা রামদেব, আমরা শুধু জানতে চাই আপনার এতো এতো জমি কিসের জন্যে দরকার? মানুষের কাছে পৌঁছোবার জন্যে আপনার হেলিকপ্টারের কী দরকার? আপনারতো দরকার রামায়ণ মহাভারতের যুগের বিমান। আপনার আধ্যাত্মিকতার প্রচারে জন্যে আধুনিক যন্ত্রের দরকারটা কী? আপনি আপনার বক্তৃতার রেকর্ড বাজিয়েই চলেন। আমরা সবাই দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়তে চাই। এ এক খুবই গুরুত্বপূর্ণ সমস্যা।  আপনার শব্দশৈলী আর অতিসরলীকরণ দিয়ে এর গুরুত্বটাকে এতোটা নিচে নামিয়ে আনবেন না।  বেআইনি টাকাশুধু মরিশাস বা সুইজারল্যাণ্ডে নেই, ভারতের ভেতরেও আছে, সেগুলো নিয়ে আপনার দাতাদের মধ্যে কোনো গোপন আগ্রহ থাকতে পারে।  দেশের ভেতরে থাকা  বেআইনি টাকা নিয়ে আপনি কিছু বলছেন না কেন? দলিতবহুজনদের এমন টাকা নেই। এমন কি দলিতদের তথাকথিত দুর্নীতিবাজ নেতাদেরো অতো টাকা নেই যে সুইস বেঙ্কে গিয়ে জমা করে। বেআইনি টাকা কে কালো টাকা বলতে আমি নারাজ। কালোর শক্তিকে আমি শ্রদ্ধা করি, কালো রঙকে আমি শ্রদ্ধা করি। বেআইনি জিনিসকে কালো দিয়ে চিহ্নিত করবার আমি প্রবল বিরোধী। কালো হচ্ছে বিদ্রোহের প্রতীক, এ হচ্ছে দলিত বহুজনের রঙ। আমাদের বর্ণকে আক্রমণ করবেন না। যারা আপনাকে এতো এতো টাকা যোগাচ্ছে তাদের জিজ্ঞেস করুন কোত্থেকে আসছে এতো এতো টাকা? এ আমি সজোরেই বলতে পারি যে দলিত বহুজনের আপনার যোগের দরকার নেই , কারণ তারা কঠোর পরিশ্রমী মানুষ। আপনার যতটা দানের দরকার ততটা দেবার সামর্থ্যও তাদের নেই বাবা।
                কতো মহাত্মা এলেন আর গেলেন, গান্ধির অনশন নিয়ে বলতে গিয়ে বলেছিলেন আম্বেদকার। তিনি এই বলে গান্ধির নিন্দে করেছিলেন যে , আর প্রায় সমস্ত বিষয় নিয়ে গান্ধি অনশন করলেন, কিন্তু দলিত উত্থানের জন্যে একটিবারও না। দকবারই দলিত সম্পর্কিত বিষয় নিয়ে অনশনে বসলেন যদিও সেটিও ছিল দলিতদের জন্যে পৃথক নির্বাচনী বিধির বিরোধীতা করবার জন্যে। অনেক বছর পর যখন দলিতেরা আর অবিসিরা প্রত্যাহ্বান জানাবার মতো জায়গায় এসছে এবং ক্ষমতার কেন্দ্রে তাদের নিজেদের ভূমিকা দাবি করছে, ব্রাহ্মণ্য ধর্মকে প্রত্যাখ্যান করছে বাবা রামদেবের বিপদ হলো তিনি তাদের সে জায়গা থেকে সরিয়ে দিতে চাইছেন এবং সামাজিক ন্যায়ের আন্দোলনকে চাইছেন ক্ষয় করতে। রামলীলা ময়দানে পুলিশের হিংস্রতার আমরা নিন্দে করি। কিন্তু আমরা কি জানি না আমাদের পুলিশ করেটা কী আর কেমন করে? জানি না কি আমাদের সরকার কেমন ব্যবহার করে? একই পুলিশ যখন মুসলিম ছেলেকে ধরে পেটায়, তাদের নিয়ে গল্প বাঁধে, মিডিয়াতে ছড়িয়ে দেয় আমরা সেগুলোকেই বেদবাক্য ধরে নিয়ে গোগ্রাসে গিলতে থাকি। ওরা যখন ছত্রিশগড় আর ঝাড়খণ্ডের আদিবাসিদের উপর ঝাপিয়ে পড়ে  আমরা চুপটি করে থাকি, বলি তাদের তাই প্রাপ্য। আমরা এতো রেগে গেলাম কেন? এর জন্যে কি যে বশির ভাগ ভক্তেরাই আসলে উচ্চবর্ণের মধ্যবিত্ত শ্রেণির লোক? 
    সত্যি যদি বাবা রাজনীতি করতে চান, তিনি সরাসরিই তাতে যোগ দিন আর ঘোষণা করুন। তাঁর কর্মসূচী স্পষ্ট করুন। প্রত্যকেরই নিজের পক্ষে প্রচারে নামবার অধিকার রয়েছে।  তাই বলে আপনার ‘যোগ আর বন্দেমাতরম’কে  রাজনীতির জন্যে ব্যবহার করবে না। এ সম্পূর্ণই পর্দার আড়াল থেকে এক সাম্প্রদায়িক কর্মসূচী। আবার ব্রাহ্মণ্য কর্মসূচিকে সবার উপরে তুলে আনতে চায়। আমাদের সবার সতর্ক থাকতে হবে।

দুর্নীতি ও লোকপাল বিল -“ইণ্ডিয়া অ্যাগেনস্ট করাপশন - অ্যা লং মার্চ – বরাক ভ্যালি"-এর আন্দোলন কর্মসূচী

Posted by স্বাভিমান Labels:

গণতন্ত্র রক্ষায় পুলিশি হামলার বিরুদ্ধে সোচ্চার হোন
সর্বস্তরে দুর্নীতির বিরুদ্ধে, লোকপাল বিলের দাবিতে এবং রেশনিং (গণবন্টন) ব্যবস্থায় ব্যাপক দুর্নীতির বিরুদ্ধে জোট বাঁধুন।

জনলোকপাল বিল নিয়ে সরকার টালবাহানা শুরু করেছে। দুর্নীতি বিরোধী আন্দোলনকে এবং লোকপাল বিলে ধারাগুলিকে দুর্বল করে দিতে বিভিন্ন ধরণের চক্রান্ত শুরু হয়েছে। এই চক্রান্তেরই পরিণতি দিল্লির রামলীলা ময়দানে বর্বরোচিত পুলিশি আক্রমণ। গণতন্ত্রকে ভূলুণ্ঠিত করে রাতের অন্ধকারে শান্তিপূর্ণভাবে অবস্থানরত এবং ঘুমন্ত মহিলা-শিশুর উপর পুলিশের লাঠিচার্জের ঘটনাকে আমরা তীব্র ভাষায় ধিক্কার জানাচ্ছি। আমরা মনে করি, আন্না হাজারে ও অন্যান্য গণতান্ত্রিক ব্যক্তিদের নিয়ে দেশব্যাপী আন্দোলন গড়ে তোলার জন্য ইণ্ডিয়া অ্যাগেনস্ট করাপশন শিরোনামে যে প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে তারমধ্যে বিভাজন আনার জন্য গোপন সমঝোতার মাধ্যমে প্রচেষ্টা চালানো হচ্ছে। কার্যকরী লোকপাল বিল প্রণয়ণ, স্যুইস ব্যাঙ্ক থেকে কালো ধন ফিরিয়ে আনা, তৃণমূল থেকে সর্বোচ্চ স্তরব্যাপী দুর্নীতি নিরসন ইত্যাদি দাবিতেই আমাদের এই আন্দোলন। কিন্তু শান্তিপূর্ণ আন্দোলনে একের পর এক পুলিশি জুলুমের ঘটনার মাধ্যমে সরকারের অসহনশীল মনোভাবের বহিঃপ্রকাশ গণতন্ত্রের প্রতি হুমকি স্বরূপ।

    এই পরিপ্রেক্ষিতে, রামলীলা ময়দানে পুলিশি জুলুমের বিরুদ্ধে আমরা আগামী ৮ জুন ইণ্ডিয়া অ্যাগেনস্ট করাপশন এর আহ্বানে সর্বভারতীয় কার্যসূচীর সাথে সামঞ্জস্য রেখে শিলচরেও সকাল ৮টা থেকে ৮ ঘন্টার প্রতীকী অনশন কর্মসূচী পালন করব।

     বন্ধুগণ, সর্বস্তরে দুর্নীতির ফলে আমাদের এঅঞ্চলের মানুষও বিভিন্ন ধরণের অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। দুর্নীতির যাঁতাকলে পিষ্ট হয়ে জনসাধারণের জীবন দুর্বিষহ হয়ে উঠছে। এপিএল-বিপিএল কারসাজির মাধ্যমে দরিদ্রের সংখ্যা কমিয়ে দেখানো, ২০০২ সালের বিপিএল তালিকাতে নাম থাকা পরিবারদের কার্ড না দেওয়া এবং যাদের নামে কার্ড রয়েছে তাদেরকে কার্ড হস্তান্তর না করে একদিকে কোটি কোটি টাকার দুর্নীতি করা এবং আপামর জনসাধারণের মূলত পরোক্ষ কর দিয়ে গঠিত সরকারী তহবিল দরিদ্র জনগণের উন্নয়নের জন্য ব্যয় না করে ধনিক-শ্রেণির স্বার্থে ব্যয় করা হচ্ছে।

তাই,  ইণ্ডিয়া অ্যাগেনস্ট করাপশন - অ্যা লং মার্চ বরাক ভ্যালি একটি সদর্থক লোকপাল বিল প্রণয়ণ ও রেশন তথা গণবন্টনে (PDS) দুর্নীতির বিরুদ্ধে নিম্নলিখিত আন্দোলন কর্মসূচী নিয়েছে
(১)         ১ জুলাই কাছাড় জিলা ফুড ও সিভিল সাপ্লাই অফিসের আশেপাশে অবস্থান ধর্মঘট পালন করা।
(২)         ২ জুলাই থেকে ২১ জুলাই পর্যন্ত গণসচেতনতা ঝাঁটার মাধ্যমে গ্রামাঞ্চলে সচেতনতা অভিযান চালানো।
  (৩)         চলতি জুন মাসে বিভিন্ন ব্লক এলাকায় জনসভা করা।

ইণ্ডিয়া অ্যাগেনস্ট করাপশন - অ্যা লং মার্চ বরাক ভ্যালি সবাইকে এই আন্দোলনে সামিল হওয়ার আহ্বান জানাচ্ছে।

ইণ্ডিয়া অ্যাগেনস্ট করাপশন - অ্যা লং মার্চ বরাক ভ্যালি”- এর পক্ষে নির্মল কুমার দাস ও জুলফিকার আহমেদ বড়লস্কর কর্তৃক ..........................। 

স্বাভিমান:SWABHIMAN Headline Animator

^ Back to Top-উপরে ফিরে আসুন