Memorandum on tea-worker’s issues.

Posted by স্বাভিমান

Ms Nirmala Sitharaman
Honourable Minister of State (Independent Charge)
Government of India, New Delhi.
Camp – The venue of Meeting convened at her behest on tea issue in Guwahati.

Sub – Memorandum on tea-worker’s issues.
Most humbly and respectfully, we would like to place before you the following points on the plight of the tea workers of Assam through this Memorandum being submitted by us in the meeting convened at your behest with a view to resolve the longstanding plight of the workers.
This is for favour of your kind perusal and needful action.

(1)   On the issue of Minimum wage.
The minimum wage schedule officially announced by the state government reveals that the plantation workers are also included in the schedule which is effective up to 31st august, 2014 and accordingly the minimum wage circular being issued by the labour commissioner              bi-annually considering the VDA component is also applicable for tea-workers of Assam. According to this schedule, the minimum wage for unskilled tea-workers is Rs.169 up to 31st August, 2014 and Rs. 184 w.e.f 1st September, 2014. The current wage settled through bipartite negotiation is of the tune of Rs. 94 for Brahmhaputra valley garden and Rs. 75 for Barak valley gardens for wage in cash. Many gardens pay less than this negotiated wage too. As per the information provided by the Assam Branch of Indian Tea Association (ABITA) on the daily labour Cost in Assam from 1st April 2011 to 30the June 2012, the wage component in cash is Rs.74.50, wage component in kind is Rs. 22.40, Statutory expenditure under Plantation Labour Act is Rs.23.79 and under common statutory expenditure like Provident fund, Bonus, gratuity etc is Rs. 25.67 and total comes to Rs.146.36 per day per worker. ABITA calculation says that 16.25% of the total labour cost of Rs.146.36 as on June 2012 is on account of meeting the statutory provisions under the PLA (Plantation Labour Act) viz. housing facilities, medical facilities, welfare facilities, national (festival) holidays, sickness benefits, earned leave, educational facilities and maternity benefits. Wage calculation in this way comes only under living wage which will be far more than the minimum wage announced by the state government. While for employers these are cost enhancing, for workers these are inadequate to raise their standard of living. Actual wage (the cash plus money equivalent of kind) the workers have been paid is of the amount of Rs 96.90 as per the above ABITA’s calculation during the period of 1st April 2011 to 30th June 2012.

It is worth-mentioning here that our union was invited by the state labour department in the first round of tripartite negotiation during the last wage settlement. But unfortunately, pending this tripartite negotiation process, the wage was settled through bipartite negotiation between the owners and INTUC affiliated union despite our dissension. But after the declaration of Minimum wage schedule by the state government, any bi-partite wage settlement below the stipulated minimum wage needs to be treated as null and void, and the minimum wage as announced in the minimum wage schedule by the state government must be brought into force immediately.

(2)   On wage in kinds
Currently, tea gardens procure wheat and rice at subsidized rates – Rs 8.36 per Kg and Rs. 6.10 per Kg respectively from government quota. It is provided at 54 paise per Kg to workers. A garden worker, as per official norms, gets 3.2 Kg, half of which is rice and other half wheat, per week. An adult dependent and minor dependent get 2.44Kg and 1.22Kg of foodgrain respectively per week. But the women workers who constitute the majority of the manual workers, get the ration of two minor dependents only. The state government has been providing 7,600 tonnes of rice and 5,000 tonnes of wheat each month to the tea garden at subsidized rates. Under the food security act, a beneficiary (each member of the family) will get 5Kg of rice per month at Rs 3 per Kg through the food and civil supply department, which will supply the ration to fair-price shops across the state.

                                                                                                                     Contd. to page 2
      To avail the benefit, a beneficiary’s annual earnings will have to be below Rs 1 lakh and priority will be given to daily-wage earners. So the tea worker’s family will be beneficial if the whole amount of their entitled minimum wage is paid in cash, and as per the above criteria, they all are brought under the net of FSA.

(3)   On PF deposit.
Many tea-estates have defaulted in depositing both the contributions from employee and employer in PF account. Moreover, most of the tea-garden authorities do not consider the money equivalent of the wage component in kind under the PF schemes. These gross violations of workers’ rights need to be adequately addressed and the provisions of the Tea Act needs to be applied, wherever necessary, to eradicate the anomalies.

(4)   On implementation of the various provisions of PLA
The statutory rights under the Plantation Labour Act are rampantly violated due to lack of proper inspection. The inspectors have kept their inspections limited to specific complaints instead of conducting regular inspections. A presentation by A K Malakar, the previous Labour Commissioner of Assam notes that inspection in the tea estates is done at the consent of the management, when the department is not in a position to provide means of transportation, the management takes an advantageous position in providing vehicles and therefore inspections cannot be impartial. Therefore management escapes prosecution even for grave violations. Penal provision of Rs 500 is ludicrous and is not a deterrent. So PLA, Assam Scheme must be implemented effectively by giving necessary tooth for punitive action for violations of its provisions.

(5)   On health-care facility
The condition of the workers even in the Tea-Estates which have been receiving NRHM fund under PPP model is deplorable. For delineating the pathetic condition of Assam tea-workers, suffice it to mention the findings of the Medical research centres of Assam. The case study conducted by the Medical Research Centre, N.E region(ICMR), Dibrugarh, Assam on nutritional status of adolescents in tea-gardens workers reveals that the almost half of the adolescent of tea workers are stunted and most of them are thin. Another study conducted by Medical research and community Medicine department, Assam Medical College, reveals a high prevalence of malnutrition among the school age children in the tea garden workers of Assam and the nature of malnutrition indicates that causes of malnutrition are not only recent but also long term deprivation.
So, the health-care facility and other social security measures need to be improved for the tea-                                                            workers in Assam.

(6)   On ATC gardens

Finally, Most of the studies reveal that the decline in productivity in Assam is due to the lack of re-investment by the planters for replacement of old tea-plants or bushes most of which are more than 50 years old. Despite increase of labour productivity, the planters are bent on curtailing the rights of the labourers and deprive them of minimum wages.

                                                 Thanking you, Yours Truly,

                                                         (REPRESENTATIVES PRESENT IN THE MEETING)
                                                                     ASSAM MOJURI SHRAMIK UNION                  
                                                                    Affiliated to New Trade Union Initiative                          

Address for communication – NTUI and AMSU’s  Jorhat Office address.AKHARA GHAR,
                                             Near Jatiya Bhavan, Jatiya Abhidhan Path, Malow Ali,
                                             Jorhat- 785001,ASSAM
                                             Cell No. 09435351255, e-mail :

বাংলাদেশে হিন্দুদের উপর অত্যাচার ও মন্দির ভাঙার প্রশ্নে

Posted by স্বাভিমান Labels: , ,


                     দৈনিক যুগশঙ্খের ২ অক্টোবর, ২০১৪ সংখ্যায় অতীন দাশের “দুর্গাপুজোয় মনকে যা নিয়তই পীড়িত করে” শির্ষক লেখাটি পড়লাম। এই লেখার মূল বক্তব্যকে সম্পূর্ণ খণ্ডন করে এক বিস্তৃত আলোচনা করা যায়। কিন্তু পাঠক যাতে তাঁর নিজস্ব মতামত নিজেই গড়ে তুলতে সচেষ্ট হোন শুধুমাত্র সেই উদ্দেশ্য থেকে উক্ত নিবন্ধে উল্লিখিত দুটি বিষয়ের উপর আলোকপাত করতেই এই পত্রের অবতারণা। লেখক ইসলাম ও ইসলামের বিস্তৃতি নিয়ে তলোয়ার অর্থাৎ বলপ্রয়োগের তত্ত্বের আশ্রয় নিয়েছেন। সাধারণ পাঠকের কাছে এধরনের সোজাসাপটা জবাব প্রায়শই গ্রহণযোগ্য হিসেবে বিবেচিত হয়। কিন্তু বিদ্বৎ সমাজের কাছে এধরনের অতি-সরলীকরণ বহু আগেই প্রত্যাখ্যাত হয়েছে। উপরন্তু তথ্য নিজে থেকে কোন কথাই বলে না – তথ্য থেকে সত্যকে সমাজবিদ্যার বিশ্লেষণী অন্তর্দৃষ্টি দিয়ে বের করে নিতে হয়। সামাজিক তথ্যের বিশ্লেষণের মাধ্যমে আবিষ্কৃত সত্য জানার জন্য আমাদেরকে স্বীকৃত ও দক্ষ সমাজবিদ তথা ইতিহাসবিদদের কাছে আশ্রয় নিতে হয়। প্রাচ্যের প্রাচীন ইতিহাসের যে তথ্যের ভাণ্ডার সন্নিবিষ্ট হয়েছে তা সাধারণত করেছেন পরিব্রাজকরা যাদের প্রয়োজন পড়ত প্রাতিষ্ঠানিক মদত। যখন ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের আধিপত্য বিস্তৃতি লাভ করছে এবং ফরাসী আধিপত্য পতনোন্মুখ সেই সময়কালে প্রাচ্যবিদ্যা চর্চা শুরু হয় ও তা প্রভাব বিস্তার করে। তখনকার লেখায় সন্নিবিষ্ট তথ্য থেকে প্রাচ্যবিদ ও পরিব্রাজকরা যে সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছেন তা সাধারণত এই দুই সাম্রাজ্যের স্বার্থের অনুকূল। তাঁরা সবসময়ই প্রাচ্যকে দেখেছেন পাশ্চাত্যের চোখ দিয়ে। এডোয়ার্ড স্যাইডের ‘অরিয়েন্টেলিজম’ বইয়ে এর বিস্তৃত ব্যাখ্যা পাওয়া যায়। এক্ষেত্রে ভারত-চীন ও আরব দুনিয়া একই ভ্রান্তির শিকার।

            যাইহোক, একেবারে নিশ্চিতভাবে বলা না গেলেও ৫৭১ সালকে প্রফেট মহম্মদের জন্ম সাল হিসেবে মেনে নেওয়া হয়েছে। এই সময়কাল আন্তর্জাতিক রাজনৈতিক পরিস্থিতির প্রেক্ষাপটে বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। এই সময়ে বাইজেন্টাইন সাম্রাজ্য পশ্চিমদিকে পরাজয় বরণ করছে ও পূর্বে প্রতিরোধমূলক যুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছে। ইতালি ও স্পেনে যথাক্রমে লম্বার্ড ও ভিসিগথদের আক্রমণ এগিয়ে চলেছে, পূর্বে বাইজেন্টাইনরা শুধুমাত্র কূটনৈতিক রণনীতি অবলম্বন করে চলেছে। দক্ষিণ আরবে প্রথমে ইথিওপিয়ানদের ও পরে পার্সিয়ানদের দখলের মাধ্যমে ক্ষমতার পতন পূর্বেই শুরু হয়েছে। খ্রিষ্টিয়ান যুগের শুরুতেই মৌসুমী বায়ুর নিয়ম আবিষ্কারের মাধ্যমে গ্রিক জাহাজ মিশর থেকে ভারত যাতায়াত শুরু করে দিয়েছে। ব্যাপক দূরপাল্লার বাণিজ্যের মাধ্যমে বাণিজ্য শহর গড়ে উঠছে। দক্ষিণ আরব ও বাইজেন্টাইন পেলেস্তাইনের মাঝখানে অন্যতম বর্ধিষ্ণু শহর হিসেবে গড়ে উঠছে মক্কা। সম্ভবত মক্কার ভৌগোলিক অবস্থান এই সুযোগ তৈরি করে দিয়েছে। উত্তর থেকে দক্ষিণে – পেলেস্তাইন থেকে ইয়েমেনে যাওয়ার পথ, পূর্ব থেকে পশ্চিমে লোহিত সাগর ও পারস্য উপসাগর হয়ে ইথিওপিয়া যাওয়ার পথে অবস্থিত এই মক্কা। অনুরূপ আর্থিক বিকাশ ঘটছে গোটা পশ্চিম আরবে। পুরোনো বেদুইন ট্রাইবরা তখনও স্থায়ী বসত গড়ে তুলেনি। বাণিজ্য অর্থনীতি ও শহরের বিকাশ তাদের মধ্যেও প্রভাব ফেলতে শুরু করেছে। অভ্যন্তরিণ জনজাতীয় সামাজিক কাঠামোয় অসাম্যের ছায়া পড়তে শুরু করেছে। বাণিজ্য শহরের প্রভাবে অভ্যন্তরিণ সামাজিক ও আর্থিক কাঠামোর পরিবর্তন জনজাতীয় জীবনধারণের নিয়মের সীমা অতিক্রম করে ফেলেছে। বৃহৎ সাম্রাজ্যের কাছে আরবরা সবসময়ই প্রয়োজনীয় ছিল – তাদের আনুগত্য তারা কিনে নিত, এক ট্রাইবের বিরুদ্ধে আরেকটিকে লেলিয়ে দিত। সুতরাং পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে তাদের সাথে পেতে হলে প্রয়োজন ছিল একটি শক্তিশালী রাষ্ট্রের জন্ম দেওয়া যা সকল আরববাসীদেরকে ঐক্যবদ্ধ করবে। এই রাষ্ট্র গঠনের অনুকূল মতাদর্শ হিসেবে খ্রিষ্ট ও ইহুদী ধর্ম আরববাসীদের কাছে পরিচিত ছিল। কিন্তু এই দুটি ধর্মই তাদের কাছে বিদেশি ও বৃহৎ সাম্রাজ্যরে ধর্ম ছিল এবং তাই এ ধর্ম গ্রহণ আরব গরিমায় আঘাত করত বলেই জনজাতীয় ধর্ম ত্যাগ করে তারা ঐ সাধারণ ধর্মের দিকে আকৃষ্ট হলো না। উপরন্তু প্রায় এই একই সময়ে ইসলাম ধর্ম জন্ম নিচ্ছে, অন্যথায় সাম্রাজ্যের ধর্মই হয়ত আরবে প্রভাব বিস্তার করত ও ইতিহাস ভিন্ন হত। আরবের সবচাইতে প্রাধাণ্যকারী কুরেশ জনজাতীয়রা তিনটি ভাগে বিভক্ত ছিল ও নিজেদের মধ্যে দ্বন্দ্বে লিপ্ত থাকলেও খ্রিষ্টীয়, বাইজেন্টাইন ও ইথিওপিয়ার ক্ষমতার সামনে তারা ঐক্যবদ্ধ থাকত, যৌথভাবে সিদ্ধান্ত নিত ও সাম্রাজ্যগুলির নিজেদের মধ্যে সংঘাতে অত্যন্ত বুদ্ধিমত্তার সাথে সমদূরত্ব বজায় রাখত। এই কুরেশিরা পার্শিয়া, ইথিওপিয়া, সিরিয়া ইত্যাদিতে ছড়িয়ে পড়ে ও তাদের বসতি থাকা শহরগুলির প্রভূত বাণিজ্যিক উন্নতি সাধন করে এবং আন্তর্জাতিক রাজনীতিতে ভূমিকা নেয়। প্রফেট মুহম্মদ এই কুরেশি পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন এবং এক শক্তিশালী আরব রাষ্ট্রের অনুকূল একেশ্বরবাদী ইসলাম ধর্ম গড়ে তোলেন। সমস্ত ট্রাইব, আরব ইহুদীদের এই নতুন ধর্মে আকৃষ্ট করার জন্য জনজাতীয় ও আরব ইহুদি রীতি নীতির অনেক কিছুই ইসলাম ধর্মে সন্নিবিষ্ট করেন। মেদিনাতে ভ্রূণস্তরে যে রাষ্ট্র ইতিমধ্যে গড়ে উঠেছে প্রফেট মুহম্মদ তাতে সুস্থিতি কায়েম করেন। গোটা আরব ইসলাম ধর্মে অন্তর্ভূক্ত হওয়া সত্ত্বেও তার চরিত্র মাল্টি-এথনিক থেকে যায় এবং এই মাল্টি-এথনিক বিভাজনের সীমানা ধরেই আরব রাষ্ট্র তথা অটোমান সাম্রাজ্যকে বহু-রাষ্ট্রে বিভাজিত করা হয়। প্রফেট মহম্মদের জীবতকালে যে ক্ষুদ্র আরব রাষ্ট্রের জন্ম হয় তা পরবর্তীতে বিকশিত হতে থাকে। পার্শিয়ান, সিরিয়ান, ইজিপ্সিয়ান, গ্রীক ইত্যদি অনেকেই আরব হয়ে উঠে। অত্যন্ত নির্ভরযোগ্য, বিদ্বৎ সমাজে স্বীকৃত ও বিশ্লেষণাত্মক বই ‘মুহম্মদ’-এর লেখক ম্যাক্সিম রডিনসন লিখেছেন ইউরোপীয়রা যেভাবে বিশ্বাস করে আরব শাসকরা সেভাবে বলপ্রয়োগে ধর্মান্তরিত তো করতেনই না, বরঞ্চ এধরনের ধর্মান্তরণকে নাকচ করতেন। ভারতে ইসলামের এক ভিন্ন প্রেক্ষাপট ও কাহিনী রয়েছে। কিন্তু প্রাচ্যের ইতিহাসকে ইউরোপীয়দের চোখে না দেখার অভ্যাস করাই আমাদের সবার জন্য মঙ্গল। কিন্তু তাই বলে বলপ্রয়োগের গঠনাকে একেবারে নাকচ করা যায় না। উমাইয়াদদের রাজত্বে কিছু ক্রিষ্টিয়ান ও ইহুদিদের চাবুক মেরে ধর্মান্তরিত করা হয়েছিল। অথচ কুরেশি রাজত্বে এই উমাইয়াদ বংশের আবু সুফিয়ান কুরেশ শাসকদের বিরোধিতায় ইসলামকেও ঘৃণা করতেন ও এদের সাথে যুদ্ধে লিপ্ত হয়েছিলেন। ধর্মান্তরিত করার এধরনের ঘটনার উল্লেখের মাধ্যমে ইসলামের অগ্রগতিকে ব্যাখ্যা করা যায় না। মূল আরবদের অবদানের সাথে সাথে মুসলিমদের মধ্যে যারা আরব পরিচিতি লাভ করেছিল, কিন্তু আরব শাসনের অধীনে পুরোপুরি চলে যায়নি তাদের মধ্য থেকেও মুসলিম আর্টস, মুসলিম সায়েন্স, মুসলিম ফিলোজফি ইত্যাদি বিকশিত হয়েছে। এক দীর্ঘ পরিক্রমায় ইসলাম ধর্মেও অনেক রীতি-নীতি ও মতধারা সংযোজিত হয়েছে। আধুনিক বিশ্বে তেল সম্পদ লুটের জন্য মুসলিমদের বিরুদ্ধে পশ্চিমী রাষ্ট্র শক্তির চক্রান্ত, অন্যায়, অবিচার ও অত্যাচারের বিরুদ্ধে মুসলিমদের বিদ্রোহের ন্যায্যতা নিশ্চয়ই আছে। কিন্তু পাশাপাশি এটাও খেয়াল রাখা উচিত যে এই বিদ্রোহের আড়ালে এই পশ্চিমী রাষ্ট্রশক্তিই তাদের নিজস্ব স্বার্থেই ওয়াহাবি সালাফিপন্থীদের সবচাইতে প্রতিক্রিয়াশীল বাহিনীকে অর্থ ও অস্ত্র দিয়ে মদত যুগিয়ে যাচ্ছে। আলটপকা মন্তব্য দিয়ে ইসলামের ইতিহাসের বিকৃতি আগ্রাসী পশ্চিমী সাম্রাজ্যবাদকেই পরোক্ষে নিজের অজান্তে মদত যোগায়।

              এবার আসা যাক বাংলাদেশে হিন্দুদের উপর অত্যাচার ও মন্দির ভাঙার প্রশ্নে। যে কোন শুভবুদ্ধিসম্পন্ন ব্যক্তিই সংখ্যালঘুদের উপর অত্যাচার ও মন্দির ভাঙার ঘটনাকে নিন্দাই শুধু করবেন না, ঐক্যবদ্ধ প্রতিবাদের পক্ষেও মত পোষণ করবেন। কিন্তু ঘটনার বিশ্লেষণ নির্মোহ, নৈর্ব্যক্তিক অবস্থান থেকে করাটাই বাঞ্চনীয়, অন্যথায় সঠিক অবস্থান নেওয়া থেকে বিরত থাকার জন্য সাধারণকে প্ররোচিত করতে পারে। এই অত্যাচার ও মন্দির ভাঙার ঘটনাগুলি যে ইসলামি নেতা দিলওয়ার হোসেন সায়েদির ফাঁসির পর থেকে ঘটতে শুরু করেছে লেখক একথা উল্লেখ করেছেন। এই ফাঁসিটা কে দিল? নিশ্চিতভাবে বাংলাদেশের রাষ্ট্র এবং ফাঁসি দেওয়ার পেছনে ছিল বাংলাদেশের জনমতের চাপ। এই তথ্য থেকে কী একথা বলা যায় না যে অত্যাচার ও মন্দির ভাঙার ঘটনাগুলির সাথে সামগ্রিকভাবে বাংলাদেশের রাষ্ট্র ও জনগণের বৃহদাংশের সমর্থন নেই? এমতাবস্থায় বাংলাদেশের হিন্দুদের নিশ্চিহ্ন হয়ে যাওয়ার প্রশ্ন কী করে উঠে? উপরন্তু মন্দির ভাঙার ঘটনাগুলি বিশ্লেষণ করলে দেখা যাবে যে এই ঘটনাগুলি মূলত রাজনৈতিক প্রতিহিংসা। বাংলাদেশে এবার রেকর্ড সংখ্যক দুর্গাপুজা অনুষ্ঠিত হওয়ার তথ্য কি হিন্দুদের নিশ্চিহ্ন হয়ে যাওয়ার বার্তা বহন করে? বাংলাদেশ থেকে গণহারে হিন্দুদের তাড়িয়ে দিলে আসামে হিন্দু জনসংখ্যা কি অপ্রত্যাশিতভাবে বাড়ত না? যে কোন সামাজিক সংঘাতের ঘটনায় রাষ্ট্র কী ভূমিকা নেয় তা অত্যন্ত গুরুত্ত্বপূর্ণ বিবেচ্য বিষয়। রাষ্ট্র জড়িত থাকলে অত্যাচারের ঘটনা বিশ্ববাসীর জনসমক্ষে আসা দুরূহ হয়ে উঠে। উল্টোদিকে রাষ্ট্র সদর্থক ভূমিকা নিলে সামাজিক বিবাদের নিষ্পত্তি বহু ক্ষেত্রে আঞ্চলিক স্তরেই হয়ে যায়। অযোধ্যাবাসীর উপর ছেড়ে দিলে বাবরি মসজিদ বিবাদের নিষ্পত্তি তাঁরাই করে নিতেন বলে আমার বিশ্বাস, এতো পাশবিক আস্ফালন ও রক্তক্ষরণের প্রয়োজন পড়ত না। অন্যদিকে শ্রীলঙ্কায় তামিলদের উপর বর্বরোচিত আক্রমণের ঘটনা নিয়ে বিশ্ববাসী এখনো অন্ধকারে। অন্যায়ের বিরোধিতা ও প্রতিরোধ করার অর্থ এই নয় যে ন্যায়ের সম্ভাবনাকেও সমূলে নাকচ করে দিতে হবে। বাংলাদেশের সমাজে সেক্যুলার মূল্যবোধ অনেক গভীরে প্রোথিত হয়েছে বলেই আমার বিশ্বাস। যেভাবে বাংলাভাষা ও সংস্কৃতির সেক্যুলার চর্চা বাংলাদেশে ক্রমাগত বিকশিত হচ্ছে তার সাংস্কৃতিক মূল্য বিভিন্ন ঘাত-প্রতিঘাতের মধ্য দিয়ে হলেও সমাজ বহন করবে ও তাকে পরাজিত হতে দেবে না বলেই আমার বিশ্বাস। ভারতবর্ষে গণতন্ত্র ও সেক্যুলার রাজনীতির পরোক্ষ প্রভাবও বাংলাদেশে পড়তে বাধ্য, এক্ষেত্রে আমাদের দায়িত্ব অপরিসীম।  

মূল্যবোধের অবক্ষয় ও বাম রাজনীতি

Posted by স্বাভিমান Labels: ,

                                                 ।। অরূপ বৈশ্য ।।

(এই লেখাটি যাদবপুর ছাত্র আন্দোলনের সমর্থনে শিলচরে ছাত্র মিছিলের দিনেই মিছিলের প্রতিক্রিয়ায় লেখা)

যাদবপুরে পুলিশ

যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে একপ্রস্ত কুনাট্য হয়ে গেল। এখান থেকে ছাত্র রাজনীতি নিয়েই শুধুমাত্র নতুন প্রশ্ন উত্থাপিত হলো না, উন্মোচিত হলো সর্বস্তরে মূল্যবোধের অবক্ষয়ের বাস্তব চেহারা। যাদবপুরের উপাচার্য ছাত্র-বিক্ষোভকে প্রশমিত করতে নির্ভর করলেন পাশবিক রাষ্ট্রশক্তির উপর। বর্তমান লেখকের ছাত্র-রাজনীতির কিছু ঘটনার উল্লেখ শিক্ষাক্ষেত্রের শিক্ষক প্রশাসকের  মূল্যবোধের তূলনামূলক বিচার করার সহায়ক হতে পারে।

উত্তরণকালীন পর্যায়

যে ঘটনার উল্লেখ এখানে করা হচ্ছে সেই ঘটনার সময়কাল আশির দশক। অর্থাৎ এটা এমন এক সময় যখন সত্তরের দশকের বিদ্রোহী ছাত্র রাজনীতি ম্রিয়মাণ হয়ে আসছে এবং উদার-অর্থনীতির জীয়ন কাঠির ছোঁয়ায় ক্যারিয়ার-সর্বস্ব প্রতিষ্ঠার দিকে ছাত্র-সমাজ আকৃষ্ঠ হয়ে পড়ছে। স্বাভাবিকভাবেই এই উত্তরণকালীন পর্যায়ে এমন কিছু সংখ্য্যক ছাত্র ছিল যারা সত্তরের বিদ্রোহী সত্তাকে বহন করে চলেছিল। বর্তমান লেখক এই বিদ্রোহী-চেতনারই একজন বাহক। এভাবে বাহক হয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে জ্ঞানচর্চার অনেক ত্রুটি ও দুর্বলতা ছিল কিনা এ প্রশ্ন উঠতেই পারে এবং এধরনের প্রশ্ন বর্তমান লেখককেও ভাবিত করে। কিন্তু এই বহমানতার মধ্যে যে একধরনের মানবিক হৃদয়বৃত্তি ছিল তা অনস্বীকার্য। এই হৃদয়বৃত্তি ছাড়া মানব সমাজ মানবিক হয়ে উঠার ঈপ্সিত লক্ষ্যের দিকে এগিয়ে যেত পারে না। মানব সভ্যতার বিকাশের জন্য এটাকে একমাত্র বিশেষত্ব হিসেবে ধরে নিলে নিশ্চয়ই ভুল হবে, কিন্তু এটা অত্যন্ত প্রয়োজনীয় সামাজিক বিশেষত্ব। যারা মানব সমাজের স্বার্থে ভাড়াটে সৈন্য হিসেবে নয়, স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে জান বাজি রেখে যুদ্ধে অংশগ্রহণ করতে চান তাঁরা নিশ্চিতভাবে মহান। কিন্তু যুদ্ধ কী, কার জন্য, কাদের স্বার্থে - সেই বুদ্ধিবৃত্তিগত চর্চা ছাড়া বিভিন্ন অংশগ্রহণের মধ্যে পার্থক্যরেখা টানা যায় না। উঁচুদরের পদার্থবিদ হওয়ার ক্ষমতাসম্পন্ন ছাত্র কডওয়েল যখন মাত্র পনেরো বছর বয়সে স্কুল ছেড়ে দিয়ে প্রথমে সাংবাদিক, কবিতা-সংস্কৃতি-পদার্থবিদ্যার লেখক হয়ে উঠেন ও পরে ফ্যাসিবিরোধী যুদ্ধে কম্যুনিস্ট সৈনিক হিসেবে অল্প বয়সেই আত্মবলিদান করেন, তাঁর প্রতি সম্মানে আমাদের মাথা হেঁট হয়ে যায়। যাইহউক, প্রারম্ভেই যে উদাহরণের মাধ্যমে সময়ের বিভাজনের সাথে মূল্যবোধের পার্থক্যরেখার কথা উল্লেখ করেছি সেখানে ফিরে আসা যাক।

সময়ের সাথে মূল্যবোধের পার্থক্য

যে কোন কারণেই হোক দুই বছরের সিনিয়র প্রার্থীকে পরাজিত করে ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের ছাত্র ইউনিয়নের সর্বোচ্চ পদে নির্বাচিত হই। ব্যক্তিগতভাবে পরীক্ষা ও সিলেবাসের পাঠের প্রতি অনীহা থাকা সত্ত্বেও সময়মত পরীক্ষা নেওয়ার দাবিতে ধর্মঘটে আগসারির ভূমিকা নিতে ছাত্র-রাজনীতির মূল্যবোধই বাধ্য করে। গুয়াহাটি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে থাকায় পরীক্ষার সময়সূচী, পাঠ্যসূচী, প্রশ্নপত্র তৈরি ইত্যাদি কোন বিষয়েই শিলচর রিজিওন্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের বিশেষ কোন ভূমিকা ছিল না। তাই আন্দোলনই ছিল একমাত্র হাতিয়ার এবং দাবি আদায়ের জন্য এ আন্দোলন অনেক দূর গড়াত। সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় তদানীন্তন শিক্ষামন্ত্রীর শিলচর সফরসূচী উপলক্ষে সার্কিট-হাউস অব্দি মিছিল করে যাওয়া হবে। কলেজ কর্তৃপক্ষ ও জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আমাদেরকে এ পদক্ষেপ নেওয়া থেকে বিরত রাখার প্রচেষ্টা করা হয়। কিন্তু সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ছাত্ররা জমায়েত হতে শুরু করলে মিছিল বন্ধ করে দেওয়ার জন্য পুলিশ প্রশাসনকে ক্যাম্পাসের অভ্যন্তরে প্রবেশের পক্ষে কলেজ অধ্যক্ষ সায় দেননি। শিলচর মেডিক্যাল কলেজ পার হতেই মিছিলের সামনে ব্যারিক্যাড তৈরি করে পুলিশ। রাস্তা অবরূদ্ধ হয়ে যায়, ছাত্ররা রাস্তায় বসে পড়ে। সামনের সারিতে থাকা ছাত্ররা ব্যারিক্যাড ভাঙার প্রচেষ্টা করে। সেসময়ের উঁচুপদের এক পুলিশকর্তা বর্তমান লেখকের সোয়েটারের কলার ধরে টানলে বর্তমানে প্রয়াত আমাদের এক সহপাঠী যশোবন্ত দত্ত আমাকে জাপটে ধরে। পুলিশ দুজনকেই টেনে হেঁচড়ে ভ্যানে উঠিয়ে সদর থানার নিয়ে গিয়ে লক-আপে ঢুকিয়ে দেয়। সন্ধ্যার সময় আমাদের দুজনকে সসম্মানে নিয়ে যাওয়া হয় সার্কিট হাউসের একটি ঘরে। এই ঘরের বৃহৎ আকৃতির এক টেবিলের একদিকে বসে ছিলেন সবার পরিচিত বিশিষ্ট অসমীয়া বুদ্ধিজীবী ও আমাদের অধ্যক্ষ নির্মল কুমার চোধুরী ও অন্যপাশে মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী। টেবিলের বাকী চেয়ারে আমাদের দুজনকে বসতে বলা হয়। পুলিশের ভূমিকার প্রতিবাদ করতে গিয়ে ছিন্নভিন্ন হয়ে যাওয়া আমার প্রিয় সোয়েটার (লণ্ডন-নিবাসী আমার এক দাদা আমাকে এটি উপহার দিয়েছিল) টেবিলের উপর রাখি। আলোচনা শেষে আমরা আবার হোষ্টেলে ফিরে যাই এবং পরদিন থেকে আন্দোলন স্থগিত হয়ে যায়। আমাদের অধ্যক্ষ তাঁর নিজের ভূমিকার মাধ্যমেই ছাত্রদের সমীহ আদায় করে নেন, তারজন্য কোন নৈতিক শিক্ষার পাঠ কিংবা নিয়মের শেকল তৈরি করার প্রয়োজন পড়েনি। সত্তর দশকের শেকল ভাঙার সংস্কৃতির প্রভাব আশির প্রথম ভাগেও বিদ্যমান ছিল, তাই কোন শেকল তৈরির প্রচেষ্টাকে অঙ্কুরেই বিনাশ করে দেওয়ার জন্য ছাত্ররা প্রস্তুত ছিল। আশির দশক এমন এক সময় যখন ছাত্র-আন্দোলন, ছাত্র-শিক্ষক সম্পর্ক, শিক্ষকের ভূমিকা সবকিছুতেই একটা বিপরীত যাত্রা শুরু হয়ে গেছে, এটা এমন পর্যায় যখন ন্যায় প্রতিষ্ঠার ও বৃহদের চিন্তা এবং যেনতেনপ্রকারেণ তথাকথিত উন্নতি ও ক্ষমতা প্রাপ্তির চিন্তার টানাপোড়েনে দ্বিতীয়টির বিজয় পতাকা বাস্তবের মাটিতে প্রোথিত হতে চলেছে।

বামপন্থীদের অবস্থান

ন্যায়সঙ্গত ছাত্র আন্দোলনে বরাবরই বামপন্থীদের এক সদর্থক ভূমিকা ছিল। ব্যক্তি, গোষ্ঠী, আত্মীয়-পরিজন বা দলীয় সংকীর্ণতার উর্ধে উঠে বৃহদের স্বার্থে ভাবনা ও কাজ করার অনুপ্রেরণাই ছিল এই ভূমিকার অন্তর্বস্তু। কিন্তু বামেদের এই আদর্শচ্যুতির চরম প্রকাশ ঘটতে শুরু করে আশির দশক থেকে যখন সংকীর্ণ গোষ্ঠী ও দলীয় স্বার্থে সিদ্ধান্ত নেওয়ার প্রবণতা প্রকট হয়ে দেখা দিতে আরম্ভ করে। এর প্রভাব পরে সর্বত্র। এই বিচ্যুতির নগ্ন ও বিভৎস রূপে পশ্চিমবঙ্গের মানুষ যে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেন তার প্রকৃষ্ট উদাহরণ তৃণমূল কংগ্রেসের উত্থান ও বামেদের পিছু হঠার যাত্রা প্রায় সম্পূর্ণ হয়ে যাওয়ার মধ্যে। আমাদের এওঞ্চলেও আশির দশকের বিভিন্ন ছাত্র আন্দোলনে, এমনকি ছিয়াশির ভাষা আন্দোলনেও বিভিন্ন বামপন্থী সংগঠনের সংকীর্ণতার নজির রয়েছে। এই বিপরীত যাত্রা কোন আকস্মিক ঘটনা নয়। এর ঐতিহাসিক ও আর্থ-সামাজিক বাস্তবতা রয়েছে। এই প্রেক্ষাপট ব্যাখ্যা করা এই নিবন্ধের উদ্দেশ্য না হলেও কিছু প্রাসঙ্গিক কথা এখানে উল্লেখ করা জরুরি। পশ্চিমবঙ্গের টালমাটাল সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে যে বাঙালি-মার্কসবাদ বা বাঙালি-বামপন্থার জন্ম হয় তা একদিকে পতোনোন্মুখ জমিদারি ব্যবস্থা, চিরস্থায়ী বন্দোবস্তের মাধ্যমে ব্রিটিশ ত্রাতার প্রতি আনুগত্য ও ইংরেজি শিক্ষার মাধ্যমে আলোকপ্রাপ্ত ভদ্দরলোকদের মধ্যে একদিকে উপনিবেশিক মনস্তত্ব ও অন্যদিকে বিশ্ব-পুঁজিবাদের ছত্রছায়ায় বিকশিত নতুন শ্রেণিশক্তির জন্য প্রয়োজনীয় ও ইউরোপীয় রেনেসাঁ প্রভাবিত যুক্তিবাদের সাথে মার্কসবাদ মিলেমিশে একাকার হয়ে যায়। মতাদর্শ সবসময়ই ভ্রমাত্মক। সাম্যবাদী মতাদর্শের বহিরঙ্গে লুকিয়ে থাকতে পারে জাতি-ধর্ম-বর্ণগত বৈষম্য ও ঘৃণার মানসিকতা। পশ্চিমবাংলার বাঙালি সাম্যবাদের আড়ালে এই ঘৃণার মানসিকতা ও যুক্তিবাদী অবস্থান এই দুয়ের সংমিশ্রণ বরাবরই বজায় ছিল। তাই ‘মার্কসবাদ একটি বিজ্ঞান’ – এই যান্ত্রিক ঘোষণার আড়ালে স্তালিনীয় রাশিয়ার অন্ধ অনুগামী হওয়ার ক্ষেত্রে কোন প্রশ্ন দেখা দেয়নি। কারণ এই বিজ্ঞান চর্চায় দলীয় নেতারাই একমাত্র বিজ্ঞান শিক্ষক, মেহনতি জনগণ শুধুমাত্র এই শিক্ষকদের অন্ধ অনুগামী। জীবনের অভিজ্ঞতার সাথে বৌদ্ধিক চর্চার দ্বান্দ্বিক সংঘাতের মধ্য দিয়ে বিজ্ঞান চর্চা ও সচতেনতা বিকশিত হওয়ার একমাত্র পথকে এভাবেই পরিহার করা হয়। পুঁজিবাদী ব্যবস্থায় প্রশিক্ষণের মাধ্যমে যেভাবে বৈজ্ঞানিক স্কিল ডেভেলাপম্যান্ট করা হয় বামেদের অনুসারিত পথ এর সাথে মিলে যায়। প্রাণশক্তি, সৃষ্টিশীলতা ও গণ-সচেতনতা বৃদ্ধির প্রশ্ন যেখানে উপেক্ষিত সেখানে পুঁজিবাদী ব্যবস্থা অনেক বেশি অগ্রণী ও কার্যকরী ভূমিকায় অবতীর্ণ থাকায় বামেদের অস্তিত্ত্ব বিপন্ন হয়ে উঠে।

মানব প্রজাতির স্বাভাবিক প্রবণতা

প্রতিটি প্রজাতির এক একটি স্বাভাবিক প্রবণতা থাকে। অসুস্থ বিপদাপন্ন পথচারীকে পাশ কাটিয়ে কোন দামী গাড়ির আরোহী দ্রুতগতিতে চলে যেতে পারেন এবং সেটাই আজকের জীবন বাস্তবতার প্রধান দিক। কিন্তু এই প্রধান দিকটি মানব প্রজাতির স্বাভাবিক প্রবণতা হতে পারে না। ভবিষ্যতের মধ্যে বেঁচে থাকার ইচ্ছার মধ্যেই লুকিয়ে আছে মানব প্রজাতির বেঁচে থাকার রহস্য। এই মানব সমাজ হিসেবে বেঁচে থাকার রহস্যকে আড়াল করে রাখে সম্পত্তি সম্পর্ক। এই সম্পত্তি সম্পর্কে সে দেখতে পায় তার সন্তানকে, তার পরিবার-পরিজনকে, তার গোষ্ঠী-সম্প্রদায় ইত্যাদিকে। সম্পত্তি মালিকানা তাকে মানব প্রজাতির সদস্য হিসেবে ভাবতে অপারগ করে তুলে। সেজন্যই মার্কস বলে ছিলেন যে একমাত্র সর্বহারা শ্রমিকশ্রেণিই সবার হয়ে কথা বলতে পারে, কারণ তার হারাবার কিছু নেই। কিন্তু সবার হয়ে কথা বলার প্রশ্নটি সচেতন হয়ে উঠার জটিল প্রক্রিয়ার সাথে যুক্ত, সেটা বামপন্থী শিক্ষকদের ট্রেনিং ক্যাম্পে নির্ধারিত হওয়ার বিষয় নয়। সেটা বাস্তব অন্যায় ও শোষণ বঞ্চনার বিরুদ্ধে নিরন্তর সংগ্রামের এক প্রক্রিয়া যে বাস্তবতায় মুনাফা, আরও মুনাফা ও মুষ্ঠিমেয়র হাতে সম্পদের কেন্দ্রীভবন পৃথিবীকে করে তুলছে মানুষের বাসের অনুপযোগী। প্রতিনিয়ত মনুষ্য সৃষ্ট প্রাকৃতিক দুর্যোগ, প্রলয়, যুদ্ধ, হানাহানি, ধ্বংসের হাত থেকে কি মানব সমাজ বাঁচতে চাইবে না? নিশ্চয়ই চাইবে, কারণ এটাই মানব প্রজাতির সাধারণ প্রবৃত্তি এবং এখানেই আশার আলো এখনও জ্বলছে। মানব প্রজাতির বেঁচে থাকার এই রহস্যের মধ্যেই লুকিয়ে আছে বামেদের পুনরুত্থানের রহস্য। কারণ অসাম্য, লুণ্ঠন ও সম্পদের কেন্দ্রীভবনের বর্তমান ব্যবস্থার নীতিতে তথাকথিত উন্নয়ন মানেই যে ধ্বংস, বিপর্যয়, যুদ্ধ ও হানাহানি তা আর বুঝিয়ে বলার অপেক্ষা রাখে না। গুয়াহাটি- উত্তরাখন্ড-কাশ্মীরের বন্যা, গাজা-সিরিয়া-ইউক্রেনে মানব সংকট, চারিদিকে যুদ্ধ ও ফ্যাসিবাদী উত্থান কিংবা ইংলেণ্ড থেকে স্কটল্যাণ্ডের আলাদা হয়ে যাওয়ার বাসনা সবকিছুই বর্তমান ব্যবস্থায় মানব সমাজের সংকটকে চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিচ্ছে। সুতরাং বামপন্থী সাম্যবাদের ঘুরে দাঁড়ানোর মধ্যেই মানব প্রজাতির মানবিক মূল্যবোধ নিয়ে বেঁচে থাকার একমাত্র গ্যারান্টি। কিন্তু এটা তখনই সম্ভব যখন বামপন্থীরা অতীত থেকে শিক্ষা নেবে, বাস্তব পরিস্থিতির বাস্তব ব্যাখ্যা করার বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিকে আয়ত্ত করবে, কথা ও কাজের মধ্যে ব্যবধান ঘোচাতে সচেষ্ট হবে এবং সমস্ত দলীয় ও গোষ্ঠী সংকীর্ণতার উর্ধে উঠে মানব সমাজের অগ্রগতি ও মেহনতি মানুষের সচেতনতা বৃদ্ধির মানদণ্ডে সমস্ত ঘটনাকে বিচার করবে।

জীবনমুখী পরিবর্তন

যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র আন্দোলনকে পরিস্থিতির আরেকটি বাঁক নেওয়ার সূচক হিসেবে বিবেচনা করা যেতে পারে। নিষ্ক্রিয় ক্যারিয়ার সর্বস্ব ছাত্র সমাজ বোধহয় আড়মোড়া ভাঙছে, এই মোচড় আসলে সমাজের সর্বত্র বিরাজমান এক অস্থিরতার পরোক্ষ প্রভাব। অস্থিরতা পরিস্থিতির আরেকটি পরিবর্তনের লক্ষণ মাত্র। পরিস্থিতি ভালর দিক মোড় নেওয়ার জন্য যারা উদগ্রীব – তাদেরকে সক্রিয় হতেই হবে। অশুভের দাপটে শুভর বিজয় কামনা সাধারণ বুদ্ধিতে ইউটোপিয়ানই মনে হয়, কারণ এই কামনার বাস্তবায়ন জ্ঞান ও কর্মের এক সামগ্রিক জীবনমুখী পরিবর্তনের সাথে যুক্ত।     

স্বাধীনতা সন্ধানে

Posted by স্বাভিমান Labels: ,

                            ।। অরূপ বৈশ্য।।     
 যুগশঙ্খ, ২ সেপ্টেম্বর, ২০১৪

স্বাধীনতার স্পৃহা

বিষয়ের শুরুটা করছি এক ভিন্ন মাত্রা দিয়ে। সম্প্রতি একটি গল্পের বই উন্মোচনের অনুষ্ঠানে দর্শক-শ্রোতা হিসেবে বিভিন্ন বক্তার বক্তব্য শুনতে শুনতে আমার মনে একটি প্রশ্ন জাগে। সাহিত্য-অর্থনীতি-রাজনীতিকে কী এক অভিন্ন অবস্থান থেকে বিচার করা সম্ভব? এই সবকটিই যখন একই বাস্তবের, একই প্রকৃতির, একই মানব-সমাজের, একই গোলার্ধের ভিন্ন ভিন্ন দিক, তখন বিচারের এক সাধারণ প্যারামিটার কী খুঁজে নেওয়া সম্ভব নয়? সেই অনুষ্ঠানে বক্তারা বিভিন্ন গল্পের বিভিন্ন ধরনের ব্যাখ্যা দিলেন এবং কেউ কেউ এও বললেন যে একই গল্পের পাঠক-কেন্দ্রিক বিভিন্ন ধরনের পাঠ হয়। পাঠক তার নিজস্ব অবস্থান থেকেই পাঠ নেবেন সেটাই স্বাভাবিক, কিন্তু অনুষ্ঠানে উপস্থিত সবাই যারা এই গল্পগুলো পড়েছেন তাদের মধ্যে এক সাধারণ যোগসূত্রও রয়েছে। সবারই এই গল্পগুলো ভাল লেগেছে। ভাল লাগা জন্ম দেয় একধরনের অনুভূতির যা মস্তিষ্কে সঞ্চারিত হয়ে জন্ম নেয় নতুন চিন্তার। স্যুইচ টিপে দিলে তারের মধ্য দিয়ে বিদ্যুৎ প্রবাহিত হয়ে বাল্ব জ্বালিয়ে দেওয়ার মত ভাল-লাগার অনুভূতি স্যুইচ টিপে দেওয়ার কাজটি সেরে নেয়। বাল্বের ক্ষমতা অনুযায়ী যেমনি আলো দেয়, ঠিক তেমনি মস্তিষ্কের ক্ষমতা অনুযায়ী চিন্তার উদ্রেক হয়। সেই ক্ষমতার প্রশ্নটি এক ভিন্ন আলোচনার বিষয়। কিন্তু এই চিন্তার ভিত্তি যে অনুভূতি সেটাই তৈরি করে সাধারণ যোগসূত্র। পাঠকের মধ্যে সেই অনুভূতি লেখক তৈরি করতে পারেন শুধুমাত্র তাঁর গভীরে দেখার ও তাকে প্রকাশ করার ক্ষমতা আছে বলেই, না লেখককে তাড়িত করে তাঁর দক্ষতার সাথে সম্পর্কিত অন্য কোন স্পৃহা যা ব্যতীত সাহিত্যের লেখক আর লেখক হয়ে উঠতে পারেন না। আসলে সেটাই হচ্ছে স্বাধীনতার স্পৃহা। লেখক স্বাধীন হতে চান, তাই খোঁজে দেখেন কোথায় তিনি আঁটকে আছেন। তাঁর দেখার ক্ষমতা দিয়ে তিনি আবিষ্কার করেন দৃশ্য-অদৃশ্য, ব্যক্ত-অব্যক্ত, নিকট-সম্পর্কিত ও দূর-সম্পর্কিত হাজারো সম্পর্কের বাঁধন যাকে তিনি উন্মোচিত করেন পাঠকসমক্ষে। কারণ সেই স্বাধীনতা প্রাপ্তির দৌড়ে তিনি একা বিফল ও ভগ্ন-মনোরথ। এর থেকে বাঁচার জন্য লেখক হয়ে উঠতে পারেন একজন সমাজকর্মীও যার সাথে তাঁর লেখক সত্ত্বার কোন বিরোধ নেই – আছে সময়ের প্রেক্ষিতে অগ্রাধিকারের প্রশ্ন। কিন্তু এই স্বাধীনতার স্পৃহা যতদিন তার অন্তরে জাগ্রত ও প্রাধাণ্যকারী অবস্থানে বিরাজিত, ততদিনই ব্যক্তি লেখকের কাছে সাহিত্য-স্রষ্টা হিসেবে তাঁর অস্তিত্ব।

রিউ-পে ও আর্থিক সম্পর্ক

অনেক ঢাকঢোল পিটিয়ে চালু করা হয়েছে রিউ-পে প্রকল্পের মাধ্যমে আমজনতার জন্য ব্যাঙ্ক একাউন্ট খোলা এবং সাথে ডেবিট কার্ড ও এক লাখ টাকার দুর্ঘটনা ইনস্যুরেন্স প্রদান। এই প্রকল্পের ঘোষিত উদ্দেশ্য এই যে আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সাথে যুক্ত হয়ে প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষ আর্থিক ক্ষমতার স্বাদ পাবে, চাষীরা রক্তচোষা মহাজনী ধারের খপ্পরে পড়বে না, সবাইকে ব্যাঙ্কের মাধ্যমে বেতন প্রদান করার ব্যবস্থা করা যাবে যা এখন মাত্র ৪% এবং ব্যাঙ্ক লেনদেন বৃদ্ধির মাধ্যমে আর্থিক সচলতা বৃদ্ধি পাবে। তবে অনেকগুলো প্রশ্ন এখানে গুরুত্ত্বপূর্ণ। ক্যাম্প করে একাউন্ট খোলার ব্যাবস্থা না হয় করা গেল, কিন্তু প্রত্যন্ত অঞ্চল যেখানে ব্যাঙ্ক, বিদ্যুৎ, ইন্টারনেট ইত্যাদি কোন পরিকাঠামোই নেই, সেখানকার সাধারণ মানুষ গাঁটের কড়ি ব্যয় করে মাইলকয়েক দূরে অবস্থিত ব্যাঙ্কের সাথে সংযোগ বজায় রাখবেন কী করে? জনগণের হাতে যদি সঞ্চয় করার মত অর্থ না থাকে তাহলে একাউন্ট সচল রাখবেন কী করে? সবকিছুকে বেসরকারিকরণ করে দিয়ে সরকার উৎপাদনী কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে জনগণের আয় বৃদ্ধি করবে কী করে? গ্রামাঞ্চলে নতুন উৎপাদনী প্রক্রিয়া ও উৎপাদনী শক্তির বিকাশের মাধ্যমে অর্থনৈতিক সচলতা আনার কোন পরিকল্পনা ছাড়া ব্যাঙ্কের মাধ্যমে ক্ষুদ্র লোন দিলে তা অনাদায়ে বেড-ডেট হয়ে যাবে এবং ব্যাঙ্ক এধরনের লোন দিতে উৎসাহ বোধ করবে না। বেসরকারি ব্যাঙ্ক তো আসবেই না, কারণ গ্রামাঞ্চলে বিস্তৃত কোন শাখাই তাদের প্রায় নেই এবং মুনাফা ছাড়া তাদের আর কোন লক্ষ্যও নেই, বরঞ্চ সাধারণের জমা অর্থ কীভাবে তাদের ব্যবসায়িক কাজে লাগানো যায় তাতে তারা উৎসাহী হয়ে উঠবে। রিজার্ভ ব্যাঙ্কের ২০০৯ সালের হিসেবে দেখা গেছে মোট ১৭১টি ব্যঙ্কের মধ্যে ২০টি জাতীয় ব্যঙ্ক, ৩২টি বিদেশি ব্যঙ্ক, ৮৬টি আঞ্চলিক গ্রামীণ ব্যঙ্ক, ২২টি অন্যান্য সিডিউল ও ৪টি নন-সিডিউল ব্যাঙ্ক রয়েছে। এই ব্যঙ্কগুলির মোট ৭৯৭৩৫টি শাখা এবং শাখা প্রতি গড়  জনসংখ্যা ১৫০০০। এই শাখাগুলির মধ্যে গ্রামীণ ও আধা-শহর এবং শহর ও মেট্রোতে বিদেশি ব্যঙ্কের শাখার সংখ্যা যথাক্রমে ৮ ও ২৮৫, এসবিআই’র ১০৩৯৫ ও ৫৬৬৭, জাতীয় ব্যঙ্কের ২২০৫০ ও ১৭৩২৬, আঞ্চলিক গ্রামীণ ব্যঙ্কের ১৪৩৭২ ও ৭৫৫ এবং অন্যান্য সিডিউল ব্যঙ্কের যথাক্রমে ৩৭৫১ ও ৫১৫৬টি। এই হিসেবে আরও দেখা যায় যে ২০০৬ থেকে ২০০৯ সালের মধ্যে যেসব নতুন শাখা খুলেছে তার অধিকাংশই সেই সব অঞ্চলে যেখানে ইতিমধ্যে ব্যঙ্ক শাখা রয়েছে, এবং কিছু ব্যাঙ্কের স্বল্প সংখ্যক গ্রামীণ শাখা উঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।  এই পরিসংখ্যান থেকে এটা স্পষ্ট যে প্রত্যন্ত অঞ্চলে ব্যঙ্কের সুবিধে নেই, গ্রামীণ ও আধা-শহরে যা রয়েছে তার সবটিই সরকারি ব্যাঙ্ক। সেক্ষেত্রে ধরা যাক ভ্রাম্যমান ব্যাঙ্ক বা ফ্রেঞ্চাইজির মাধ্যমে ব্যাঙ্ক-কাউন্টার খোলা হল। কিন্তু এইগুলিকে সচল রাখার জন্য পরিকাঠামো দরকার। তারচাইতে গুরুত্ত্বপূর্ণ বিষয় এই যে ফ্রেঞ্চাইজির মালিকানা পাবে আর্থিকভাবে সচ্ছল স্থানীয় প্রতিপত্তিশালী লোকরা। এই বিস্তৃত নেটওয়ার্ক গড়ে তুলতে হবে সরকারি ব্যঙ্কগুলোরই, কিন্তু তারজন্য প্রয়োজনীয় আইটি-সামগ্রী সরবরাহ করে লাভবান হবে ব্যক্তিগত মালিকরা যারা জনগণের জমা অর্থ থেকে ব্যঙ্ক লোনও পাবে। ব্যবসায়িক এই নেটওয়ার্কের সবচাইতে নিচে অবস্থিত যে ফ্রেঞ্চাইজি তারাও তাদের মুনাফার জন্য সচ্ছল গ্রাহকদের প্রতি পক্ষপাতিত্ব করবে। বিদ্যুৎ ক্ষেত্রে এই ফ্রেঞ্চাইজিদের দৌরাত্ম্য সম্পর্কে গ্রাহকরা ওয়াকিবহাল। অথচ গ্রামীণ উৎপাদনী কাজকর্ম সহ এই ব্যাঙ্কিং-এর গোটা প্রক্রিয়াকে যদি সামগ্রিকভাবে সরকারি মালিকানার অধীনে আনা যায় এবং বাংলাদেশের আদলে মোবাইল হাতে সরকারি ভ্রাম্যমান বেয়ার-ফুট গ্রাম-সেবকদের মাধ্যমে ব্যাঙ্কিং সুবিধা দেওয়া যায়, তাহলে সরকারি আয় ও ব্যয়ের মধ্যে ভারসাম্য বজায় রাখা সম্ভব। সরকারি ক্ষেত্রে যে দুর্নীতি ও কর্ম-সংস্কৃতির প্রশ্ন দেখা দেয় তাকে দূর করা অসম্ভব কিছু নয়। তারজন্য প্রয়োজন জনগণের ক্ষমতায়ন, কাঠামোগত রক্ষাকবচ ও প্রয়োজনীয় আইন। এক্ষেত্রে সবচাইতে গুরুত্ত্বপূর্ণ হচ্ছে এই যে  শ্রেণি-সচেতন ও পার্ফমেন্স-সচেতন ব্যাঙ্ক ম্যানেজারদের কাছ থেকে বর্তমানে চালু কৃষি-লোন, তপসিলি স্কিমের লোন ইত্যাদি আদায় করতে গ্রামীণ সাধারণ মানুষের তিক্ত অভিজ্ঞতা রয়েছে, নতুন একাউন্টের ক্ষেত্রে এসমস্যা হবে আরও গভীর। উপরন্তু দুর্ঘটনা বিমার ব্যয় বহন করতে সরকার উচ্চবিত্ত ও কর্পোরেটের উপর কর চাপায় না রেশন সামগ্রীর ভর্তুকি কমিয়ে গরিবের উপর বোঝা চাপায় এটাও দেখার বাকী। যেহেতু এই স্কিমের সাফল্য অন্যান্য অনেক স্কিমের মত সামগ্রীক কর্মকাণ্ডের উপর নির্ভরশীল, তাই এর পরিণতি ক্রমশঃ প্রকাশ্য। কিন্তু শুরুতেই কিছু লক্ষণ দেখা গেছে যা মানুষের স্বাধীনতা স্পৃহার প্রশ্নের সাথে যুক্ত। দেশব্যাপী একাউন্ট প্রদানের প্রথম দিনে বরাক উপত্যকার বিভিন্ন অঞ্চলেও ফর্ম নেওয়া হয়। অনেক ক্ষেত্রেই দেখা গেছে যে এই ‘জিরো-ব্যালান্স’ একাউন্টের জন্য ন্যূনতম একশ টাকা করে নেওয়া হচ্ছে। একাউন্টে এই টাকা জমা থাকলে তো ভাল, নইলে নেপোয় মারে দৈ। কিন্তু প্রশ্ন হলো সাধারণ মানুষ জেনেশুনেই এই টাকা দিচ্ছেন, কারণ যারা অর্থ সংগ্রহ করছেন তাদের সাথে সাধারণ মানুষ এমন এক সামাজিক-আর্থিক-রাজনৈতিক সম্পর্কে আবদ্ধ যে তারা কোন ধরনের বিবাদে যাওয়ার সাহস পান না। এই বাঁধন থেকে মুক্ত ও স্বাধীন হওয়ার স্পৃহা এতো জাগ্রত হয়নি যা তাদেরকে বিরোধিতা করার মনোবল জোগাতে পারে। অর্থাৎ এখানেও নতুন চিন্তা ও কর্মের জন্য, বঞ্চিত ও বঞ্চনাকারীর স্বাধীনতার এক আন্দোলনে যুক্ত হওয়া জরুরি।

পরিচিতি ও স্বাধীনতা

কাশ্মীর সমস্যার গণতান্ত্রিক সমাধান ছাড়া যে ভারতীয় উপ-মহাদেশে গণতন্ত্র বিকশিত হতে পারে না তা পলিটিক্যাল সায়েন্সের যে কোন ছাত্র নির্বিঘ্নে বলে দিতে পারে। কাশ্মীর সমস্যা মানে পাকিস্তান ও ভারতীয় উভয় কাশ্মীরিদের সমস্যা। রাজনৈতিক ডিসকোর্স ও মতাদর্শগত প্রচারের দৌলতে কাশ্মীরিদের সমস্যা পরিণত হয়েছে সীমা বিবাদের সমস্যা হিসেবে। এই বিবাদের সমাধানে দুই দেশই তাদের নিজস্ব অভ্যন্তরিণ রাষ্ট্র নীতি ও বিদেশনীতি অনুযায়ীই ভূমিকা পালন করবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু সেই কাশ্মীরিদের কী হবে যারা শুধুমাত্র উভয় রাষ্ট্র শক্তির সদম্ভ পদচারণায় নয়, সীমা বিবাদের সংঘর্ষেও আক্রান্ত। যে স্যাকুলার গণতান্ত্রিক কাশ্মীরি পরিচিতির আকাঙ্খার সমাধানের সূত্র খোঁজাই সমগ্র প্রচেষ্টার অন্তর্বস্তু, তারাই সেই প্রচেষ্টায় অপাঙক্তেয়। অথচ কাশ্মীরি জনগণ রুটি-কাপড়া-মোকামের জন্য বর্তমান নির্বাচনকে মেনে নিয়েছেন, কিন্তু তাদের পরিচিতির আকাঙ্খাকে বিসর্জন দেননি। কাশ্মীর প্রশ্নকে অনেকে পাকিস্তান ও ভারতীয় মুসলমানের সাথে জড়িয়ে মুসলমান প্রশ্ন হিসেবে দেখেন। কিন্তু যারা কাশ্মীরি সংস্কৃতি, কাশ্মীরি জীবনযাত্রা সম্পর্কে ওয়াকিবহাল তারা এই স্যাকুলার পরিচিতিকে কুর্নিশ না করে পারেন না। কাশ্মীরের স্বাধীনতা-উত্তর দীর্ঘ লড়াইয়ে কখনও কোন দাঙ্গার নজির নেই। কাশ্মীরি পণ্ডিতদের দাবার বড়ে মানিয়ে ভারতীয় ও কাশ্মীরি রাজনীতিতে অনেক ছক সাজানো হয়েছে এবং তাতে পণ্ডিতদের স্বার্থই বিঘ্নিত হয়েছে। তথাপি কাশ্মীরি পণ্ডিতরা এখনও নিজেদেরকে মনে প্রাণে সেই স্যাকুলার কাশ্মীরি সংস্কৃতির অবিচ্ছেদ্য অঙ্গই ভাবেন। সব সমস্যার সমাধান সম্ভব যদি সমস্যাকে রাষ্ট্র শক্তির মদমত্ততায় দেখা না হয়, দেখা হয় ভুক্তভোগী মানুষের দৃষ্টি থেকে। এভাবে দেখা পথ দিয়েই সমাধান সম্ভব। পথমধ্যে অনেক ডিপ্লোম্যাসি চলতে পারে, কিন্তু শেষ বিচারে সব প্রচেষ্টাতে তারাই থাকা উচিত কেন্দ্রীয় ভূমিকায় যাদের পরিচিতির আকাঙ্খার নিস্পত্তি হবে। নাহলে গণতন্ত্র ও স্বাধীনতা শব্দদ্বয়ের কোন মানেই থাকে না এবং মানুষের সমস্যার কোন সমাধান হয় না। কারণ স্বাধীনতা হীনতায় কে বাঁচিতে চায় হে, কে বাঁচিতে চায়।

স্বাধীনতা ও মানবিক সম্পর্ক

স্বাধীনতার বিষয়টি স্তরীভূত। একটি স্তর সরালে আরেকটি স্তর উন্মোচিত হয়। একটি বাঁধন ছিন্ন হলে, অন্য বাঁধন দৃশ্যমান হয়। কিন্তু শক্তিমত্তার দৃশ্য নিয়ন্ত্রণকে চ্যালেঞ্জ না জানিয়ে মানুষে মানুষে সম্পর্কের মধ্যে বাজারের কেনাবেচার অদৃশ্য শক্তিকে আঘাত করা যায় না। এভাবে স্তরে স্তরে সজ্জিত স্বাধীনতার প্রশ্নকে সমাধানের মাধ্যমেই মানব সভ্যতা পৌঁছতে পারে তার ঈপ্সিত লক্ষ্যে যেখানে বহুস্তরীয় ও সর্বত্র বিন্যস্ত জটিল অমানবিক সম্পর্ক প্রতিস্থাপিত হবে মানবিক সম্পর্কে।   

আমাদের সমকালের জন্য অনীক লস্করের লেখা ধারাবাহিক গল্পের এটি হচ্ছে ষষ্ঠ পর্ব

Posted by স্বাভিমান

(আমাদের সমকালের জন্য অনীক লস্করের লেখা ধারাবাহিক গল্পের এটি হচ্ছে ষষ্ঠ পর্ব। পঞ্চম পর্বের শেষে মাথায় আঘাত লেগে কুলেন্দ্র অচেতন, তারপর .........) 
জ্বরের ঘোরে কুলেন্দ্র বিড় বিড় করে। ‘ওই উঠ, ফেয়ারওয়েল ফাংশনঅ জাইতে নায় নি’ – রণেনের ডাকে কুলেন্দ্র সাড়া দেয় না। শিলচরের বহুতল ফ্ল্যাট বাড়ির একটি ফ্ল্যাট ভাড়া নিয়েছে তারা চার বন্ধু। ফ্ল্যাটের মালিকনি থাকেন ওই বাড়িরই আরেকটি ফ্ল্যাটে। রণেন সহ তাদের তিনজনের আগের থেকেই পরিচয় ছিল। তারা চারবন্ধু মিলেই প্রথমে ভাড়া নিতে চেয়েছিল, কিন্তু তাদের মধ্যে একজন মুসলিম বন্ধুকে বাড়ির মালিকনির আপত্তিতে মধুরবন্দের কোন এক বাড়িতে ভাড়া নিতে হয়। ‘আমার কোন আপত্তি নাই, কিন্তু সমবায় সমিতির অন্য সদস্যরা পরে ক্যাচাল করতে পারে, তোমরা আর কেউরে জোগাড় কইর‍্যা নেও’ – মালিকনির এই কথা সরাসরি তাদের বন্ধুকে তারা জানায়নি। ওই বন্ধুটি শহরতলির মধুরবন্দে নিজে থেকেই ঘর খুঁজে নিয়েছে, হয়ত এই নিয়ম সে আগে থেকেই আঁচ করতে পেরেছে। অগত্যা আরেকজন সাথীর জন্য তাদের অপেক্ষা করতে হয়। হপ্তাদিনের মধ্যেই ঘর খুঁজতে আসা তাদের সমবয়সী একজন জুটে যায়। ওই নতুন বন্ধুটির মা ছোটভাইকে নিয়ে লক্ষীপুরের গঞ্জ-শহরে থাকেন। তার বাবা দাদুর একমাত্র সন্তান। দিদা তার জন্মের আগেই মারা গেছেন। তার দাদু বরাক নদির ওপারে কয়েক কিয়ার ক্ষেতের জমি বাগি দিতেন, তাতে বছরের পরিবারের চালের সংকুলান তো হতোই, কিছু বিক্রিও করতেন। এছাড়া লক্ষিপুর বাজারে ছিল একটি স্টেশনারী দোকান যা তিনি নিজে দেখাশোনা করতেন। তার বাবা বিএ পাশ করার আগেই প্রেম করে বিয়ে করে ফেলেন। তার কয়েকবছর পর তার  দাদুও মারা যান। জমি ও দোকান থেকে আয়ও কমতে থাকে। এছাড়া দোকানকে আরও বড় করার জন্য ব্যাঙ্ক থেকে কিছু ধার নিয়েছিলেন তার দাদু। দাদু অকস্মাৎ মারা যাওয়ায় পরিবারে খানিকটা আর্থিক সংকটও দেখা দেয়। কিন্তু দাদুর মৃত্যুর কয়েক বছরের মধ্যেই তার বাবা এসিএস পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে যান। জমি ও দোকান বিক্রি করে লক্ষীপুরেই ভাল সরকারি পদে চাকরিও জুটিয়ে নেন। সে তখন নেহেরু কলেজে উচ্চ-মাধ্যমিক দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। একবছরের মধ্যেই তার বাবা তারজন্য মোটর সাইকেল কিনে দেন, লক্ষীপুরের বাড়িকেও খানিকটা আধুনিক করে তোলা হয়। মাস্টার বেডরুম সংলগ্ন টয়লেট ও বাথরুম, ছেলেদের জন্য পৃথক ঘর, গ্যাস্টরুম, সবার জন্য আরেকটি আধুনিক টয়লেট ও বাথরুম বানানো হয়, যদিও মূল কাঠামোটা আসাম-টাইপই রেখে দেওয়া হয়। কিন্তু কিছুদিনের মধ্যেই তারা এই পরিবেশে হাফিয়ে উঠেন। বড় মাপের অফিসার ও তার পরিবারের সদস্যরা পরশিদের সাথে আর আগের মত খোলাখুলি মেলামেশা করতে পারেন না। সাক্ষাতে সৌজন্যমূলক আলাপচারিতা থাকলেও, আগের মত বাড়িতে আনাগোনা একেবারেই বন্ধ। দুপক্ষেরই বাধো বাধো ঠেকে। বাড়িতে অফিসের গাড়ি থাকে, থানার কর্তারাও তদ্বির করতে গাড়িটারি নিয়ে আসেন। এভাবে লক্ষিপুরে থাকাটা তাদের কাছে বেশ মুস্কিল হয়ে উঠে, এছাড়া ছেলের পড়াশোনার জন্যও শিলচরে চলে যাওয়া জরুরি। তাই শিলচরে একটি ভাল ফ্ল্যাট কেনার জন্য খোঁজখবর করতে শুরু করেন তার বাবা। কিছুদিনের মধ্যেই শিলচর অম্বিকাপট্টিতে একটি ভাল ফ্ল্যাটের সন্ধানও পেয়ে যান। পরিবারকে শিলচর পাঠিয়ে দিয়ে তিনি লক্ষীপুরে থাকবেন এবং শনি-রোববারে ছুটিতে শিলচর যাবেন - এরকমই এক পরিকল্পনা মাথায় রেখে শিলচরে ফ্ল্যাট কেনার সিদ্ধান্ত নেন তার বাবা। কিন্তু এভাবেই একদিন ফ্ল্যাট দেখে শিলচর থেকে লক্ষিপুর ফেরার পথে এক অভাবনীয় পথ-দুর্ঘটনায় তার বাবার মৃত্যু হয়। ঘটনার এই আকস্মিকতায় সবকিছু ওলটপালট হয়ে যায়। বাবার পরিচিতদের সহায়তায় ওই অফিসেই তার মার কেরাণির চাকরি জোটে যায়। তাতে দুই ছেলের পড়ার খরচ ও সাংসারিক ব্যয় সংকুলান হয়, কিন্তু সৌখীন জীবন যাপনে রাশ টানতে হয়। পড়শিদের সাথে গুমোট ভাবটাও ধীরে ধীরে কাটতে শুরু করে। অগত্যা লক্ষীপুরেই তাদের থেকে যেতে হয়, এছাড়া তাদের গত্যন্তরও ছিল না। কলেজের পাঠ সাঙ্গ করে বড় ছেলে বিজন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়, পাকেচক্রে কুলেন্দ্রদের সাথে চারজনের এই মেসে সে আশ্রয় নেয়।
উল্টোদিকের ফ্ল্যাটের পলাশ স্যারকে দেখলেই কুলেন্দ্রর পিত্তি জ্বলে যায়। সুঠাম গঠন,  শিলচরের অভিজাত কলেজের পঞ্চাশোর্ধ্ব এই অধ্যাপক সকাল-বিকেল দু’বেলা দুই ব্যাচ ছাত্র পড়ান। বিকেলের ব্যাচ পড়ানো শেষ হলেই, কুলেন্দ্রদের মেসে এসে উপদেশ দেওয়া তাঁর রুটিন হয়ে দাঁড়িয়েছে। এমনিতে সবসময়ই এক কৃত্রিম গাম্ভীর্য বজায় রাখেন। চলনে-বলনেও রয়েছে তার গাম্ভীর্য। মেপে কথা বলেন, মেপে হাসেনও। মেসে এসে বেশিক্ষণ থাকেন না, যতক্ষণ থাকেন ক্যারিয়ার সংক্রান্ত উপদেশ দিয়ে যান, কুলেন্দ্ররা সবসময়ই শ্রোতা। হাজার হোক অধ্যাপক, তাঁর অভিজাত বংশবৃত্তান্ত তিনি প্রথম দিনই দিয়ে রেখেছেন। ক্যারিয়ারের বিষয় নিয়ে কুলেন্দ্র ছাড়া বাকী তিনজনকে নিয়েই তিনি বেশি চিন্তিত। বিশেষ করে বিজনের প্রতিই তাঁর আগ্রহটা একটু বেশি, কারণ প্রথম দিন বিজনের মা যখন এসেছিলেন এই অধ্যাপকও সেখানে উপস্থিত। অধ্যাপক জানতে পেরে বিজনের মা বিজনের প্রতি খেয়াল রাখার জন্য তাঁকে বিশেষ অনুরোধ করেন। সে থেকে বিজনের প্রতি তাঁর একটু বেশি নজর। তাঁর ধারণা কুলেন্দ্রর বিশেষ চিন্তার কারণ নেই, কারণ জাতি-কোটা থাকার সুবাদে তার কিছু একটা জুটে যাবে, নিদেনপক্ষে গ্রামে ফিরে গিয়েও রোজগারের কিছু একটা বন্দোবস্ত করতে পারবে। কিন্তু শিলচরের এই বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশুনা করে বাকীদের ভবিষ্যত অনিশ্চিত। বাকী তিন বন্ধুই উঁচু পদে সরকারি চাকুরীয়ান পরিবার থেকে আসা, সুতরাং তাদেরকে প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নিতে হবে। তাঁর ধারণা এসংক্রান্ত টিপস দেওয়ার ক্ষমতা তিনি ছাড়া এঅঞ্চলে আর কোন অধ্যাপকের নেই। উপদেশের পর তিনি যখন গাত্রোত্থান করেন, তাঁর গাম্ভীর্যপূর্ণ তাচ্ছিল্যভরা মুচকি হাসি কুলেন্দ্রর গায়ে যেন আগুন ছিটিয়ে দেয়। বিজনও তাঁকে সহ্য করতে পারে না, কিন্তু কুলেন্দ্রর তাঁর প্রতি প্রচণ্ড চাপা ক্রোধ নিয়ন্ত্রণে রাখতে গিয়ে মস্তিষ্কে বিস্ফোরণ ঘটে। সে দু’হাত তুলে তাঁর গলা লক্ষ্য করে এগিয়ে যায়, মনে মনে গালি পাড়ে, ‘শালা টিচারি দেখাইতে আইছে, চুতমারানির শাড়াশি রগ ছিড়ি লাইতাম’।
কুলেন্দ্রদের মেসের বাদিকের ফ্লেটে থাকেন সত্তর ছুঁই ছুঁই এক বৃদ্ধ, তাঁর ছেলে, ছেলের বউ ও নাতি। এই বৃদ্ধের সাথে কুলেন্দ্রর বেশ ভাব হয়ে যায়। কুলেন্দ্র যেদিন বিশ্ববিদ্যালয়ে যায় না, সেদিন এই বৃদ্ধের সাথে গল্প করে কিছু সময় কাটায়। চাকুরীয়ান ছেলে, ছেলের বউ ও নাতি যে যার কাজে বেরিয়ে যায়, বৃদ্ধ দিনের বেলা একাই থাকেন। ছেলে ব্যাঙ্কে চাকুরি করে, বউ শিক্ষিকা ও নাতি পলিটেকনিক পাশ করে এক আইটি কোম্পানীর স্থানীয় ম্যানেজার হিসেবে কাজ করে। মোবাইল টাওয়ার নির্মাণ ও মেরামতির কাজ দেখাশুনা করা, জমি অধিগ্রহণের জন্য প্রশাসনিক দপ্তরে তদ্বির করা এগুলো কাজ করতে গিয়ে তাকে বরাক উপত্যকার বিভিন্ন জায়গায় ঘোরাঘুরি করতে হয়। তাই দশ হাজার টাকা ফিক্সড সেলারি ছাড়া টিএ-ডিএ মেলে, ঠিকাদারদের থেকেও কিছু উপরি পাওনা জুটে। কিন্তু ভবিষ্যত সুরক্ষিত না হওয়ায় সে অন্য কোম্পানীতে চাকরির চেষ্টায় আছে। বৃদ্ধের নামে শিলচরেই আরেকটা বাড়ি আছে যেখানে ছোট ছেলে তার পরিবার নিয়ে থাকে। দুই মেয়ে বিয়ে হয়ে অন্যত্র চলে গিয়েছে। ছোট ছেলে ও ছেলের বৌ মাঝে মাঝে ঐ ফ্ল্যাট বাড়িতে আসে। ওরা যেদিনই আসে, বন্ধ কপাটের ওপাশ থেকে চিৎকার চেঁচামেঁচির আওয়াজ শোনা যায় – বোঝা যায় কিছু একটা নিয়ে জোর তর্কাতর্কি চলছে। কুলেন্দ্রর ঔৎসুক্য বাড়তে থাকে। বৃদ্ধের সাথে পরিচয়ের পর সে রহস্য জানতে পারে। প্রথম দিনেই এই বৃদ্ধের প্রতি কুলেন্দ্রর এক মমত্ববোধ জাগ্রত হয়। বৃদ্ধ তাঁর অতীত নিয়ে যখন কথা বলেন তাঁর মুখাবয়বে এক তৃপ্তির ভাব ফুটে উঠে – বলিরেখাগুলি একে অপরের সাথে বিকর্ষিত হয়ে উজ্জ্বল ত্বকের ঝলক দিতে থাকে। সিলেটে বৃদ্ধের বাবার জমিদারি ছিল। গ্রামের পাঠশালা ও মফঃস্বল শহরের উচ্চতর-বিদ্যালয়ে পড়ার সময় তাঁর  ছায়াসঙ্গি ও সবচাইতে অন্তরঙ্গ বন্ধু পাশের বাড়ির আমিনূলকে নিয়ে অনেক মজাদার ঘটনার কাহিনী শোনান তিনি। দেশভাগের বলি হয়ে ওপারে চলে আসার কথা বলতে গিয়ে তাঁর চোখেমুখে শোকের অভিব্যক্তি ফুটে উঠে, আবার পরক্ষণেই উৎফুল্ল হয়ে বলেন, ‘অই আমিনূলের মদতেই কিছু অস্থাবর সম্পত্তি আমি ইফার নিয়ে আইতে পারছি, কিন্তু ওখন মনে হয় ওইটাউ কাল হইছে – খালি হাতে আইলেউ বালা আছিল’। সেই অস্থাবর সম্পত্তি বিক্রি করে শিলচরে জমি কিনে বাড়ি বানান এবং টুকটাক ব্যবসা করে কিছু আয়েরও বন্দোবস্ত হয়। পরবর্তীতে যুদ্ধের বাজারে আর্মি-সাপ্লাই দিয়ে বেশ কিছু অর্থ উপার্জন করেন এবং চার ছেলে মেয়ে নিয়ে ছ-জনের পরিবারে সচ্ছলতা আসে। ছোট ছেলে পড়াশুনা সাঙ্গ করে কনস্ট্রাকশন কোম্পানী খুলতে চায়। ইদানীং বড় বড় কোম্পানীগুলো বিভিন্ন ধরনের কনস্ট্রাকশনের কাজের বরাত নিচ্ছে এবং তারা স্থানীয় ঠিকাদার কোম্পানীদের উপ-ঠিকা দিয়ে দেয়। একাজে এখন ভালই মুনাফা। তাছাড়া সড়ক নির্মাণ, বিভিন্ন ধরনের টাওয়ার লাইন বানানো ইত্যাদি ক্ষেত্রে যদি প্রশাসন ও গ্রামীণ দালালদের নেটওয়ার্কিং-এর কাজটা করা যায় জমি-অধিগ্রহণের ক্ষেত্রেও ভাল কামিয়ে নেওয়া যায়। কোম্পানীর পরিকাঠামোর জন্য এক মোটা অঙ্কের অর্থ চাই। ছোট ছেলের দাবি বাড়ির অর্ধেক জমি বিক্রি করে এই অর্থ তাকে দিতে হবে। কিন্তু বৃদ্ধ কিছুতেই রাজি নন – সিলেটের বাড়ি ছেড়ে এসে তিলে তিলে আজকের এই আবাস গড়ে তুলেছেন যার প্রতি তাঁর একধরনের আসক্তি জন্মে গেছে। এনিয়ে বাড়িতে প্রতিদিন অশান্তি। ছোট ছেলের অভব্য আচরণ মাত্রা ছাড়িয়ে যায় এবং বাধ্য হয়ে বড় ছেলের পরিবারের সাথে তিনি এই ফ্ল্যাটে চলে আসেন। এই ফ্ল্যাট কেনার সময় তিনি তাঁর ব্যাঙ্কে জমা অর্থের পুরোটাই দিয়ে দেন। বড় ছেলে সামান্য লোন নেয় এবং ফ্ল্যাটটা তার ও তার স্ত্রীর যৌথ মালিকানায় কেনে। বাড়ি ছেড়ে এসে তিনি ছোট ছেলের দাবি মেনে নেবেন বলে মন স্থির করে ফেলেন। যেহেতু ব্যাঙ্কের জমা অর্থ তিনি বড় ছেলেকে দিয়ে দিয়েছেন, তাই ছোট ছেলে এখন পুরো বাড়িটাই দাবি করতে শুরু করে। এতে দুই ভাইয়ে তুমুল বাক-বিতণ্ডা বেঁধে যায়। দুই ভাই শেষ পর্যন্ত তাকেই দোষী সাব্যস্ত করে এবং কলহের তীর তাঁর অকর্মণ্যতাকেই আক্রমণ করে বসে। তিনিও ধীরে ধীরে নিজেকে অকর্মণ্য ভাবতে শুরু করেন, পিতা-পুত্রের সম্পর্কের মাধ্যম যে সর্বনাশা সম্পত্তি তার ধ্বংসের মধ্যেই মুক্তির পথ খোঁজেন। সম্পত্তিহীন কুলেন্দ্র এই বৃদ্ধের হাত ধরে টান দেয়। দুজনে দ্রুত পায়ে হাঁটতে শুরু করে। আঁধার কালো টানেলের মধ্য দিয়ে হাঁটছে তো হাঁটছেই, যতই এগোয় টানেল শেষে আবছা আলোর রেখা ততই দূরে চলে যায়। হাঁটতে হাঁটতে কুলেন্দ্র হাঁফাতে থাকে, বৃদ্ধ তার গায়ে এলিয়ে পড়ে পা টেনে টেনে চলেছেন। হঠাৎ বিকট আওয়াজে টানেলটি ফেটে যায়। ব্লাস্টিং-ব্লাস্টিং, জগদ্দল পাথর ভাঙার ব্লাস্টিং। চোখের সামনে বৃদ্ধ ও অধ্যাপকের মৃতদেহ। কুলেন্দ্র চিৎকার দিয়ে লাফিয়ে উঠে। ঘামের জলে পুরো বিছানা ভিজে উঠেছে। গাঁয়ের মাঠ থেকে দমকা হাওয়া জোৎস্নার আলোর সাথে মাখামাখি করে খোলা জানালার ফাঁক দিয়ে কুলেন্দ্রর বিছানার উপর আছড়ে পড়ে। কুলেন্দ্রর দেহের তাপ নেমে গেছে – শরীর হীম-শীতল, মন্ত্রমুগ্ধের মত কুলেন্দ্র আবার বিছানায় নেতিয়ে পড়ে।

বিমা ক্ষেত্রে বিদেশি বিনিয়োগ কার স্বার্থে

Posted by স্বাভিমান

বিমা ক্ষেত্রে বিদেশি বিনিয়োগ কার স্বার্থে
অরূপ বৈশ্য

যুগশঙ্খ, ৪ আগস্ট সংখ্যা
আর্থিক সংস্কার কর্মসূচী
বিমা প্রকল্প বিশেষ করে জীবন বিমা হলো এক দীর্ঘমেয়াদি চুক্তি যার নিয়ম মেনে পলিসি-হোল্ডারদের ভবিষ্যত দাবি অনুযায়ী বিমাকারী অর্থ আদায় দেয়। জনগণের ভবিষ্যত সামাজিক সুরক্ষার জন্য এই সঞ্চয় দীর্ঘমেয়াদি হওয়ায় বিমা প্রকল্পে জমা অর্থ দেশের উন্নয়নমূলক কাজে বিনিয়োগ হয় ও জাতীয় পুঁজি গঠনে সহায়তা করে। যেহেতু জাতীয় উন্নয়নের জন্য সরকারই একমাত্র দায়বদ্ধ ও প্রাতিষ্ঠানিকভাবে উত্তরদায়ী, তাই এভাবে সঞ্চিত জনগণের অর্থের উপর জাতীয় স্বার্থে সরকারেরই নিয়ন্ত্রণ থাকা উচিত। ভারতবর্ষে কল্যাণকামী রাষ্ট্রের এই ধারণা বদলাতে শুরু করে যখন ১৯৯১ সালে সে সময়কার কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী মনমোহন সিং নয়া আর্থিক নীতির অধীনে কাঠামোগত পুনর্গঠন বা আর্থিক সংস্কার কর্মসূচী  চালু করেন। স্বাধীনতা-উত্তর পর্যায়ে মিশ্র-অর্থনীতির নামে ভারতীয় রাষ্ট্র পুরোনো বিদেশি প্রযুক্তি ও ভারী যন্ত্রপাতি আমদানির উপর নির্ভরশীল এক পুঁজিবাদী পথ অনুসরণ করায় আমদানী-রপ্তানী ভারসাম্যের প্রশ্নটি সংবেদনশীল হয়ে পড়ে। বর্তমানে যা আমদানী করা হয় তা যাতে ভবিষ্যতে নিজ দেশে উৎপাদন করা যায় অর্থাৎ ইমপোর্ট সাবস্টিট্যুশনের নীতির কথা মুখে বলা হলেও স্বার্থান্বেষি শ্রেণির মন জয় করার জন্য এই নীতি বাস্তবায়নে অভ্যন্তরীণ কাঠামোগত বাধাগুলি দূর করার কোন সদিচ্ছা দেখানো হয় না। ফলে নব্বইয়ে তেলের মূল্যবৃদ্ধি হওয়ায় রপ্তানী থেকে আমদানীর পাল্লা ভারী হয়ে পড়ে ও বিদেশি মূদ্রার অভাব দেখা দেয় যা নব্বইয়ের ‘ব্যালেন্স অব পেমেন্ট ক্রাইসিস’ হিসেবে বহুল পরিচিত। ফলে ভারত সরকারকে কাঠামোগত পুনর্গঠন বা আর্থিক সংস্কার কর্মসূচীর শর্তে আইএমএফ-ওয়ার্ল্ড ব্যাঙ্ক থেকে ধার নিতে হয়। এই শর্তাবলির মধ্যে প্রধান শর্ত হচ্ছে এই যে ভারত সরকারকে সবকিছু থেকে সরকারি নিয়ন্ত্রণ উঠিয়ে দিতে হবে এবং দেশি-বিদেশি ব্যাক্তি পুঁজিকে অবাধ মুনাফা করার সুযোগ করে দিতে হবে। এই উদার আর্থিক নীতির নিয়ম মেনেই ২০০০ সালে বিমা ক্ষেত্রে ব্যাক্তি মালিকানার ও ২৬% পর্যন্ত বিদেশি পুঁজি বিনিয়োগের অনুমতি দিয়ে আই.আর.ডি.এ আইন, ২০০০ জারি করা হয়।

দ্বিতীয় প্রজন্মের সংস্কার
বিদেশি বিনিয়োগ দু’ভাবে হতে পারে। কোন বিদেশি কোম্পানী দেশিয় কোম্পানীর শেয়ার সরাসরি নির্দিষ্ট কোম্পানী থেকে কিনে নিতে পারে এবং সেক্ষেত্রে সেই কোম্পানীর বোর্ডের ও পরিচালনার অংশীদার হয়ে যাবে। আবার শেয়ার বাজার থেকে পোর্টফোলিও বিনিয়োগের মাধ্যমে সেই বিমা কোম্পানীর শেয়ার কিনে নিতে পারবে এবং সেক্ষেত্রে কোম্পানী বোর্ড ও ম্যানেজম্যান্টের কোন অংশীদার হতে পারবে না। সেবি’র (SEBI) নিয়ম অনুযায়ী শেয়ার বাজার থেকে বিদেশি বিনিয়োগকারীরা ২৪ শতাংশের বেশি ক্রয় করতে পারবে না, তবে অন্যান্য শেয়ার-হোল্ডারদের অনুমতি নিয়ে তা বাড়ানো যাবে। আই.আর.ডি.এ’র ২০১৪ সালের রিপোর্ট অনুসারে জীবন বিমা ক্ষেত্রে ২৪টি ও অন্যান্য বিমা ক্ষেত্রে ২১টি কোম্পানী রয়েছে। তারমধ্যে জীবন বিমায় ১টি ও অন্যান্য বিমা ক্ষেত্রে ৪টি সরকারি কোম্পানী রয়েছে। জীবন বিমায় মোট বিদেশি বিনিয়োগ ৬০৪৫.৯ কোটি টাকা যা মোট পুঁজির ২৩.৬% এবং অন্যান্য বিমায় রয়েছে ১৫৮৬.৬ কোটি যা মোট পুঁজির ১৬.৬৭%। সাহারা ছাড়া ২৩টি ব্যাক্তি মালিকানাধীন কোম্পানীর সবকটি কোম্পানী তাদের মোট বিনিয়োগের নির্ধারিত ২৬ শতাংশের প্রায় পুরোটাই বিদেশি কোম্পানীর কাছে বিক্রি করে দিয়েছে। বর্তমান এনডিএ সরকার বিমা ক্ষেত্রে বিদেশি বিনিয়োগের ২৬% সর্বোচ্চ সীমা বাড়িয়ে ৪৯% করার জন্য ক্যাবিনেট সম্মতি দিয়ে দিয়েছে এবং এই প্রস্তাব পার্লামেন্টের অনুমোদনের অপেক্ষায়। ইউপিএ সরকারের প্রথম প্রজন্মের সংস্কারের হাত ধরে দ্বিতীয় প্রজন্মের সংস্কার কর্মসূচী দ্রুতগতিতে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার এই সরকারের মনোবাসনা অনুযায়ী এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। বিগত কংগ্রেস সরকারের অর্থমন্ত্রী পি. চিদাম্বরম তাঁর কার্যকালেই এই প্রস্তাব রেখেছিলেন, কিন্তু কংগ্রেসের অভ্যন্তরীণ শক্তি ও সহযোগীদের চাপের ফলে তিনি এই প্রস্তাব কার্যকরী করতে পারেননি। ভারত সরকার ৪৯ শতাংশ বিদেশি প্রত্যক্ষ বিনিয়োগ ফরেন ইনভেস্টম্যান্ট প্রমোশন বোর্ডের (FIPB) মাধ্যমে করার প্রস্তাব দিয়ে দেখাতে চাইছে যে কোম্পানীর নিয়ন্ত্রণ ভারতীয় প্রমোটারদের হাতে থাকবে। এটা আসলে একটা প্রহেলিকা। বিদেশি বিনিয়োগের ক্ষেত্রে আসল রহস্যটা যাচাই করে দেখা যাক।

ভারতীয় জীবন বিমা বনাম প্রাইভেট কোম্পানী
৩৬ কোটি পলিসি নিয়ে ভারতীয় বিমা ক্ষেত্র পৃথিবীর সর্ববৃহৎ ক্ষেত্র এবং আগামী পাঁচ বছর এই ক্ষেত্রের দ্রুত বিকাশের পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে। দেশের মোট জনসংখ্যার ৬৫ শতাংশের বয়স ৩৫ বছরের কম। সুতরাং যারা বিদেশি বিনিয়োগের পক্ষে তাদের যুক্তি হলো এই ক্রমঃবিকাশমান সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে গেলে প্রচুর বিনিয়োগের প্রয়োজন এবং বিভিন্ন কোম্পানীর মধ্যে প্রতিযোগিতা হলে পলিসি-হোল্ডারদের সংখ্যা বাড়বে এবং পলিসি-হোল্ডাররা লাভবান হবে। বিশ্বের উন্নত দেশের বিমা বাজার এক সংকটের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে এবং সেক্ষেত্রে বিমায় বিদেশি বিনিয়োগকারীদের কাছে ভারতীয় বাজার অত্যন্ত লোভনীয়। উপরন্তু পেনশন আইন অনুযায়ী পেনশনে বিদেশি বিনিয়োগের মাত্রা বিমা ক্ষেত্রের অনুরূপ হবে। অর্থাৎ এই দুটি ক্ষেত্রে ভারতীয় জনগণের জমা অর্থ ব্যাক্তি মালিকরা তাদের মুনাফার কথা বিবেচনায় রেখে অন্যত্র বিনিয়োগ করবে। সরকারি নিয়ন্ত্রণহীন এই ব্যাক্তি-মালিকানাধীন কোম্পানীদের কাছে পলিসি-হোল্ডারদের স্বার্থ নয়, মুনাফার স্বার্থই প্রধান। একটি হিসাবে দেখা গেছে, প্রাইভেট কোম্পানীর ক্ষেত্রে গড় বার্ষিক প্রিমিয়াম ৬০,০০০ টাকা, অন্যদিকে এলআইসি’র গড় প্রিমিয়াম ৯০০০ টাকা। এই ব্যবধান থেকে এটা স্পষ্ট যে সরকারি বাধ্যবাধকতা থাকায় এলআইসি’র পলিসিগুলো অনেক বিস্তৃত ও অত্যন্ত কম আয়ের লোকদের জন্যও উপযোগী। বেশি আয়ের পলিসি-হোল্ডাররা যদি প্রাইভেট কোম্পানীতে চলে যায়, তাহলে এলআিইসিকেও প্রতিযোগিতায় টিঁকে থাকার জন্য বাধ্য হয়ে প্রাইভেট কোম্পানীর মত তার পলিসিকে পুনর্গঠন করতে হবে। উপরন্তু মুনাফা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ও বিদেশি বৃহৎ পুঁজির চাপে প্রাইভেট কোম্পানীগুলো একজোট হয়ে বা অধিগ্রহণের মাধ্যমে নিজেদের মধ্যে প্রতিযোগিতা রোধ করে একচেটিয়া ব্যবসার মাধ্যমে সরকারি ক্ষেত্রের চরিত্র পালটে দেবে। অর্থমন্ত্রী বলেই দিয়েছেন যে সব কোম্পানী যাতে সবার পলিসি বিক্রি করতে পারে এবং কর্পোরেট এজেন্ট হয়ে উঠে সে নিয়ম চালু করা হবে। ২০১০-১১ সালের একটি হিসাবে দেখা গেছে যে পলিসি তামাদি হয়ে যাওয়ার অনুপাত (Lapsation ratio) এলআইসি’র ক্ষেত্রে মাত্র ৫%, প্রাইভেট কোম্পানীগুলোর ক্ষেত্রে সেটা ৪২%। প্রাইভেট কোম্পানীর পলিসি-হোল্ডাররা প্রায়শঃই এক বছরের পর আর প্রিমিয়াম দেন না, কারণ যেভাবে বোঝানো হয় একবছর পর তাদের কাছে বিমা-প্রকল্পগুলি সেরকম লাভজনক মনে হয় না। এলআইসি’র ক্ষেত্রে শেয়ার বাজারে বিনিয়োগের জন্য ১০% সীমা নির্ধারণ করা আছে, অর্থাৎ এলআইসি তার জমা পুঁজির (ভারতীয় জনগণের অর্থ) বড় অংশই বিনিয়োগ করে উন্নয়নমূলক পরিকাঠামোগত প্রকল্পে। এলাআইসি’র জমা ধনরাশি জাতীয় পুঁজি গঠনের কাজে লাগে। অন্যদিকে প্রাইভেট কোম্পানীগুলি শেয়ারে বিনিয়োগ করে পলিসি-হোল্ডারদের জমা অর্থের রিস্ক পলিসি-হোল্ডারদের ঘাড়েই চাপিয়ে দেয়। শেয়ার বাজারের অনিশ্চয়তা পলিসি-হোল্ডারদের জমা অর্থের পুরোটাই হাপিস হয়ে যাওয়ার দুশ্চিন্তায় কালঘাম ছুটে। এবার ক্রমবর্ধমান বিমা বাজারের গালগল্প ও জাতীয় স্বার্থের জয়গান বিচার করে দেখা যাক।

বিমা বাজার ও জাতীয় স্বার্থ
সাধারণ যুক্তিতেই বোঝা যায় যে জনগণের হাতে সঞ্চয় করার মত ধন যত বাড়বে ততই বিমারাশি বাড়বে। এটাও দু’ভাবে হতে পারে। সাংসারিক ও অন্যান্য আনুষাঙ্গিক ব্যয় করার পর সঞ্চয় করার মত অর্থ থাকা লোকের সংখ্যা বৃদ্ধি করে, আবার যারা এখন সঞ্চয় করেন জনসংখ্যার সেই ক্ষুদ্র অংশের আয় বৃদ্ধির নীতির মাধ্যমে তাদেরকে বিমায় সঞ্চয় করতে অনুপ্রাণিত করে। যে কোন সরকার যদি দেশের স্বার্থ ও জাতীয় স্বার্থ মাথায় রাখে তাহলে তাকে প্রথম পথই অনুসরণ করতে হবে। কারণ দেশ মানে শুধু একটি ভূগোল নয়, দেশ মানে সেই ভৌগোলিক স্থানে বাসকারী মানুষ। সরকার যদি সেই স্বার্থ মাথায় রাখে তাহলে অর্থনীতিকে এমনভাবে পরিচালিত করতে হবে যাতে উৎপাদন, উৎপাদিকা শক্তি ও তার থেকে সাধারণের আয় বৃদ্ধি ঘটে এবং এই আয় বৃদ্ধির ফলে জমা পুঁজি উন্নয়ন খাতে ব্যয় করার জন্য সরকারের ঘরেই যায় তার জন্য বীমা-ব্যাঙ্কের মত আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর উপর সরকারি নিয়ন্ত্রণ রাখতে হবে। সেই পথই দেশীয় ও জাতীয় অর্থনীতির পথ। কিন্তু ইউপিএ ও এনডিএ সরকার দ্বিতীয় পথ অবলম্বন করেছে এবং বিমা ক্ষেত্রে বিনিয়োগের জন্য দেশিয় বাজার থেকে পুঁজি সংগ্রহ না করে প্রাইভেট মালিকদের বিনিয়োগের উপর নির্ভর করছে। দেশিয় ব্যক্তি-মালিকদের যেহেতু সেই ক্ষমতা নেই, তাই বিদেশি বিনিয়োগ। কিন্তু এই পদক্ষেপ যে দেশিয় অর্থনীতিকে চূড়ান্ত অনিশ্চয়তার দিকে নিয়ে যাচ্ছে এবং প্রাইভেট বিনিয়োগ যে কর্মসংস্থান সৃষ্টিরও সহায়ক না হতে পারে বিভিন্ন উন্নয়নশীল দেশের অভিজ্ঞতা থেকে সেটা আজ প্রমাণিত সত্য।

অনিশ্চিত ভবিষ্যত
২০০১ সালে যখন বীমা ক্ষেত্রে ব্যক্তি-মালিকদের জন্য খুলে দেওয়া হয়, তখন আমাদের অর্থনীতির বিকাশের হার ছিল ৮ থেকে ৯%। এই বিকাশের বড় অংশই ছিল ফাটকাবাজারে বিনিয়োগ নির্ভর। কিন্তু এই বিকাশের হার পড়ে যাওয়ায় বিগত দুই বছরে প্রাইভেট কোম্পানীগুলি তাদের ৩৪% শাখা বন্ধ করে দেয় এবং তাদের কর্মী সংখ্যার ৩০% ছাটাই করে দেয়। সংকাটাদীর্ণ বিশ্ব পুঁজিবাদী অর্থনীতির শেয়ার বাজারে ২০০৮ সালের থেকেও বড় ধ্বস যে কোন সময় নেমে যেতে পারে। পুঁজিবাদে বিশ্বাসী বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদরা পুঁথির পর পুঁথি লিখে প্রমাণ করছেন যে আজকের বিশ্বে ক্রমবর্ধমান সামাজিক অসাম্য আর্থিক বিকাশ বৃদ্ধির প্রতিবন্ধক। আমেরিকার মত উন্নত দেশের রাজনীতিবিদ ও চিন্তাবিদরাও এনিয়ে সাংঘাতিক দুশ্চিন্তায়। এটা দুর্ভাগ্যজনক যে বিশ্ব পুঁজির মায়ায় আমাদের মত দেশও সেই অসাম্য বৃদ্ধির নীতির পথেই হাঁটছে।

বরাক উপত্যকার প্রেক্ষিতে আধিপত্যের নতুন বয়ান ও বৌদ্ধিক দীনতা

Posted by স্বাভিমান

বরাক উপত্যকার প্রেক্ষিতে আধিপত্যের নতুন বয়ান ও বৌদ্ধিক দীনতা
অরূপ বৈশ্য

২৭ জুলাই, ২০১৪,
দৈনিক সাময়িক প্রসঙ্গ 
আত্মবিস্মৃত বাঙালি
বরাক উপত্যাকার প্রেক্ষিতে লিখতে বসলে বাঙালি প্রশ্নকে গুরুত্ত্ব আরোপ করতেই হয়, কারণ এই উপত্যকায় পরিচিতির দিক থেকে বাঙালিরাই বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠ। কিন্তু এই বাঙালির চালচিত্র গোটা বাঙালি জাতির গৌরবগাঁথার পাঁচালি দিয়ে শুরু করা যায় না। অনেকেই বলেন এবং যথার্থভাবেই বলেন যে আজকের বাঙালির বৌদ্ধিক কাঙালপনা নিহিত রয়েছে এই বয়ানে যে আজকের বাঙালি এক আত্মবিস্মৃত জাতি। বৃহত্তর বাঙালি জাতির একটি ধারা সবসময়ই নিহিত ছিল সমগ্র মানবসমাজ নিয়ে চিন্তা-চর্চার মধ্যে যাকে বাম বা মানবিক আন্তর্জাতিকতাবাদী ধারা হিসেবে নিঃসন্দেহে অভিহিত করা যায়। যেহেতু সমগ্রের চিন্তার মধ্যেই জ্ঞানের আসল রসদ লুকিয়ে থাকে, তাই এই ধারার আধিক্যের সময়েই বাঙালি জাতি প্রকৃতি বিজ্ঞান, সমাজ বিজ্ঞান ও সাহিত্য-সংস্কৃতির জগতে জন্ম দিয়েছে তার রত্নগর্ভাদের। সেই সময়গুলোর এক কালপঞ্জী তৈরি করে তার সামাজিক-ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপটের এক সুসমজ্ঞস্য ব্যাখ্যা করার প্রচেষ্টা করা যেতেই পারে। কিন্তু বর্তমান নিবন্ধ এক ভিন্ন উদ্দেশ্য নিয়ে লেখা। তথাপি প্রারম্ভে কিছু প্রাসঙ্গিক জটিল কথা বলে নেওয়া জরুরি।

সংকীর্ণ স্বার্থের প্রাধান্য
বর্তমান সময় এক সংকটকালীন সময়। প্রতিটি সংকটকালীন সময়ের সামগ্রিকতার অভ্যন্তরে আর্থিক, রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক, বৌদ্ধিক ইত্যাদি প্রতিটি ক্ষেত্রে আলাদা আলাদা বৈশিষ্ট্য ক্রমান্বয়ে পরিস্ফুট হতে থাকে। স্থান-কালের বিচারে যারা মানবসমাজের নির্ধারক ও নিয়ন্ত্রক শক্তি এই সংকট আসলে তাদেরকেই উদ্বেলিত করে তুলে, কারণ তারা ভীত সন্ত্রস্ত হয়ে উঠে এই ভেবে যে নির্ধারিত ও নিয়ন্ত্রিতরা মাথা তুলে দাঁড়িয়ে যেতে পারে। এই প্রক্রিয়া অনুধাবন করার প্রচেষ্টা খানিকটা জটিল বৌদ্ধিক চর্চা। কিন্তু এই চর্চাকে পাশ কাটিয়ে যাওয়ার প্রবণতাই আসলে বৌদ্ধিক সংকটের লক্ষণ। বাঙালি বৌদ্ধিক সমাজ, বিশেষ করে বরাক উপত্যকার মত পিছিয়ে পড়া এক অঞ্চলের স্থাণু বৌদ্ধিক চর্চা যে এই সংকটের গণ্ডি অতিক্রম করার ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধক, সেব্যাপারে দ্বিমত থাকার কোন কারণ নেই। একটা সময় ছিল যখন কে কীভাবে কোন বিষয়কে দেখছে অর্থাৎ দর্শনের প্রশ্নটি এক গুরুত্ত্বপূর্ণ আলোচ্য বিষয় ছিল। এখন বিশেষ করে আশির দশক থেকে, কার্যসিদ্ধিই আসল মন্ত্র হয়ে উঠেছে, সবকিছুই এখন ম্যানেজারিয়্যাল স্কিল। বেড়াল সাদা বা লাল যাই হউক, ইদুঁর মারলেই হলো। এই দক্ষতারই এক উজ্জ্বল প্রতিভূ হিসেবে হাজির করা হয়েছে আমাদের মাননীয় প্রধাণমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে। কিন্তু স্থূল চালচিত্র আমাদের ভবিষ্যত সমাজকে এক উজ্জ্বল ভিতের উপর দাঁড় করাতে পারে না। অথচ আত্মবিস্মৃত বাঙালি জাতি ইদুঁর ধরার এই সংকীর্ণ ছাঁটেই পা দিয়েছে বলে মনে হয়। ক্ষুদ্র স্বার্থের উর্ধে উঠে বাঙালির বৃহত্ত্বের বৌদ্ধিক চিন্তার বিস্তৃত হৃদয় বৃত্তি কখনোই প্রাধাণ্যকারী ভূমিকায় ছিল না। নাহলে বাঙালি জাতির বিভাজন বিরোধী ধারা কখনই পরাভূত হত না। ১৯০৫-এর বঙ্গভঙ্গ, ১৯১১-এর কলকাতা থেকে দিল্লিতে রাজধানী স্থানান্তরের মধ্য দিয়ে বঙ্গভঙ্গ রদ, ১৯৪৮-এর পুনরায় বঙ্গভঙ্গ এই সবকিছুতেই বাঙালি ভদ্রলোকদের সংকীর্ণ স্বার্থ চিন্তাই আসলে জয়লাভ করেছে। শেখর বন্দোপাধ্যায় ও জয়া চাটার্যির মত গবেষকরা বাংলার ও বাঙালি রাজনীতিতে ভদ্রলোক শ্রেণির ভূমিকার যে কূটিল দিককে নথিবদ্ধ করেছেন তা আমাদের চর্চার বিষয় হয়ে উঠে না। কারণ একটি সমান্তরাল ধারা হিসেবে গূঢ় রহস্যের অনুসন্ধানের জন্য বৌদ্ধিক চর্চা ও বিস্তৃত হৃদয়বৃত্তি প্রায় নিঃশেষিত এবং তাই চিন্তা-উদ্রেককারী বৌদ্ধিক অবদানও একেবারে তলানিতে। তাই বরাকের বুদ্ধিজীবী সমাজ যখন সঙ্গত কারণেই অসমীয়া উগ্রাজাতিয়বাদকে শঙ্কার বিষয় হিসেবে উপস্থাপন করেন তখন যান্ত্রিক সংজ্ঞায় এক অচল অনড় ধারণার মধ্যে নিজেকে আবদ্ধ করে রাখেন। আসামের উগ্রজাতিয়বাদী রাজনীতিকেও বাস্তব পরিস্থিতির বাস্তব ব্যাখ্যার হাতিয়ার দিয়ে বিচার করে দেখেন না। তার চাইতেও গুরুত্ত্বপূর্ণ কথা হচ্ছে এই যে এই বৌদ্ধিক চর্চা কখনোই  শ্রমজীবী মানুষের ঐক্য গড়ে তোলার প্রেক্ষাপট থেকে জাতি-ধর্মের বা পরিচিতির প্রশ্নকে বিচার করে না এবং ফলে উগ্রজাতীয়তাবাদ ও পরিচিতির প্রশ্ন সামগ্রীকতার বাইরে এক স্থাণু বিষয় হিসেবে উপস্থাপিত করার প্রবণতা প্রাধান্য পায়।

উগ্রজাতিয়তাবাদ ও বৌদ্ধিক দীনতা
শাসকীয় রাজনীতির ঘটনাপ্রবাহের পর্যবেক্ষণ আমাদেরকে সমাজের অভ্যন্তরীণ পরিবর্তনের ইঙ্গিত দেয় যা মনোযোগী দৃষ্টি দাবি করে। কিন্তু বরাকের বৌদ্ধিক সমাজ আসামের অতীত ইতিহাস ও সাম্প্রতিক ঘটনাবলিকে হেতুবাদের এক ছাঁচে ফেলে দেখতেই অভ্যস্ত, তাদের দৃষ্টি এর বাইরে কখনওই নিবদ্ধ হয়নি। আসু আন্দোলন শুরুর পূর্ববর্তী পর্যায়ে উগ্রজাতিয়তাবাদী কাঠামোর অভ্যন্তরে ‘আলি-কুলি-বাঙালির(হিন্দু ও মুসলমান)’ যে কংগ্রেসী ভারসাম্যের নমনীয় রাজনীতি প্রাধান্য বিস্তার করে ছিল, আসু আন্দোলন ও অগপ’র ক্ষমতারোহণ এই ভারসাম্যকে ভেঙে দিয়ে আগ্রাসী উগ্রজাতিয়তাবাদের প্রথম পর্যায়ের ইতি টানে এবং এক স্বাভাবিক মৃত্যুর পথে যাত্রার সূচনা করে। নেলী-গুহপুর-মোকালমোয়ায় বাঙালি মুসলিম বিরোধী দাঙা করার জন্য অসমীয়া আবেগে যারা ‘ওলাই আহিছিল’, তারা এই ছত্রছায়া থেকে বেরিয়ে যেতে আরম্ভ করে। পরবর্তীতে আলফার সন্ত্রাসবাদী রাজনীতিও জনসমর্থন হারানোর স্বাভাবিক পড়িণতি লাভ করে। এই দীর্ঘ পর্যায়ে অসমীয়া সমাজের অভ্যন্তরিণ শ্রেণি বিভাজন যে আরও বিস্তৃত হয়ে শ্রেণি সম্পর্কের পুনর্বিন্যাস ঘটাচ্ছে তার ইঙ্গিত পাওয়া যায় যখন অসমীয়া মধ্যশ্রেণির ইতিহাসের লেখক ড০ প্রফুল্ল মহন্ত অসম সাহিত্য সভার মত অসমীয়া জাতীয় সংগঠনের প্রকাশ্য অধিবেশনে তাঁর সুচিন্তিত লিখিত ভাষণে অসমীয়া সমাজের আজকের দূরবস্থার জন্য অসমীয়া বর্ণহিন্দু সমাজ, সাহিত্য সভা ও কংগ্রেসের সংকীর্ণ নীতিকে দায়ী করেন। এধরনের সাহসী প্রকাশ্য বয়ান উত্থাপিত হওয়া অসমীয়া সমাজের অভ্যন্তরিণ শ্রেণি-সম্পর্কের পুনর্বিন্যাসের এক অন্তর্বর্তীকালকে সূচিত করে। এমতাবস্থায় ষাটের দশকের কৃষক আন্দোলনে নিহিত ধারায় এক নতুন রূপে বাঙালি-অসমীয়া নির্বিশেষে মেহনতি মানুষের ঐক্যের প্রশ্নটি আবারও রাজনীতির কেন্দ্রবিন্দু হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দেয়। কিন্তু মূলস্রোতের বামপন্থী বুদ্ধিজীবীদের বৌদ্ধিক কাঙালপনা এই সম্ভাবনাকে সমূলে ধ্বংস করে দেওয়ার ইন্ধন যোগায়। ভারতীয় পরিচিতির রাজনীতির চোরাস্রোতের যখন বিস্ফোরণ ঘটেছিল ভিপি সিং-এর আমলে মণ্ডল রাজনীতির মধ্য দিয়ে, তখন এই বামপন্থী বুদ্ধিজীবীরা পরিচিতির প্রশ্নকে অবজ্ঞা করেছিলেন উৎপাদনের হাতিয়ারের মালিকানাকে একমাত্র ও ভ্রান্ত মার্কসীয় শ্রেণি-রূপ হিসেবে বিবেচনা করে। এখন পরিচিতির রাজনীতি তার কার্যক্ষমতা হারাতে বসেছে প্রধানত তিনটি কারণে – (১) পরিচিতির প্রশ্নকে ক্ষমতার ভারসাম্য গড়ে তোলার একমাত্রিক রূপ হিসেবে দেখা হয়েছে, অভ্যন্তরীণ সামাজিক পরিবর্তনকে কখনওই বিচার্য বিষয় হিসেবে রাখা হয়নি এবং বৃহত্তর ঐক্য গড়ে তোলারও তেমন জোরদার প্রচেষ্টা হয়নি, যেটুকু হয়েছে তা তথাকথিত সুবিধাবাধী ‘সোস্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং’-এর মধ্যে সীমিত রয়েছে। (২) বিত্ত পুঁজি, বণিক পুঁজি ও কৃষিতে উদ্বৃত্ত মুনাফা আরোহণের মাধ্যমে সঞ্চিত পুঁজির অধীনে গ্রামাঞ্চলে শ্রেণি সম্পর্কের প্রভূত পরিবর্তন সাধিত হয়েছে। (৩) এই দুটি কারণ পরিচিতির গণ্ডির শাসকীয় রাজনীতিকে বিভ্রান্ত করে তুলেছে। এজন্যই বাঙালি স্বার্থে কথা বলার এক প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে কংগ্রেস-বিজেপির বিভিন্ন গোষ্ঠীর মধ্যে এবং একাজটি তারা করতে পারছেন তাদের অসমীয়া কোর-কনস্টিটুয়্যান্সিকে হস্টাইল না করেই। কিন্তু বাস্তব যে তাদের দিশেহারা করে তুলেছে তা তাদের শারীরিক-ভাষাতেই ফুটে উঠছে। বিভ্রান্তির এই চালচিত্রটি অনুধাবন করা যায় সর্বভারতীয় ও রাজ্যিক ক্ষেত্রে বিভিন্ন দলের সর্বমোট ও জনগোষ্ঠীগত শতকরা ভোটপ্রাপ্তির বিস্তর তথ্যের পুঙ্খানুপুঙ্খ বিচারে। তারা বিভ্রান্ত কারণ আজকের বাস্তবতায় আসু-আন্দোলন পূর্ববর্তী ‘আলি-কুলি-বাঙালির’ কংগ্রেসি ভারসাম্যের রাজনীতিতে আর ফিরে যাওয়া সম্ভব নয়। অথচ এটাই কামনা করছেন বরাকের পরাজিত মূলস্রোতের বাঙালি বামপন্থী বুদ্ধিজীবীরা। যখন পরিচিতির রাজনীতি শ্রেণি রাজনীতির অধীন হয়ে পড়ার এক পরিবর্তনশীল পর্যায় চলছে, তখন তাদের পরিচিতির প্রশ্ন নিয়ে কালঘুম ভাঙতে শুরু করছে। তবে তারা তাত্বিকভাবে যে কথা বলেন, বাস্তব রাজনীতিতে পালন করেন অন্য ভূমিকা। তাদের এই বাস্তববাদ সুবিধাবাদ ও বৌদ্ধিক দীনতারই নামান্তর। এই দীনতা বরাকের বাস্তব প্রেক্ষাপট থেকে খানিকটা বিচার করে দেখা যাক।

বরাক উপত্যকার বাস্তবতা
বাস্তবকে বোঝার জন্য কোন একটা শক্তিশালী বৈশিষ্ট্যকে মাধ্যম করে নেওয়া একটি মান্য পদ্ধতি। শুধুমাত্র বাস্তব অভিজ্ঞতা থেকে একে বিচার করলে অভিজ্ঞতাবাদের দোষে দুষ্ট হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা প্রবল হয়ে দেখা দেয়। সুতরাং সাম্প্রতিক নির্বাচনকেই এই বিচারের প্রেক্ষাপট হিসেবে রাখা যেতে পারে। এই নিবন্ধে বিস্তৃত আলোচনার সুযোগ নেই, তাই বরাক উপত্যকার সমাজের কতকগুলো বৈশিষ্ট্যের মধ্যেই আলোচনাকে সীমাবদ্ধ রাখব। বরাকের নির্বাচন মানেই হিন্দু-মুসলিম বিভাজন। কিন্তু এবারের নির্বাচনে যখন সর্বভারতীয় ক্ষেত্রে ধর্মীয় মেরুকরণ ঘটানোর জোরদার প্রচেষ্টা অব্যাহত ছিল, তখন বরাকের দুটি সংসদীয় নির্বাচনে চূড়ান্ত ধর্মীয় মেরুকরণ ঘটেনি। অনেকে এটাকে দেখেন শাসকীয় রাজনীতির বিভিন্ন লবির স্বার্থের সংঘাতের পরিণতি হিসেবে, কিন্তু এহ বাহ্য। অনেকে আবার মনে করেন করিমগঞ্জে যদি মুসলিম প্রার্থী দেওয়ার সুযোগ থাকত এবং এইউডিএফের মুসলিম প্রার্থী হতো এবং শিলচরে যদি গেল বারের মত আজমল প্রার্থী হতেন, তাহলে ভোটিং প্যাটার্ন ভিন্ন হতো – এই বয়ানের মধ্যে হয়ত কিছু সত্যতা আছে। কিন্তু এই সত্যতা এবারের ভোটে যে মানসিকতা পরিবর্তনের বাস্তব বার্তা বহন করছে তাকে খণ্ডন করে না। আমাদের স্মরণে রাখা উচিত যে সর্বভারতীয় ক্ষেত্রে বিজেপির ভোট প্রাপ্তি মাত্র ৩১%, এমনকি উত্তরপ্রদেশে যেখানে সবচাইতে বেশি মেরুকরণের রাজনীতি হয়েছে সেখানেও এসপি-বিএসপি’র ভোটের যোগফল বিজেপির প্রাপ্ত ভোটের সমান। আমাদের নির্বাচনী পদ্ধতির জন্য ২২.২% ভোট পেয়েও বিএসপি উত্তরপ্রদেশে একটি আসনও লাভ করেনি। যাইহউক, বরাকের ভোট চালচিত্রের এই পরিবর্তনের আসল কারণটি অনুধাবন করা জরুরি। বরাক উপত্যকা তথা আসামের গ্রামাঞ্চলে সর্বশেষ এনএসএস স্যাম্পল সার্ভে রিপোর্টের তথ্য এবং আমাদের অনেকেরই বাস্তব অভিজ্ঞতা দেখায় যে বরাকের গ্রামাঞ্চলে কৃষকের সংখ্যা দ্রুতগতিতে কমছে এবং তার স্থান নিচ্ছে মজুরি শ্রমিকের ক্রমাগত বৃদ্ধি। কৃষকের মানসিক পৃথিবী বাস্তব উৎপাদনের উপকরণের মালিকানা ও জমির সাথে ধর্মীয় বন্ধনের জন্য সাম্প্রদায়িক রাজনীতির বয়ানে আকৃষ্ট হওয়ার অনুকূল হয়ে থাকে, মজুরি শ্রমিকের ক্ষেত্রে যে আবেদন তার কার্যকারিতা হারিয়ে ফেলার সূত্রপাত ঘটায় এবং এক ভিন্ন বয়ান তাদের কর্ণগোচর হওয়ার উপযোগী হয়ে থাকে। এই ভিন্ন সাম্প্রদায়িকতা বিরোধী বয়ান গ্রামাঞ্চলে পৌঁছে দিতে বামপন্থী ও মানবতাবাদী বুদ্ধিজীবীদের একাংশের নিরলস প্রয়াসও পরিলক্ষিত হয়েছে বরাকে উপত্যকার উর্বর মাটিতে। এই পর্যবেক্ষণের আরও বিস্তৃত ব্যাখ্যা থেকে বিরত থেকে বরাকের মধ্যবিত্ত শ্রেণির একাংশের স্বরূপ নিয়ে কিছু কথা বলে নেওয়া যাক।

বরাকের মধ্যবিত্ত বুদ্ধিজীবী শ্রেণি ও আধিপত্যের পুনর্বিন্যাস

বরাকের মধ্যবিত্ত বুদ্ধিজীবী শ্রেণির এক বৃহৎ অংশ গঠিত হয় অবিভাসী বাঙালিদের মধ্য থেকে যারা উদ্বাস্তু হয়ে পূববাংলার সব সা-সম্পত্তি ত্যাগ করে এখানে এসেছিলেন। এই উদ্বাস্তু বাঙালিদের        পূর্ব-প্রজন্মের সঞ্চিত ধন-সম্পত্তি যা পরবর্তী প্রজন্মে হস্তান্তরিত হয় এবং যা হস্তান্তরিত হওয়ার মধ্য দিয়ে সম্পত্তির মালিকানাজনিত অসাম্য প্রজন্মের পর প্রজন্ম গড়িয়ে চলে তা বাধা প্রাপ্ত হয়। অর্থাৎ এই উদ্বাস্তু বাঙালিদের মধ্যে শ্রেণি-বর্ণগত বিভাজনের মানিসকতা বিরাজ করলেও শুরুতে সম্পত্তির মালিকানাজনিত ভিত্তি ভেঙে যায়। কাঠামোগত এই সাম্য শ্রেণি-বর্ণ নির্বিশেষে সব উদ্বাস্তু বাঙালিদের মধ্যে একধরনের আত্মীয়তাবোধ জাগ্রত করে, কিন্তু সেই বোধ বেশিদিন স্থায়ী হয় না। পরবর্তী অভ্যন্তরীণ বিভাজনকে আমরা স্থূলরূপে এভাবে চিহ্নিত করতে পারি। প্রথমত উচ্চবর্ণের বাঙালি উদ্বাস্তুরা তাদের সামাজিক মর্যাদাকে ব্যবহার করে শহরে বসত স্থাপন করেন, গ্রামাঞ্চলেও যারা চলে যান তারাও এই সম্পর্ককে ব্যবহার করে অন্যান্যদের তূলনায় সুবিধাজনক স্থিতি লাভ করতে সক্ষম হন। বাকীরা উদ্বাস্তু শিবিরে আশ্রয় নিয়ে পরবর্তীতে ক্ষুদ্র-কৃষক, বিভিন্ন ধরনের কায়িক শ্রম-নির্ভর পেশা ও কৃষি-শ্রমিক হয়ে গ্রামাঞ্চলে বসত স্থাপন করেন। দ্বিতীয় পর্যায়ে বর্ণহিন্দুরা সরকারি চাকুরির মাধ্যমে প্রশাসন যন্ত্রের অভিন্ন অঙ্গ হয়ে ওঠেন এবং কৃষি সম্পত্তির পরিবর্তে সরকারি অনুদান ও সুবিধা যখন বেঁচে থাকার মুখ্য ধারা হয়ে ওঠে তখন বর্ণহিন্দু উদ্বাস্তুরা বাকীদের উপর একধরনের ঢিলেঢালা আধিপত্য স্থাপন করতে সক্ষম হন, যেহেতু আসামের শিক্ষিত মুসলিম অভিজাত পরিবারের এক বড় অংশ দেশভাগের সময় পূর্ব-পাকিস্তানে চলে যান। কিন্তু সামাজিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে ধর্মীয় বন্ধনের কোন যোগসূত্র না থাকায় মুসলিমরা স্বাভাবিকভাবেই এই আধিপত্য মেনে নিতে পারেনি। এই দ্বন্দ্ব হিন্দু-মুসলিম মানসিক দূরত্বে এক কাঠামোগত ভিত্তি রচনা করে। তৃতীয় পর্যায়ে বিশেষ করে আশির দশক থেকে যখন এক মুসলিম মধ্যশ্রেণি কৃষিক্ষেত্র ত্যাগ করে চাকুরীজীবী হয়ে উঠে আসছে এবং যখন পরিকাঠামোগত বিনিয়োগ, ফিনান্স পুঁজির প্রাধাণ্য, উৎপাদনের জন্য প্রয়োজনীয় সামগ্রীর তূলনায় কৃষি-উৎপাদিত সামগ্রীর ব্যয় বৃদ্ধির ফলে কৃষি ক্ষেত্রের আয় থেকে জীবন নির্বাহ দুরূহ হয়ে উঠছে, যখন পরিকাঠামো নির্মাণ ও বাণিজ্যিক উৎপাদনে মাঝারি ও ক্ষুদ্র কৃষকরা মজুরি শ্রমিক হিসেবে নিজের এলাকায় ও অভিবাসী শ্রমিক হিসেবে যুক্ত হতে আরম্ভ করেছে এবং বর্তমানে কৃষকের তূলনায় তার সংখ্যাধিক্য দেখা দিয়েছে, বেঁচে থাকার রসদ সংগ্রহে সরকারি প্রশাসনিক যন্ত্রের কার্যকারিতা যখন কমে আসছে, তখন আধিপত্যের এই রূপের এক নতুন পুনর্বিন্যাস জরুরি হয়ে উঠেছে, আপাত শান্তির এক আবরণের তলায় অশান্ত ডামাডোলের পরিস্থিতি বিরাজ করছে। কারা এই পুনর্বিন্যাসের নতুন এক স্থায়ী রূপের নেতৃত্ব দেবে এ এক গুরুত্ত্বপূর্ণ প্রশ্ন। বরাকের গণতান্ত্রিক ও বামপন্থী বুদ্ধিজীবীদের বৌদ্ধিক দেউলিয়াপনা এ প্রশ্নে কোন সদুত্তর দেওয়ার ক্ষেত্রকে এখনও ঘোলাটে করে রেখেছে।   

Strategic Dilemma of the Indian left

Posted by স্বাভিমান Labels: , , , , , , , ,

Arup Baisya

(This article has been written by the author in early March, 2014. Recently lot of new data and their theoretical interpretations by many experts in the field of economics and sociology are pouring in for further review on this issue) 

Reformism versus adventurism
            A leading section of the left circle mechanically delineates the path of establishing the working class hegemony as the war of maneuver in the East in contradistinction to the war of position in the west. Both the traditional parliamentary left and the extreme left strategically placed themselves in practice completely in a war of position and the war of maneuver respectively in the post seventies. Though this phase is heavily burdened with their past legacy, the post seventies period demands special attention in view of the neo-liberal phase of capitalism which differs in significant way from the post-war boom and welfarism. This phase is marked by many new dimensions in the scene of global capitalism due to the far-reaching consequence of the process of centralisation-cum-globalisation of finance capital, but it does not perforce indicate a radical break from Lenin’s prognostication on monopoly capital and imperialism. The mere counterposition of “war of position” to ”war of maneuver” in any Marxist strategy in the end becomes an opposition between reformism and adventurism. In the history of communist movement, once the united front had become equated with the war of position, against maneuverist strategies of adventurist period of all-out confrontation, it threatened to slide towards a gradualist reformism that was the mirror image of the ultra-leftist immediacy of the positions it proposed to replace.

Misconstrued notion
           The crisis of the traditional left is ingrained in a serious political error. The left’s implicit and explicit politics was that capitalism was standardising Indian society, that proletarianisation would reduce rural “idiocy,” that, like the freedom struggle, class struggle would reduce obscurantism, communalism and casteism, and, finally the community fabric of society would be more and more transformed into a class fabric. The parliamentary or mainstream Indian left like CPM and CPI has been visibly changing the strategy in practice from the seventies to war of position alone and started equating this with the united front activity and thus losing the zeal to build mass movement. Theoretically they accept the semi-feudal character of the Indian state, but with an understanding that the national bourgeoisie is at the helm of affairs moulding the capitalist formations.
           However, the development of capitalism in India has not resulted in submerging the communities in great socio-political development. Rather, dormant communities have now woken up, awakened communities have become restive, and a competitive polity based on a regime of subsidies and patronage has created communities out of sub-communities. The left offered neither non-violent resistance at Ayodhya, nor did it order a halt to Mr. Advani’s march at Purulia. More importantly, the slogans and methods to preach secularism were imprisoned by the rhetoric of the Nehruvite liberal age.
           On the other hand, the extreme left like the Indian Maoists are engrossed in a static mindset and fail to notice the internal dynamics of societal change under the influence of the global capitalism and Indian Democracy even in the hinterlands within the over-arching semi-feudal structure.
             Land reform was undertaken haltingly through the 1950s to the end of the 1970s. NSSO survey report, 2003-04 shows that the landless household is 31.12 per cent and the percentage of households having more than 3 hectares of land is only 5.19 per cent (of this, 3.06 per cent  has 3-5 hectares and 0.52 per cent has more than 10 hectares). Agricultural statistics, 2013 published by Directorate of Economics and Statistics, Ministry of Agriculture, Government of India, reveals that in 1951, agricultural cultivators was 71.9 per cent of total rural population and agricultural labourer was 28.1 per cent, but these figure changed to 45.1 per cent and 54.9 per cent respectively in the year 2011. The total amount of land operated by big farmers has decreased by roughly 38 per cent, accompanied by a very substantial jump in the area under small and very small operational holdings (Ministry of Agriculture 2013). The NSS data also show that the share of agricultural workers among all male rural workers declined steadily from 80.6 per cent in 1977-8 to 71.7 per cent 1989-90 and for rural females this share dropped from 88.1 per cent in 1977-8 to 81.4 per cent in 1989-90 (as noted in Jha 1997). These figures imply that non-agricultural sector absorbed about 70 per cent of the total increase in the rural workforce between 1977-8 and 1989-90 (Social Development report 2012, Council for social development). These changes in the rural landscape have substantially changed the balance of forces in the semi-feudal relations of production, and this itself demands special attention to formulate new programme for left movement.

Different phases of transition 
               The series of successful revolutionary upsurge that had been first witnessed in Russia and ended with the last revolutionary victory in Vietnam in May 1975 was based on the premise of the workers-peasant alliance built in the backdrop of rising peasant militancy. But widespread peasant militant movements like Tebhaga, Telangana could not be transformed into revolutionary social movement in India under the leadership of working class. The objective barriers existed in India, as Utsa Pattanaik pointed out, were : “for one, the strength and efficiency, honed over two centuries, of the repressive apparatus of the unitary British colonial state, as compared to moribund tsarism in Russia or the internal bickering of rival imperialist powers in seni-colonial China. For another, the relative strength of the English-educated Indian bourgeoisie which seized the leadership of the national movement particularly after Gandhiji’s returm from South Africa and his brilliant political innovation – the satyagraha, which perfectly suited the requirement of a movement which wished to stave off revolution while taking over the legacy of power.”  In addition to her diagnosis of objective difficulties, it would be pertinent to say that the Indian peasant movement of that period had seldom crossed the caste-community fault lines built into Indian semi-feudal hierarchical caste-structure and could not change the upper-caste moorings of the English-educated class who acted as the colonial intermediaries.
In the country like India with emerging market economy, there occurred many changes in the structure of workers and peasants over the period from colonial rule of de-industrialisation to the dirigiste industrial development to the present phase of imperialist globalisation. It can be claimed that the de-industrialisation was merely a decline from a development which had been specially stimulated by the activities of the European merchants themselves in buying Indian cloth for export to other countries. Hence the major part of the de-industrialisation must be attributed to the displacement of traditional manufacturers as suppliers of consumption goods to the internal Indian marker.
                Characterising the colonial de-industrialisation, Amiya Kumar Bagchi wrote : “Capitalist industrialization up to the phase of maturity is attended by at least three types of changes : (a) an increase in the proportion of the population engaged in secondary industry  (b) a sustained increase in per capita income and (c) a continual rise in the degree of mechanization in industry  -- and to lesser extent perhaps, in agriculture. The reversal of any of these conditions over a long period of time can be characterized as de-industrialisation. Indian experienced the reversal of the first two conditions from probably 1820 up to 1914.”
            During the post independence period up to the seventies, a new industrial policy of import substitution of manufactured consumer goods with a view to catching up the developed western world was followed. But that policy was heavily dependent on the import of heavy machineries and thus remained completely entangled with vicissitudes of the global market and the policy framework of global capitalists. The capitalist classes of the India cannot step up their rates of accumulation without running into inflationary, and balance of payments, difficulties, because they have to reckon with the formidable influence exerted on world economy by the advanced capitalist classes, and also due to the fear of the unrest of the Indian peasantry and the proletariat, the capitalist classes of India have to adjust to the demands of the property-owning strata in control of sector characterized by pre-capitalist relations. The neo-liberal policy framework that was initiated by the Indian Government in the backdrop of balance of payment crisis let loose an onslaught on the labour at the behest of Global capitalist class. The left in power in the Indian states especially in West Bengal also succumbed to this pressure with a policy paralysis.

Dilemma of the left
             The total abdication of its role by a supposedly pro-labour government in West Bengal further worsened the situation. In 1988, for example, of the total 228 work stoppage, lock-outs accounted for 85 per cent and strikes 15 per cent: 88 per cent of mandays were lost because of lock-outs and 12 per cent because of strikes. Of the 246,053 workers affected, a majority (60 per cent) suffered owing to lock-outs. The average duration of a strike was 33.4 days and a lock-out 169 days. Lay-offs increased from 510 in 1985 to 1,572 in 1988. (Samaddar, Ranabir : 2013). The unions and the state both remained mute witness to the onslaught on workers during the decade. In fact, the unions often became part of a structure that resulted in managerial hegemony – just as the policies of the so called pro-labour State government did.
          The left, in principle, must always strategically place themselves in favour of the strike by labour on the capital with tactical variations during the period of boom and of recession of global capitalism marked by underdevelopment, restricted home market, stagflation, a large unorganized sector and technological restructuring of industry as argued by Lenin long ago. But the left in power in Bengal became mere witness of the strike by capital in the ‘80s. Left could have sided with the labour by initiating a policy of social security, co-operative management of the existing industries, building social infrastructure that also generates employments, and the support to increase in demand for indigenous commodities through state purchases, and also pushing the achievement of operation Barga further ahead progressively through land reform and boosting agricultural commercialisation and cooperation. But they dared not pursue this pro-labour path with a fear to face the hostility of the global capitalist class and reluctance of global investors who are interested in profiteering and in ensuring super-profit through the existence of pre-capitalist social relations with a skewed development model. The extreme left, especially the Maoists, on the other hand, failing to realise the change in the urban and rural social classes and the balance of forces evolved during the long period of post-independence capitalist re-construction and the existing parliamentary democracy put much emphasis on the immanence of the seizure of state power and on the combat with the coercive apparatuses of the state following the argumentation of the mechanical division of strategy in the Eastern and the Western countries.
             The change of agrarian social classes has diverse ramifications in the diverse geo-political regions of Indian nation. The distress condition in the cash crop areas shows the sign of landlord capitalism and strengthening of pre-capitalist relations and the caste-communities cleavages under the influence rentier financial and merchant capitalism. But the region like Bengal where left had undertaken land reform to a certain extent has unleashed the forces to carry forward agrarian commercialisation through the path of peasant capitalism. The proletarianisation of rural peasantry would have opened up the new vistas for working class unity and consciousness in both rural and urban sector, had the left in power not given much emphasis on the path of development basing on global capitalist investors, and the extreme left not marginalised themselves with the combatant role relying much on the politics of the barrel of the gun. Both the mainstream left and the extreme left have missed the opportunity to build the sustained struggle for social security, weakening of caste based pre-capitalist structure to ensure working class unity and consciousness. But the traditional left forces like CPI and CPIM  have been pursuing the misplaced legacy of strategic and tactical path of second communist international and Stalinist determinism without taking into cognisance the here and now of the post-independence Indian reality.

Marxism and Binary categories
   In defense of the Marxist dialectics, E P Thompson wrote :
  “Marxist theory…… can become a false consciousness if, instead of being used for the methodical investigation of reality through theory and practice, it is misused as a defence against that very reality……. Those who wish to deprive Marxism of its critical, subversive power and turn it into a affirmative doctrine, generally dig in behind a series of stereotyped statements which, in their abstraction, are as irrefutable as devoid of result.” Citing the Indian Marxist, he further reiterated : “…..If one considers for a moment the possible consequences if the Communist Party of India (One of the most unreconstructed Stalinist parties in the world) were to reinforce its existing anti-libertarian tendencies and contempt for ‘petit-bourgeois’ masses – tendencies amply displayed in its partnership in the recent emergency – with a dose of Althusserian arrogance; and if its largely bourgeois and intellectual upper cadres were to become theoretical practitioners; and if the opportunity to practice, not only in theory, but upon the body of India, should return  -- then we could expect nothing less than the re-enactment of the full repertoire of high Stalinism within the raging inferno of Indian ‘scarcity’.”
This argument is also applicable to CPI(M) to a great extent. The left front role in West Bengal in post seventies was guided from the premise that the Party is able to decide the best interest of the working class on the basis of Marxist ‘Science’, and to serve this interest through ‘ideological state apparatuses’. In this understanding, Marxism becomes an inert tool only to be handled by the Party to judge working class morality and in this framework working class becomes a passive onlooker who is only to be led and guided. Thus Mraxist science degenerates into deterministic formulae to be used to predict the future. Following this approach, both the variants of Indian left, the CPI-CPIM and Maoist, have conceptualised the reality in binary framework of opposite categories of war of position versus war of maneuver. Another such category is the civil society versus the political society. The interconnectedness of these two categories and their dialectical relation with the state are missed while strategising the revolutionary movement. When the broad-based strategy to build united front of all forms of movements for the rights of civil societies and the movements to resist the onslaught of the ruling classes of political societies are not mooted, it becomes apparent that the content of diverse mass-movements in India in this neo-liberal phase of economy against both the consent and coercion of the existing state is undermined. The two aspects of ruling class hegemony and domination, the consent and coercion, have been segregated by the two variants of the lefts in their formulations of actual practice. A new approach needs to be developed for the new left to emerge with a view to resolve the conflict between the forces of production and the relations of production in this neo-liberal phase of capitalism in the country like India.

References :

  1. The Gramscian Moment, Peter D. Thomas.
  2. Introduction to Daniel Thorner Memorial Letures, Edited by Alice Thorner.
  3. Colonialism and Indian Economy, by Amiya Kumar Bagchi.
  4. Passive Revolution in West Bengal, 1977-2011, by Ranabir Samaddar.
  5. Studies in the Development of Capitalism, Maurice Dobb.
  6. Poverty of Philosophy, E P Thompson           

স্বাভিমান:SWABHIMAN Headline Animator

^ Back to Top-উপরে ফিরে আসুন